‘মামলার পর দীর্ঘমেয়াদে স্থিতিশীলতা ফিরবে পুঁজিবাজারে’

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

শেয়ারবাজারে ভয়াবহ বিপর্যয়ের ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা করায় বাজারে দীর্ঘমেয়াদে স্থিতিশীলতা ফিরে আসবে বলে আশা করছেন পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা।

ঢাকা: শেয়ারবাজারে ভয়াবহ বিপর্যয়ের ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা করায় বাজারে দীর্ঘমেয়াদে স্থিতিশীলতা ফিরে আসবে বলে আশা করছেন পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা।

তবে এ মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পতি ও অভিযুক্তদের শাস্তির ব্যবস্থা করা গেলেই সরকার ও নিয়ন্ত্রক সংস্থার প্রতি সাধারণ বিনিয়োগকারীদের আস্থা আরো বেশি হবে বলেও জানান তারা।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও সাবেক সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) চেয়ারম্যান মির্জা আজিজুর ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, ‘এ মামলাটি আরো আগে করা উচিত ছিলো এসইসির। তবে দেরিতে হলেও এসইসি একটি ভালো প্রদক্ষেপ নিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এসইসির জন্য মামলাটি এখন একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।’

তবে এসইসিকে আরো সর্তক হয় পদক্ষেপ নেওয়ার পরার্মশ দেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, ‘মামলায় অভিযুক্তদের শাস্তি দেওয়া গেলে বাজারে বিনিয়োগকারীদের আস্থা অনেক বেশি বাড়বে। আর পুঁজিবাজারে দীর্ঘ মেয়াদে স্থিতিশীলতা ফিরে আসবে।’

বাজার বিশ্লেষকদের মতে, সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের মামলা দায়েরের সিদ্ধান্তহীনতা ও দীর্ঘসূত্রিতায় বাজারের সাম্প্রতিক নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

তারা বলছেন, ‘এই মামলা দায়েরের সিদ্ধান্তটি আরো আগেই নেওয়া দরকার ছিল। তাহলে সেটি বাজারে প্রভাব ফেলতে পারত না।’

বাজার সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, মামলার আগে আসামিদের সাথে এসইসির পক্ষ থেকে আলোচনা করা হয়। তার ভিত্তিতেই ঈদের আগে মামলা দায়ের, আইনজীবী নিয়োগ ইত্যাদি করা হয়।

রোববার মামলা দায়েরের পরে এসইসিতেও ছিল নজীরবিহীন নিরবতা। দুপুরে মামলা দায়ের হলেও বিকাল পর্যন্ত এসইসির কোন সদস্য বা কর্মকর্তা এ বিষয়ে মুখ খোলেননি।

পুজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজানুর রশীদ চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, ‘এসইসির এই মামলার গুজবে পরে মার্কেটের অনেক ক্ষতি হয়ে গেছে।’

তিনি বলেন, ‘মামলাটি আরো আগে করা হলে এই ক্ষতি হতো না। এইইসির দীর্ঘসূত্রিতা ও সিদ্ধান্তহীনতায় বাজারের অনেক ক্ষতি হয়ে গেল।’

তিনি বলেন, ‘তদন্ত কমিটির রিপোর্ট দেওয়ার পরে এই একটা ব্যবস্থা নিতে এতদিন তো লাগার কথা না।’

তিনি আরো বলেন,  ‘আমরা সবাই চাই, সবাই আইনের আওতায় আসুক। এই মামলার ফলে ভবিষ্যতে কেউ এরকম করার আগে দু’বার চিন্তা করবে। দীর্ঘমেয়াদে চিন্তা করলে এটা বাজারের জন্যে ভালো হবে।’

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সহ-সভাপতি আহসানুল ইসলাম টিটো বাংলানিউজকে বলেন, ‘একপ্রকার সামাজিকতা রক্ষায় মামলাটা হয়েছে বলা যায়। আসলে প্রতিদিনের লেনদেনে সততা আর কারসাজির মাঝে পার্থক্য অতিসুক্ষ।’

তিনি বলেন, ‘এতে কিছু বিনিয়োগকারী কিছুটা শংকিত হতে পারেন, তবে বাজারের শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য দীর্ঘমেয়াদে এটি সুফলই বয়ে আনবে। তবে বাংলাদেশে এরকম অভিযোগে মামলার কথা আমি আগে শুনি নি, কেউ শাস্তি পেয়েছে বলেও আমার জানা নেই।’

উল্লেখ্য, রোববার দুপুরে ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে শেয়ারবাজারে ভয়াবহ বিপর্যয়ের ঘটনায় দায়ী ৫ ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি)।

এসইসির পরিচালক মাহবুবুর রহমান চৌধুরী এ মামলা করেন।

 কমিশনের  অর্ডিন্যান্স ১৯৬৯ এর ১৭ (ই)(৫) ধারায় অভিযোগ এনে এ মামলাটি করা হয়।

মামলার আসামিরা হলেন- সৈয়দ সিরাজউদ্দৌলা, তার স্ত্রী রাশেদা আক্তার মায়া, মাবিবুর রহমান মোড়ল, আবু সাদাত মো. সায়েম ও মমিন মোল্লা।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩৪ ঘণ্টা, আগস্ট ২২, ২০১১

স্বল্প পরিসরে চেক ক্লিয়ারিং করার নির্দেশ
করোনায় ইতালিতে আরও ৭৫৬ জনের মৃত্যু
করোনাভাইরাস মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর বার্তা
প্রধানমন্ত্রীর তহবিলে ১ দিনের বেতন দিলেন সেনা সদস্যরা
মাঠে নেমে সহায়তা করছেন বলিউড তারকারা


ল্যাব না থাকলেও সিংড়ায় গেল দুই'শ করোনা টেস্টিং কিট
মানুষকে টেলিফোনে চিকিৎসাসেবা দিতে ফারাজের উদ্যোগ
রাজশাহীতে এলো আরও ১ হাজার পিস পিপিই
পুলিশকে পিপিই দিল চীনা নাগরিকদের সংগঠন
নবাবগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পিপিই হস্তান্তর