মানুষকে কম খাওয়ার পরামর্শ দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

বাণিজ্যমন্ত্রী ফারুক খান খাদ্যদ্রব্যে ভেজাল প্রতিরোধে সাধারণ মানুষকে কম খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে বলেছেন, ‘আপনারা কম খান, সব ঠিক হয়ে যাবে। কম খেলে সমস্যা কমবে। খাবারের প্রতি লালসা কমান, তা হলে ব্যবসায়ীদের উচিৎ শিক্ষা হবে। আগেকার মানুষ কম খেত বলে বেশি দিন বাঁচত।’

ঢাকা: বাণিজ্যমন্ত্রী ফারুক খান খাদ্যদ্রব্যে ভেজাল প্রতিরোধে সাধারণ মানুষকে কম খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে বলেছেন, ‘আপনারা কম খান, সব ঠিক হয়ে যাবে। কম খেলে সমস্যা কমবে। খাবারের প্রতি লালসা কমান, তা হলে ব্যবসায়ীদের উচিৎ শিক্ষা হবে। আগেকার মানুষ কম খেত বলে বেশি দিন বাঁচত।’

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘খাদ্যে ভেজাল প্রতিরোধে আমাদের করণীয়’ শীর্ষক আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, খাদ্য গ্রহণের পরিমাণ কমালে ব্যবসায়ীরা খাদ্যে ভেজাল মেশাতে নিরুৎসাহিত হবে। তাছাড়া খাদ্যের মাধ্যমে মানুষের শরীরে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া সহজে প্রবেশ করে। তাই কম খাওয়া ভালো বলে আমি বিশ্বাস করি।

বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমরা ভেজালবিরোধী নতুন আইন করব। প্রস্তাবিত এ আইনে যিনি ভেজালের অভিযোগ করবেন ও তথ্য দেবেন, জরিমানার ২৫ শতাংশ টাকা তাকে দিয়ে দেওয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশের বেশিরভাগ ব্যবসায়ীই সৎ। তবে হাতে গোনা দু’এক জন অসাধু ব্যবসায়ীর জন্য সব ব্যবসায়ী এর দায়ভার নিতে পারে না। আমরা আশা করি, আগামী ৭ থেকে ৮ দিনের মধ্যেই দ্রব্যমূল্য ও ভেজাল সমস্যা কমে আসবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভেজালরোধে সরকার মনিটরিং সেলের মাধ্যমে দোষী ব্যক্তিদের শাস্তির ব্যবস্থা করছে। এ ব্যপারে সহযোগিতার জন্য সবাইকে আহ্বান জানাই।’

ভলান্টারি কনজুমারস ট্রেনিং অ্যান্ড অ্যাওয়ারনেস সোসাইটি (ভোক্তা) নামক একটি সংগঠন এ আলোচনাসভার আয়োজন করেন।

অনুষ্ঠানে ভোক্তার সভাপতি মুহাম্মদ আলী জিন্নাহর সভাপতিত্বে মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. হোসেন উদ্দিন শেখর।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি একে আজাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আ ব ম ফারুক, বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এসএম ইমামুল হক, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল হোসেন মিয়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড সায়েন্সেসের প্রধান বিজ্ঞানী ড. লতিফুল বারী, ক্যাব সভাপতি কাজী ফারুক প্রমুখ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে একে আজাদ বলেন, ‘খাদ্যে ভেজাল সমস্যার জন্য মূলত তিন জন দায়ী। প্রথমত ব্যবসায়ীদের নেতা হিসেবে আমি, দ্বিতীয়ত ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের ডিজি এবং সরকারেরর প্রতিনিধি হিসেবে বাণিজ্যমন্ত্রী নিজে। তবে ভেজাল রোধে আমরা যৌথভাবে কাজ করবো।’

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল হোসেন মিয়া বলেন, ‘জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরে সাধারণ ভোক্তারা কোনো অভিযোগ করলে আমরা দ্রুত ব্যবস্থা নিচ্ছি। এখানে লিখিত অভিযোগ করলে সঙ্গে সঙ্গে দোষী ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হবে।’

বাংলাদেশ সময়: ১২৪৯ ঘণ্টা, আগস্ট ০৪, ২০১১

ওসির গাড়িতে গর্ভবতী নারীকে নেওয়া হলো হাসপাতালে
রামগতিতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় সাংবাদিক নিহত
করোনায় সিরিয়ায় প্রথম মৃত্যু
স্বল্প পরিসরে চেক ক্লিয়ারিং করার নির্দেশ
করোনায় ইতালিতে আরও ৭৫৬ জনের মৃত্যু


করোনাভাইরাস মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর বার্তা
প্রধানমন্ত্রীর তহবিলে ১ দিনের বেতন দিলেন সেনা সদস্যরা
মাঠে নেমে সহায়তা করছেন বলিউড তারকারা
ল্যাব না থাকলেও সিংড়ায় গেল দুই'শ করোনা টেস্টিং কিট
মানুষকে টেলিফোনে চিকিৎসাসেবা দিতে ফারাজের উদ্যোগ