বিধান না থাকলেও অনলাইন ব্যাংকিং-এ সার্ভিস চার্জ আদায় করছে ব্যাংকগুলো

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

অনলাইন ব্যাংকিং সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে সার্ভিস চার্জ আদায়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কোনো সুস্পষ্ট নির্দেশ না থাকলেও এ সেবার বিনিময়ে সার্ভিস চার্জ আদায় করছে দেশি-বিদেশি ব্যাংকগুলো।

ঢাকা: অনলাইন ব্যাংকিং সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে সার্ভিস চার্জ আদায়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কোনো সুস্পষ্ট নির্দেশ না থাকলেও এ সেবার বিনিময়ে সার্ভিস চার্জ আদায় করছে দেশি-বিদেশি ব্যাংকগুলো।
 
প্রসঙ্গত, গতবছর ডিসেম্বরে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক জারিকৃত বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর সার্ভিস চার্জ সংক্রান্ত সার্কুলারে ‘অন-লাইন ব্যাংকিং’ সেবা খাতে সার্ভিস চার্জ প্রসঙ্গে কিছু উল্লেখ করা হয়নি। তবে এতে বলা হয়েছে, ‘ঘোষিত/প্রকাশিত তালিকার বাইরে ব্যাংকগুলো কোনো চার্জ/ফি/কমিশন আদায় করতে পারবে না’।
 
এদিকে পরিস্কার কোনো দিকনির্দেশনা না থাকায় অনলাইন ব্যাংকিং সেবার বিনিময়ে বিভিন্ন ব্যাংক বিভিন্ন হারে গ্রাহকদের কাছ থেকে সার্ভিস চার্জ আদায় করছে।
 
অনুসন্ধানে দেখা গেছে, কয়েকটি ব্যাংক এলাকাভেদে তাদের শাখাগুলোকে কয়েকটি জোনে ভাগ করেছে। এক্ষেত্রে এক জোন থেকে অন্য জোনে লেনদেনের ক্ষেত্রে সার্ভিস চার্জ আদায় করা হয়। কোনো কোনো ব্যাংক পুরো ঢাকা শহরটাকেই একটি জোনে কেউবা আবার একাধিক জোনে ভাগ করেছে।
    
এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি শীর্ষস্থানীয় বেসরকারি ব্যাংকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বাংলানিউজকে বলেন, ‘বেসরকারি ব্যাংকগুলো বর্তমানে গ্রাহকদের উন্নত সেবা দিচ্ছে। অনলাইনে ব্যাংকের যে কোনো শাখা থেকে যে কোনো সময় টাকা তোলা যাচ্ছে। এজন্য ব্যাংকগুলোতে আধুনিক প্রযুক্তির সমাবেশ ঘটাতে হয়েছে। এতে ব্যাংকের ব্যয় বেড়েছে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই সার্ভিস চার্জতো গ্রাহকদের কিছুটা হলেও দিতে হবে। এটা অযৌক্তিক কিছু নয়’।

এদিকে গ্রাহক সেবার বিপরীতে দেশে ব্যবসারত দেশি-বিদেশি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর আদায়যোগ্য সার্ভিস চার্জ বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে নির্দিষ্ট করে দেওয়া হলেও অনেকক্ষেত্রে তা মানা হচ্ছে না। গ্রাহকদের অজ্ঞতার সুযোগ নিয়ে বেসরকারি ও বিদেশি ব্যাংকগুলো নানা কৌশলে অতিরিক্ত সার্ভিস চার্জ আদায় করছে।  

বাংলাদেশ ব্যাংকের মতে, অধিক মুনাফা লাভের আশায় ব্যাংকগুলো উচ্চহারে সার্ভিস চার্জ আদায় করছে। অনেক ক্ষেত্রে ব্যাংক হিসাবে নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা জমা না থাকলেও এর ওপর সার্ভিস চার্জ  আদায়ের মত ঘটনাও ঘটছে।
 
এছাড়া নিয়মানুযায়ী ব্যাংকগুলো বছরে দু’বার গ্রাহকদের নিজ আর্থিক বিবরণীর হিসাব (ব্যাংক স্টেটমেন্ট) দেবে এবং এজন্য ব্যাংকগুলো কোনো সার্ভিস চার্জ নিতে পারবে না।

তবে কেউ দু’বারের বেশি আর্থিক বিবরণী নিতে চাইলে সেক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ২শ’ টাকা পর্যন্ত সার্ভিস চার্জ আদায় করা যাবে। কিন্তু দেখা গেছে কেউ কোনো প্রয়োজনে (ব্যবসা সংক্রান্ত বা আয়কর বিবরণী দাখিল করতে) কখনও বছরে মাত্র একবার আর্থিক বিবরণী নিতে চাইলেও সেজন্য উচ্চহারে সার্ভিস চার্জ আদায় করা হয়ে থাকে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩৫ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৪, ২০১০

Nagad
স্বাস্থ্য সংকট হ্রাসে ‘ডাটা বিপ্লব’
এন্ড্রু কিশোরের শেষ যাত্রায় জায়েদ খান
মাশরাফির ছোট ভাই সেজারেরও করোনা নেগেটিভ
খনন হবে সাঙ্গু-চাঁদখালী নদী, সোনাইছড়ি বেড়িবাঁধে সংস্কার
র‍্যাঙ্কিংয়েও বড় লাফ হোল্ডারের


সাহেদের যত প্রতারণা
ইউআইটিএস ও গুলশান ক্লিনিকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক
সিরাজগঞ্জে বেড়েই চলেছে যমুনার পানি, প্লাবিত নতুন এলাকা
বসুন্ধরা গ্রুপের সিনিয়র ডিএমডি বেলায়েত হোসেন আর নেই
পাটুরিয়া ঘাটে পারের অপেক্ষায় সাড়ে তিন শতাধিক যানবাহন