ঢাকা, শুক্রবার, ৭ কার্তিক ১৪২৭, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

‘বাসে ইভটিজিং করলে যাত্রীদের ভূমিকা রাখতে হবে’ 

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮২০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০
‘বাসে  ইভটিজিং করলে যাত্রীদের ভূমিকা রাখতে হবে’  বিআরটিসি এসি/ননএসি স্পেশাল সিটি বাস সার্ভিসের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন

চট্টগ্রাম: ইদানীং কিছু কিছু জায়গায় গণপরিবহনে নারীদের শ্লীলতাহানি ও ইভটিজিংয়ের ঘটনা ঘটছে উল্লেখ করে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, বাসে যাতে কোনো নারী ইভটিজিংয়ের শিকার না হয় সেজন্য প্রত্যেক যাত্রীসাধারণকে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে। মনে রাখতে হবে একজন নারী কোনো না কোনো ভাবে আমাদের আমানত।

 

এ ধরনের কোনো সমস্যা বা বিব্রতকর পরিস্থিতির জন্য সরাসরি প্রশাসকের মোবাইল ফোনে জানানোর পরামর্শও দেন তিনি।  

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে সিইপিজেড শাহেনশাহ টাওয়ার চত্বরে বিআরটিসি এসি/ননএসি স্পেশাল সিটি বাস সার্ভিসের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন সুজন।  

তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের একের পর এক উন্নয়ন কর্মযজ্ঞে বাংলাদেশের পরিবহন ব্যবস্থা অনেকটাই উন্নতি লাভ করেছে। দেশের প্রত্যন্ত এলাকাতেও পাকা রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। পরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়নের ফলে যেকোনো পণ্যসামগ্রী সহজে দেশের এক স্থান থেকে অন্য স্থানে স্থানান্তর করা যায়। নগরায়ণের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে শহরে যন্ত্রচালিত যানবাহনের সংখ্যা বেড়েছে। বাংলাদেশে পরিবহন খরচ তুলনামূলক ভাবে কমেছে।  

কাটগড় থেকে কালুরঘাট পর্যন্ত বিআরটিসি বাস সার্ভিস চালু করতে নগরবাসীর অনেকদিনের আকাঙ্ক্ষা ও প্রত্যাশা ছিল উল্লেখ করে সুজন বলেন, বিষয়টি আমি ব্যক্তিগতভাবে উপলব্ধি করে গণপরিবহণের অবর্ণনীয় দুর্ভোগ লাঘবে কিছুদিন আগে সড়ক যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রণালয়ে ডিও লেটার পাঠাই। একই সঙ্গে মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে সরাসরি আলাপ করে বিষয়টি তুলে ধরলে তিনি আমার আহ্বানে সাড়া দিয়ে অতি অল্প সময়ের মধ্যে নগরে গণপরিবহনের স্বল্পতা দূরীকরণে ১৮টি ডাবল ডেকার ও ৪টি এসি বাস দেন। এজন্য আমি মাননীয় মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ও বিআরটিসির চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানাই।  

প্রশাসক বলেন, বিআরটিসির বাস একটি রাষ্ট্রীয় সম্পত্তি। এর সঠিক সেবা প্রাপ্তি প্রত্যেক নাগরিকের অধিকার। এ অধিকার প্রাপ্তিতে ব্যাঘাত ঘটলে সংশ্লিষ্টদের অবহিত করুন। প্রতিটি বাসে একটি করে অভিযোগ বাক্স রাখতে হবে যাত্রীরা যেকোনো অভিযোগ ওই বাক্সে ফেলতে পারবে।  

উপস্থিত যাত্রীরা প্রশাসককে অভিযোগ করেন যে, বিআরটিসি’র বাস নির্দিষ্ট গন্তব্যে যাবার আগে মাঝপথে যাত্রীদের নামিয়ে দেয় এবং সিট ক্যাপাসিটির বাইরে যাত্রী পরিবহন করে।  
এ সময় প্রশাসক সাফ জানিয়ে দেন মাঝপথে যাত্রী নামানো যাবে না এবং সিট ক্যাপাসিটির বাইরে যাত্রীও পরিবহন করা যাবে না। এর ব্যতিক্রম হলে বাসচালককে তাৎক্ষণিক বাস থেকে নামিয়ে দেওয়া হবে। এ বিষয়ে উপস্থিত বিআরটিসির কর্মকর্তারাও একমত পোষণ করেন।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন এডিসি বন্দর পঙ্কজ বড়ুয়া, প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, সাবেক কাউন্সিলর জিয়াউল হক সুমন।  
এ ছাড়া বিআরটিসির মাসুদ তালুকদার, মোহাম্মদ মফিজ উদ্দিন, সিইপিজেড থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উৎপল বড়ুয়া, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইলিয়াছ, ৩৯ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ সুলতান নাসির উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের, আবদুর রহমান মিয়া, আজাদ খান অভি, স্বপন সিংহ, মুনতাসির জামিল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮১৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০
এআর/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa