রাজধানীর ১৩ স্থানে ৬০ ও ৬২ টাকা দরে চিনি বিক্রি

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

ঈদের আগে চিনির উর্ধ্বমুখী দামের লাগাম টেনে ধরতে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে রাজধানীর ১৩টি পয়েন্টে নির্ধারিত দামের চেয়ে কম দামে চিনি বিক্রি শুরু করেছে সরকারি দুটি প্রতিষ্ঠান।

ঢাকা: ঈদের আগে চিনির উর্ধ্বমুখী দামের লাগাম টেনে ধরতে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে রাজধানীর ১৩টি পয়েন্টে নির্ধারিত দামের চেয়ে কম দামে চিনি বিক্রি শুরু করেছে সরকারি দুটি প্রতিষ্ঠান।

ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) রাজধানীর ১০টি স্থানে এবং চিনি ও খাদ্য কর্পোরেশন (বিএসএফআইসি) চিনি তিনটি স্থানে চিনি বিক্রি করছে।

চিনি বিক্রির পয়েন্টগুলো হচ্ছে, শাহজাহানপুর কলোনি, প্রেসক্লাব, মিরপুর-১০ ফায়ার সার্ভিস, যাত্রাবাড়ী, শেরেবাংলা নগর, নির্বাচন কমিশন সচিবালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক কলোনি, শ্যামলী সিনেমা হল, আজিমপুর কলোনি ও মধ্য বাড্ডায়। টিসিবি এ ১০টি স্থানে চিনি বিক্রি করছে।

এছাড়া চিনি ও খাদ্য করপোরেশন তিনটি ট্রাকে খোলা বাজারে চিনি বিক্রি করছে। তার মধ্যে নিজস্ব বিক্রয় কেন্দ্রে একটি এবং বাকি দুইটি ট্রাক রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ভ্রাম্যমাণ চিনি বিক্রি করছে।

নগরীর বিভিন্ন বিক্রয় কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, টিসিবি বিক্রয় কেন্দ্রগুলোতে প্রতি কেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৬২ টাকায় এবং বিএসএফআইসি ৬০ টাকা দরে বিক্রি করছে। এছাড়া টিসিবি ও বিএসএফআইসি উভয়ই প্রত্যেক ব্যক্তিকে সর্বোচ্চ দুই কেজি চিনি বিক্রি করছে।

বৃষ্টি উপেক্ষা করে মানুষ সুশৃঙ্খলভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে চিনি নিতে দেখা যায় এসব বিক্রয় কেন্দ্রে। প্রেসক্লাবের সামনে টিসিবির লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা রহিম (৩৮) নামের একজনের কাছে বলেন, ‘সরকারের এ উদ্যোগ প্রশংসনীয়। এতে সুলভ মূল্যে, সঠিক ওজনে ভালো চিনি পাচ্ছি।’ সরকার যদি আরও একমাস আগে এ ধরনের উদ্যোগ নিতো তবে চিনি দাম ৫৫ টাকার বেশি হতো না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মতিঝিলে বিএসএফআইসির বিক্রয় কেন্দ্রে চিনি কিনতে লাইনে দাঁড়ানো হাসান (৪৩) নামের একজন বলেন, ‘যে চিনি রোজার আগের দিন ৭৫-৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল, তা আজ ৬০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে, সরকার চাইলে কি না পারে?’

টিসিবি সূত্র জানায়, এ কার্যক্রম শুরুর প্রথম দিকে প্রতি ট্রাকে এক হাজার করে চিনি বিক্রি করলেও বর্তমানে প্রতি ট্রাকে প্রতিদিন আড়াই হাজার কেজি চিনি বিক্রি করা হয়।

এছাড়া সুষ্ঠভাবে পরিচালনার জন্য প্রতি ট্রাকে টিসিবি থেকে একজন প্রতিনিধি রয়েছে এবং তদারকির জন্য পাঁচ জনের একটি গ্রুপ সার্বক্ষণিক রাস্তায় টহল দিচ্ছে বলে জানায় টিসিবি সূত্র।

কতদিন চলবে এমন প্রশ্নের জবাবে টিসিবির তথ্য অফিসার হুমায়ূন কবির বাংলানিউজকে বলেন, ‘বাণিজ্য মন্ত্রণালয় যতদিন বলবে আমরা ততোদিন বিক্রি করবো।’

অন্যদিকে, খোলা বাজারে ঈদের আগ পর্যন্ত ১৫ লাখ কেজি চিনি বিক্রি করবে বিএসএফআইসি। মতিঝিলে নিজস্ব বিক্রয়কেন্দ্রে সার্বক্ষণিক একটি ট্রাকে ও রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে আরো দুইটি ট্রাকে মাধ্যমে বিক্রয় কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

বিএসএফআইসির যুগ্ম-সচিব মো. মুনসুর আলী সিকদারের কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বাংলানিউজকে বলেন, ‘আমরা চিনি শিল্প সজাগ আছি বলেই চিনি এতো কম দামে পাওয়া যাচ্ছে।’ তা না হলে চিনিও তেলের মতো ১২০ টাকা দরে কিনতে হতো বলে মন্তব্য করেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত ৪ আগস্ট টিসিবি এবং গত ৮ আগস্ট বিএসএফআইসি এ কার্যক্রম শুরু করে।

বাংলাদেশ সময়: ২১২১ ঘণ্টা, আগস্ট ০৯, ২০১১

করোনা: ২৮ জায়গায় টেস্ট, প্রতি জেলায় ৫ হটলাইন
সিএমপির দক্ষিণ জোনে খাদ্য সামগ্রী পাচ্ছে ৩ হাজার পরিবার
করোনা: সংসদ সদস্যদের জনগণের পাশে থাকার আহ্বান চিফ হুইপের
আড়াইহাজারে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০
সিলেটে পায়ে শিকল বাঁধা যুবকের মরদেহ উদ্ধার


এখন এডিস মশার প্রজননের উর্বর সময়: আইইডিসিআর
করোনায় ইরানে আরও ১১৭ জনের মৃত্যু
ভূরুঙ্গামারীতে স্ত্রী হত্যার অভিযোগে স্বামী গ্রেফতার
মাগুরায় এক কেজি গাঁজাসহ আটক ২
না’গঞ্জে হোম কোয়ারেন্টিনে আরও ১৮, ছাড়পত্র পেয়েছেন ৫১ জন