বাঁশখালী পৌরসভা: মেধায় প্রথমকে বাদ দিয়ে পঞ্চমকে নিয়োগ!

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বাঁশখালী ম্যাপ

walton

চট্টগ্রাম: বাঁশখালী পৌরসভায় পাঁচটি পদের নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে পৌরসভার মেয়র শেখ সেলিমুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সহকারী কর আদায়কারী পদের পরীক্ষায় প্রথম হওয়া প্রার্থীর পরিবর্তে তিনি নিয়োগ দিয়েছেন পঞ্চম হওয়া এক নারীকে।

রোববার (২২ মার্চ) ওই নারী কর্মস্থলে যোগদান করলে বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়।

জানাজানির পর এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে অভিযোগ দায়ের করেছেন নিয়োগ বঞ্চিত হওয়া প্রার্থী নওয়াজীশ হোসাইন তানভীর।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত বছরের ৭ অক্টোবর বাঁশখালী পৌরসভার সহকারী কর আদায়কারী, সহকারী লাইসেন্স পরিদর্শক, সড়ক বাতি পরিদর্শক, জীপ চালক, অফিস সহায়ক (এমএলএসএস) ক্যাটাগরীর পাঁচটি পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।

এরমধ্যে সহকারী কর আদায়কারী পদে ২৭ জন আবেদনকারীর মধ্যে ২৩ জন প্রার্থী লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেন। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন ১৪ জন প্রার্থী। যার মধ্যে মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নেন ১৩ জন প্রার্থী।

লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা মিলিয়ে ১৩ জন প্রার্থীর মধ্যে প্রথম হন উত্তর জলদীর নওয়াজীশ হোছাইন তানভীর। তাকে নিয়োগ দিতে কার্যবিবরণী প্রস্তুত করে সুপারিশও করেন গঠিত নিয়োগ কমিটি।

যার কপি স্থানীয় সরকার বিভাগেও পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় নিয়োগ কমিটি। কিন্তু এ সুপারিশ অমান্য করে সহকারী কর আদায়কারী পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে দক্ষিণ জলদীর সুমি ধর নামে এক নারীকে।

পরীক্ষায় প্রথম হয়েও নিয়োগ বঞ্চিত হওয়া প্রার্থী নওয়াজীশ হোসাইন তানভীর বাংলানিউজকে বলেন, পরীক্ষায় ১৪ জন পাস করলেও মৌখিক পরীক্ষা দিয়েছেন ১৩ জন। লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা মিলিয়ে আমি প্রথম হই। কিন্তু আমাকে নিয়োগ না দিয়ে পঞ্চম হওয়া এক নারীকে নিয়োগ দেওয়া হয়। বিষয়টি রোববার জানতে পারি।

তিনি বলেন, পাঁচটি পদের মধ্যে নিয়োগ হলেও তিনটি পদের নিয়োগপত্র দিয়ে বাকি দুইটি পদে নিয়োগপত্র দেয়া হয়নি। আমি এ নিয়োগের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ দিয়েছি। প্রয়োজনে আদালতের দ্বারস্থ হবো।

নিয়োগ কমিটিতে জেলা প্রশাসক মনোনীত সদস্য ও বাঁশখালীর সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল বশিরুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার ফলাফল বিবেচনায় নিয়ে যিনি প্রথম হয়েছেন তাকেই নিয়োগ দিতে আমরা সুপারিশ করেছি।  মেয়র অন্য কাউকে নিয়োগ দেওয়ার বিষয়টি আমি জানি না।

নিয়োগ কমিটির সদস্য কাউন্সিলর রোজিয়া সোলতানা রুজি বাংলানিউজকে বলেন,  পরীক্ষায় প্রথম হয়েছে নওয়াজীশ হোসাইন তানভীর। আমরা সবাই তানভীরকে নিয়োগি দিতে সুপারিশ করেছিলাম। কিন্তু মেয়র পঞ্চম হওয়া এক নারীকে নিয়োগ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে মেয়রের সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি নিজের মতো করে নিয়োগ দিয়েছেন। কীভাবে বা কেনো প্রথমকে বাদ দিয়ে পঞ্চম হওয়া ব্যক্তিকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে তা তিনিই ভালো বলতে পারবেন।

অনিয়মের বিষয়ে জানতে নিয়োগ কমিটির আহ্বায়ক ও পৌরসভার মেয়র শেখ সেলিমুল হক চৌধুরীর মোবাইল ফোনে কল করা হলে তার নম্বর বন্ধ পাওয়া যায়। ক্ষুদে বার্তা পাঠানো হলেও তার পক্ষ থেকে কোনো সাড়া মেলেনি।

বাংলাদেশ সময়: ২২৪০ ঘণ্টা, মার্চ ২২, ২০২০
এমআর/এসকে/টিসি

জেনারেল হাসপাতাল পরিদর্শনে নওফেল
কমলনগরে বাড়ি গিয়ে ত্রাণ দিচ্ছেন চেয়ারম্যান-ইউএনও
গুজব ছড়ানোয় রাজশাহীতে ২৩ জনের জরিমানা
মারা গেলেন করোনা সন্দেহে ঢাকায় পাঠানো সেই ব্যক্তি 
ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে ডোর টু ডোর যাচ্ছেন মেয়র নাছির


কুমিল্লায় সচেতনতামূলক ভিডিও প্রচার-খাদ্য বিতরণ সেনাবাহিনীর
রামজান উপলক্ষে বুধবার থেকে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু
চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীদের যাতায়াতের ব্যবস্থা করবে সিএমপি
করোনা: পোল্ট্রি শিল্পে ক্ষতি ১১৫০ কোটি টাকা
 কবি হাসান হাফিজুর রহমানের প্রয়াণ