php glass

আমরা বেঁধেছি কাশের গুচ্ছ…

সোহেল সরওয়ার, সিনিয়র ফটো করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

...

walton

চট্টগ্রাম: আকাশে নীলের আধিক্য আর সাদা মেঘের শুভ্রতাই বলে দিচ্ছে বর্ষাকে বিদায় দিয়ে শরৎ হাজির। প্রকৃতির এ নিয়মের কোনও ব্যতিক্রম নেই।

শরৎ মানেই কাশফুল, পরিষ্কার নীল আকাশ আর দিগন্তজোড়া সবুজের সমারোহ। বাংলার সবুজ-শ্যামল প্রকৃতিতে শরতের আগমন মুগ্ধ করে আমাদের। এজন্যই শরৎ হয়েছে ‘ঋতুর রানি’।

...প্রকৃতির নিয়ম অনুযায়ী নগরের অনন্যা আবাসিক এলাকার আশপাশের কাশবনগুলো জেগে উঠছে। ইট-কাঠের শহরের মাঝে এই নীল-সাদার খেলা উপভোগ করে প্রকৃতিপ্রেমী মানুষ। প্রিয়জনের হাত ধরে তারা ঘুরছে কাশবনের মাঝে, নীল-সাদার হাতছানিকে সাক্ষী রেখে।

...শরৎ নিয়ে কবিতা, গান, গল্পের কমতি নেই। সাহিত্যে প্রসঙ্গক্রমে এসেছে শরতের কাশফুল। ভালোবাসা বিনিময়ে কাশফুলের ভূমিকাও কম নয়। গ্রাম বাংলার নদীর কূলে, বিলজুড়ে, খালের পাড়ে কাশফুলের ছড়াছড়ি শুধু চোখেই পড়তো না, মনও কেড়ে নিতো নিমিষেই।

...কাশফুল একান্তই আমাদের নিজস্ব ফুল, জন্ম এ উপমহাদেশেই। ভারত, নেপাল, ভুটান, আফ্রিকা প্রভৃতি দেশেও কাশফুল ফোটে। তবে ফুল হিসেবে কাশফুলের কোনও কদর নেই, কেউ তা চাষও করে না। নদীর চরে বা তীরে, জলাডোবার ধারে ঘাসের মতো আপনা আপনি জন্মে এই ফুল। ঘাসগোত্রীয় এই গাছের উদ্ভিদতাত্ত্বিক নাম Saccharum spontaneum ও পরিবার Poaceae.

...সবুজ চিরলপাতার ফাঁকে ফাঁকে দেখা দেয় কাশফুল। নরম পালকের ন্যায় ধবধবে সাদা কাশফুল পাতার ফাঁকে ফাঁকে বাতাসের দোলায় নুইয়ে পড়ে। কখনও দূর থেকে দূরে বাতাসে ভর করে উড়ে বেড়ায় ফুলের পালক।

...রুক্ষ, চরাঞ্চল এলাকাতে অথবা পাহাড়ের ঢালে দেখা যায় কাশফুল। অন্যদিকে নদীর কাছেই কাশফুলের বেড়ে ওঠার জন্য সবচেয়ে উপযোগী স্থান। নদীর পাড়ে জমে থাকা পলিমাটিতে খুব সহজে বেড়ে ওঠে কাশফুলের গাছ।

...কাশফুলের আছে আরও একটি প্রজাতি। এ প্রজাতিটিকে বলা হয় কুশ। এরা দেখতে কাশফুলের মতোই। এই আলাদা বৈচিত্র্যতার জন্য শরতের নীল আকাশে শুভ্র কাশফুলের ছোঁয়া প্রকৃতিপ্রেমীদের কাছে কাশফুলকে করে তুলেছে অনন্য। শরৎ এলে বাংলা এক অমল শোভায় জাগ্রত হয়। সাদা-সবুজ শাড়ি পড়ে প্রকৃতি উদ্ভাসিত হয় দুনিয়ার আঙিনায়। কাশবনে শিশুদের উচ্ছ্বাস দেখে প্রবীণরাও ভাসেন স্মৃতিকাতরতায়।

...যত দূরই হোক না কেন, খোলা আকাশের নিচে বা ইট দেয়ালে অবগুণ্ঠন হোক না কেন, গাঁও বা নগর যা-ই হোক না কেন, এই প্রকৃতি টোকা দেয় দেবীর আঙুলে। তাই যুগ যুগ ধরে কবিতায় কিংবা নারী নিজেকে শরতের শুভ্রতায় নিজেকে সাজিয়ে তুলতে চেয়েছে প্রিয় মানুষের কাছে। কবিগুরু লিখেছিলেন: ‘আমরা  বেঁধেছি কাশের গুচ্ছ, আমরা গেঁথেছি শেফালিমালা। নবীন ধানের মঞ্জরী দিয়ে সাজিয়ে এনেছি ডালা’।

বাংলাদেশ সময়: ১০০০ ঘণ্টা, আগস্ট ৩০, ২০১৯
এসএস/এসি/টিসি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: চট্টগ্রাম
বিএবির প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত
খা‌লেদার অবমাননা মামলার অ‌ভি‌যোগ গঠন শুনা‌নি ৪ ডিসেম্বর
মহেশপুরে অস্ত্রসহ ডাকাত আটক
ডিএসইর সূচক বাড়লেও কমেছে সিএসইতে
মাঠে সতীর্থকে মেরে বড় শাস্তির মুখে শাহাদাত


দীপন হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ পিছিয়ে ১ ডিসেম্বর
নতুন বিয়ে, জরুরি ঘর আর অফিস ব্যালেন্স 
বন্দুকযুদ্ধে ‘আইজ্জা ডাকাত’ নিহত
‘রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানো যাবে, কিন্তু রাতারাতি সম্ভব নয়’
২ ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে পেঁয়াজ কিনলেন সিসিক মেয়র