ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

‘মান্নান ও দানু ভাই ছিলেন কর্মী সৃষ্টির সৃজনশীল কারিগর’

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৩১ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২০
‘মান্নান ও দানু ভাই ছিলেন কর্মী সৃষ্টির সৃজনশীল কারিগর’ বক্তব্য দেন নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন

চট্টগ্রাম: নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, চট্টগ্রামের আওয়ামী রাজনীতির প্রয়াত ত্যাগী, পরীক্ষিত ও দুঃসময়ের কাণ্ডারীদের জীবনাদর্শ অনুসরণ করে দলীয় রাজনীতির পরিশুদ্ধতা অর্জন সম্ভব হলে কোনো অপশক্তি আওয়ামী লীগের অগ্রযাত্রাকে রুখতে পারবে না। আজ এ সত্যটুকু ধারণ করে দলের সব স্তরের সাংগঠনিক নেতৃত্বকে সুসংগঠিত করতে হবে এবং যেকোনো কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় তৃণমূল স্তরকে গণমানুষের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করার যোগ্যতা সম্পন্ন হতে হবে।

শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও মন্ত্রী এমএ মান্নান এবং সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী ইনামুল হক দানুর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে চকবাজার থানা আওয়ামী লীগ আয়োজিত স্মরণানুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

কাতালগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, দল ও সরকারের ভাবমূর্তি প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য যারা অজ্ঞানতা বা অসচেতনামূলকভাবে নীতিভ্রষ্ট হচ্ছে তাদের নিবৃত রাখাটা সবচেয়ে বেশি জরুরি হয়ে পড়েছে।  

নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, প্রয়াত জননেতা এমএ মান্নান ও কাজী ইনামুল হক দানু ছিলেন সৃজনশীল কর্মী সৃষ্টির কারিগর। তাঁরা কখনো রাজনীতিকে অর্থ বিত্তের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেননি। তাই তাঁরা আমাদের কাছে শুদ্ধাচারী অপাপবিদ্ধ রাজনীতিক হিসেবে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন।  

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ প্রায় এক যুগ ধরে টানা ক্ষমতাসীন। তাই কিছু সুযোগ-সন্ধানী হাইব্রিড অনুপ্রবেশ করেছে। এরা সরাসরি রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের চেয়েও বেশি বিপজ্জনক। এরা যেকোনো সময় ষড়যন্ত্রকারীদের সঙ্গে হাত মেলাতে পারে। আসন্ন চসিক নির্বাচনে মেয়র পদে নেত্রী যাঁকে নৌকা প্রতীক দিয়েছেন তিনি শুধু একজন ব্যক্তি নন, তিনি স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব বাঙালি জাতির সত্তার অস্তিত্ব রক্ষায় জন্য আমাদের অভিন্ন অবলম্বন। তাই তাকে বিজয়ী করার জন্য আমাদের সর্বশক্তি প্রয়োগ করার সময় এসেছে।  

নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও আসন্ন চসিক নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এম রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, আমাদের ঘরের বাইরের শত্রুরা তৎপর, তারা যেকোনো সময় ফণা তুলতে পারে। তবে ঘরের শত্রু বিভীষণরা সবচেয়ে বেশি ভয়ংকর। এই ঘরের শত্রু বিভীষণদের কারণে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ট্র্যাজেডি ঘটেছিল। এ ঘরের শত্রু বিভীষণরাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর আরাধ্য সোনার বাংলা বাস্তবায়নে যেন পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়াতে না পারে সে জন্য আমাদের সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে।  

চকবাজার থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাহাব উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক আনছারুল হকের সঞ্চালনায় আলোচনা করেন নগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য শফর আলী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক চন্দন ধর, উপ-প্রচার সম্পাদক শহিদুল আলম, কার্যনির্বাহী সদস্য বখতেয়ার উদ্দিন খান, নগর জাতীয় শ্রমিকলীগ নেতা আবুল হোসেন আবু, কাজী ইনামুল হক দানুর ছেলে কাজী রাজেশ ইমরান, থানা আওয়ামী লীগের কাজী মোজাম্মেল হক খোকা, মো. নাজিম উদ্দিন, কামরুল হাসান, একেএম আনিসুজ্জামান, রুমকি সেনগুপ্তা, অ্যাডভোকেট সাহেদুল আজম, কাজল প্রিয় বড়ুয়া, মো. হান্নান প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ২১২৭ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২০
এআর/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa