বিতর্কিত কাবোকে বিমানের ‘না’

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

শেষ পর্যন্ত বিতর্কিত কাবো এয়ারলাইন্সকে ‘না’ করেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। আসন্ন হজ মৌসুম সামনে রেখে হজ যাত্রী পরিবহনের জন্য ভাড়ায় একটি উড়োজাহাজ খুঁজছিল বিমান। বিমানের পরিচালনা পর্ষদের বৈঠক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ঢাকা: শেষ পর্যন্ত বিতর্কিত কাবো এয়ারলাইন্সকে ‘না’ করেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। আসন্ন হজ মৌসুম সামনে রেখে হজ যাত্রী পরিবহনের জন্য ভাড়ায় একটি উড়োজাহাজ খুঁজছিল বিমান। বিমানের পরিচালনা পর্ষদের বৈঠক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, হজ কেলেঙ্কারি করা কাবো এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ ভাড়া নেওয়ার জন্য তৎপর ছিলেন বিমানের কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তি। ভাড়ায় উড়োজাহাজ নিতে চার দফায় দরপত্র বাতিলের পরও বিষয়টি সিদ্ধান্তহীন থাকে। এর পেছনে ক্রীড়ানক হিসেবে কাজ করেছেন বিমানের প্রভাবশালী কয়েক ব্যক্তি। কাবো এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজই যাতে বিমান নিতে বাধ্য হয় সেজন্য তারা বিভিন্ন অজুহাতে দরদপত্র বাতিল করেছিলেন।

তবে শেষ রক্ষা হয়নি। শনিবার বিমানের পরিচালনা পর্ষদের জরুরি সভায় বিতর্কিত কাবো এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ ভাড়ায় না আনার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়।

সভায় বিগত সভার মতো পরিচালনা পর্ষদের কতিপয় সদস্য কাবোর পক্ষে জোরালো অভিমত দিয়েছিলেন। তবে এর বিরোধীতাকারী সদস্য সংখ্যা বেশি হওয়ায় শেষ পর্যন্ত কাবোর দাবি ধোপে টেকেনি।

কাবোর বদলে এয়ারবাসের একটি উড়োজাহাজ ভাড়া নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিমান। তিন মাসের জন্য এটি ভাড়া নিলে ঘণ্টায় দিতে হবে ৮,০০০ মার্কিন ডলার। আর যদি এক বছরের জন্য নেওয়া হয়, তাহলে দিতে হবে ৬,১০০ মার্কিন ডলার। বোর্ড এয়ারবাসের উড়োজাহাজটি নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও শেষ পর্যন্ত তিন মাস নাকি এক বছরের জন্য নেবে তা পর্যালোচনা করে দেখার দায়িত্ব দিয়েছে বিমানের ক্রয় সংক্রান্ত কমিটিকে। কমিটির পর্যালোচনা রিপোর্টের ভিত্তিতে বোর্ড চূড়ান্ত (তিনমাস নাকি এক বছর) সিদ্ধান্ত নেবে।

অন্যদিকে নাইজেরিয়াভিত্তিক কাবো এয়ারলাইন্স একেকবার একেক রকমের ভাড়ার প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। তারা কখনো তিন মাসের জন্য কখনো এক বছরের জন্য ভাড়া নেওয়ার প্রস্তাব দেয়।

সর্বশেষ তারা তিনমাসের জন্য হলে ঘণ্টায় ১২ হাজার মার্কিন ডলারে ভাড়ার প্রস্তাব দেয়। আর এক বছরের জন্য হলে ৬২০০ ডলারে দেওয়ার প্রস্তাব দেয়। বৈঠকে অংশ নেওয়া বিমানের একজন পরিচালক নাম না প্রকাশ করে বাংলানিউজকে বলেন, ‘কাবো বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরনের মূল্যে উড়োজাহাজ ভাড়ার প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। শেষ পর্যন্ত তাদের এ ধরনের প্রস্তাবে বেশিরভাগ সদস্য বিরক্ত হন।’

তিনি বলেন, ‘বেশিরভাগ পরিচালকই বিতর্কিত কাবোর পক্ষে ছিলেন না। কাবোর অতীত রেকর্ডের কথা ভেবেই এই পরিচালকরা এর বিরোধীতা করেছেন।’

নির্ভরযোগ্য একটি সূত্রে জানা গেছে, বিমানের ক্রয় কমিটির দু’একজন সদস্য কাবোর পক্ষে ছিলেন। কাবো এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ নেওয়ার বিভিন্ন সুবিধা ব্যাখ্যা করে তা বোঝানোর চেষ্টা করেন যে হজের জন্য কাবোই উপযুক্ত। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির কয়েকজন সদস্য কাবোর পক্ষে ছিলেন। গেল বছরও সংসদীয় স্থায়ী কমিটির কয়েকজন সদস্য, বিমানের বর্তমান চেয়ারম্যান এয়ার মার্শাল জামাল উদ্দিন আহমেদ (অব.) সহ প্রভাবশালী বেশ কিছু ব্যক্তি কাবোর পক্ষে ছিলেন। তারা ২০ বছরেরর পুরনো কাবো এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ নেওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন।

বিমানমন্ত্রী জিএম কাদের ছিলেন এর বিরুদ্ধে। কাবোর পক্ষের লোকেরা বারবার মন্ত্রণালয় ও বিমান কর্তৃপক্ষকে কাবোর উড়োজাহাজ নিতে চাপ দিচ্ছিলেন। কিন্তু মন্ত্রী ২০ বছরের পুরনো উড়োজাহাজ নেওয়ার বিপক্ষে দৃঢ় অবস্থান নেওয়ার কারণে প্রভাবশালীদের উদ্দেশ্য ভেস্তে যায়।  

বাংলাদেশ সময়: ১৫৫৫ ঘণ্টা, আগস্ট ০৬, ২০১১

ত্রিপুরায় করোনায় আক্রান্ত একজন শনাক্ত
বিনিয়োগ বাড়লেও ইপিজেডে জনবল কমে ৫ লাখ ১৪ হাজার
করোনা: লালমনিরহাটে বেগুনের কেজি ২ টাকা!
হাসপাতাল থেকে ফিরিয়ে দেওয়ায় রাস্তায় ইজিবাইকে জন্মনিল শিশু
‘করোনা’ গুজব ঠেকাতে ফেসবুকের সমন্বিত উদ্যোগ


নারায়ণগঞ্জ হাসপাতালের জরুরি বিভাগ বন্ধ ঘোষণা
উজিরপুরে ৫ বাড়ি লকডাউন
করোনা: ফ্রান্সে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা
করোনা উপসর্গ নিয়ে নারায়ণগঞ্জে এক ব্যক্তির মৃত্যু
নারীনেত্রী রাখী দাশ পুরকায়স্থ আর নেই