php glass

চট্টগ্রামে ভারি বর্ষণ, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: সোহেল সরওয়ার

walton

চট্টগ্রাম: নগরে দুই ঘণ্টার ভারি বর্ষণ ও জোয়ারের পানিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। অধিকাংশ রাস্তাঘাট হাঁটু থেকে কোমর পানিতে ডুবে যায়। বাড়িঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পানি ঢুকার কারণে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ও ব্যবসা-বাণিজ্য অনেকটা বিপর্যস্ত হয়েছে।

বিশেষ করে শিক্ষার্থী ও অফিসগামী নাগরিকদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে অনেক বেশি। এদিকে বৃষ্টির পানির পাশাপাশি জোয়ারের পানিতে নগরের প্রবর্তক মোড়, দুই নম্বর গেট, আগ্রাবাদ, হালিশহরসহ বিভিন্ন এলাকা ডুবে গেছে।

ছবি: সোহেল সরওয়ারমৌসুমী নিম্নচাপের প্রভাবে আরও কয়েকদিন ঝড়ো হাওয়াসহ ভারি বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিস। একই সঙ্গে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরসমূহকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এতে চট্টগ্রামের পাহাড়ি এলাকায় কোথাও কোথাও ভূমিধসের আশঙ্কা করেছেন আবহাওয়াবিদরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বহদ্দারহাট, চকবাজার, কাপাসগোলা, বাদুরতলা, মুরাদপুর, জিইসি মোড়, ঝাউতলা, আগ্রাবাদ, পাথরঘাটা, আসাদগঞ্জ, চাক্তাই, ডিসি রোড ও বাকলিয়ায় পানি ওঠায় এলাকার জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে।

ছবি: সোহেল সরওয়ারচকবাজার বাদুরতলা এলাকার বাসিন্দা আবুল কাশেম বাংলানিউজকে বলেন, দুই ঘণ্টার বৃষ্টিতে বাসায় পানি ঢুকে গেছে। ছেলে-মেয়েরাও স্কুলে যেতে পারেনি। এ দুর্ভোগ থেকে কবে মুক্তি হবো আমরা?

ছবি: সোহেল সরওয়ারএদিকে ভারি বৃষ্টিতে শ্রমজীবী ও খেটে খাওয়া মানুষ সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়েন। এছাড়া নগরের বিভিন্ন সড়কে জলাবদ্ধতা হওয়ায় যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটেছে। এতে সৃষ্ট যানজটে সাধারণ মানুষকে ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে।

 বাংলাদেশ সময়: ১৬২৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯

জেইউ/টিসি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: চট্টগ্রাম
এতিম সাজিয়ে দম্পতির কাছে চুরি করা শিশু বিক্রি
পাকুন্দিয়ায় প্রিমিয়ার ক্লাব ফুটবলের ফাইনাল অনুষ্ঠিত
করফাঁকির অভিযোগে ৫৫০০ কেজি তামাক জব্দ
শিপিং রিপোর্টার্স ফোরামের নতুন কমিটি
কেরানীগঞ্জে উদ্ধার কদমতলীর অপহৃত নারী, আটক ১


বেনাপোল কাস্টমসে নিয়োগ পরীক্ষার্থীদের ভোগান্তি 
জ্যাঠা শ্বশুরের বিরুদ্ধে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ
শ্রীমঙ্গলে ক্রেতা সেজে দুটি ডাহুক উদ্ধার
গোলাপি বলের প্রথম দিনে ‘ব্যর্থ’ বাংলাদেশ
৪১ বছরে ইবি, শিক্ষার্থী ৩০০ থেকে ১৪ হাজার