php glass

ঢাকার আদলে বইমেলা হবে চট্টগ্রামে: মেয়র নাছির

তপন চক্রবর্তী, ব্যুরো এডিটর | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

walton

চট্টগ্রাম: ঢাকা বইমেলার আদলে চট্টগ্রামেও বইমেলা করার কথা জানিয়েছেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। বুধবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বাংলানিউজের সঙ্গে আলাপচারিতায় মেয়র এ কথা জানান।

আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, বইমেলা বাঙালির প্রাণের মেলা। বইমেলা থেকেই পাঠক পছন্দসই বই কিনেন। বইমেলাকে উপলক্ষ করে লেখক বই লেখেন। প্রকাশক বই প্রকাশ করেন। সর্বোপরি সহিত্যপ্রেমী মানুষের মিলনমেলা ঘটে বইমেলায়। যার কারণে বইমেলা মানুষের মনে বাড়তি আবেদন সৃষ্টি করে।

তিনি বলেন, করপোরেশনের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছি ২০১৫ সালের ২৬ জুলাই। দায়িত্ব গ্রহণ করার পর দেখি ফেব্রুয়ারি এলেই চট্টগ্রামে ছোট ছোট অনেক বইমেলা হচ্ছে। কিন্তু একুশে বইমেলার নামে একাধিক বই মেলার এসব আয়োজন ছিলো অনেকটা দায়সারা রকমের। একটা রুটিন ওয়ার্কের মতো।

মেয়র বলেন, এসব বইমেলায় প্রাণ ছিলো না। পাঠকেরও খুব বেশি উপস্থিতি লক্ষ করা যায়নি। বইমেলা উপলক্ষে কোনো লেখক নতুন বই লিখতেন না। প্রকাশকও নতুন বই প্রকাশ করতেন না। তখনই ভাবনায় আসে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করে চট্টগ্রামে একটি মাত্র বইমেলা আয়োজনের। ঢাকার আদলে চট্টগ্রামেও বইমেলা আয়োজন করার।

আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, ২০১৮ সালে বইমেলা আয়োজন করার সময় গতানুগতিক ধারার বইমেলা থেকে বেরিয়ে এসে ভিন্ন কিছু করার উদ্যোগ নিই। বইমেলা আয়োজন করার আগে চট্টগ্রামের সাহিত্য ও সংস্কৃতি অঙ্গনের বিভিন্ন ব্যক্তির সঙ্গে পরামর্শ করি। তাদের সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় গতবারের আয়োজনটা আগের আয়োজনগুলোর চেয়ে তুলনামূলক ভালো হয়।

তিনি বলেন, এবার বইমেলা শুরুর অনকে আগে থেকেই চট্টগ্রামের সাহিত্যিক, প্রকাশক, বুদ্ধিজীবী, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বের সঙ্গে কথা বলি। ঢাকার আদলে চট্টগ্রামেও বইমেলা আয়োজনের পরিকল্পনা ও ইচ্ছের কথা জানাই। প্রত্যেকে খুশি মনে এগিয়ে এসেছেন। সবাই তাদের পরামর্শ ও আইডিয়া দিয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন।

মেয়র বলেন, আমাদের এ উদ্যোগের সঙ্গে যারাই সম্পৃক্ত হতে চাইবেন, তাদেরকেই আমরা স্বাগত জানাবো। সুতরাং সবার প্রতি আমাদের আহ্বান থাকবে, বইমেলায় আসুন। আপনার ক্রিয়েটিভ কোনো আইডিয়া থাকলে আমাদের শেয়ার করুন। আমরা গ্রহণ করবো।

‘আমাদের সঙ্গে কারও কোনো দ্বি-মত নেই। সবাইকে নিয়েই আমরা পথচলতে চাই। বইমেলাটা সফল করতে চাই। কারণ এর সঙ্গে চট্টগ্রামের সুনাম, সম্মান জড়িত।’ যোগ করেন তিনি।

আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, এবারের বইমেলায় শুধু চট্টগ্রাম থেকে নয়, ঢাকা থেকেও আমাদের অনেক লেখক-প্রকাশক অংশ নেবেন। বিশেষ বিশেষ দিবসকে কেন্দ্র করে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন থাকবে। সহিত্য জগতের কিংবদন্তিদের এনে সাহিত্য আড্ডার আয়োজন করা হবে। সব মিলিয়ে একটি প্রাণবন্ত এবং জমজমাট বইমেলার আয়োজন নিয়ে আমরা আশাবাদী।

প্রসঙ্গত নগরের এমএ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেশিয়াম মাঠে ১০ ফেব্রুয়ারি বইমেলা শুরু হবে। মেলা চলবে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। প্রতি বছর একই সময়ে একই স্থানে বইমেলা আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিটি করপোরেশন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩৫ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০৬, ২০১৯
টিসি

অচল হয়ে পড়েছে কুবির ওয়েবসাইট, ভোগান্তিতে ভর্তিচ্ছুরা
এবার সেরা করদাতা তাহসান-শাকিব, মাশরাফি-মমতাজ
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের রাশিয়া সফরের ৮৯ তম বার্ষিকী উদযাপন
শিক্ষার্থীদের দিয়ে ইট তোলানো সেই প্রধানশিক্ষক বরখাস্ত
মিয়ানমারের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ তদন্তে আইসিসির অনুমোদন


উল্লাপাড়ায় ৮ বগি লাইনচ্যুত: চিহ্নিত হয়নি রেল দুর্ঘটনার কারণ
‘স্তালিন’ দেখে মুগ্ধ দর্শক
ফোকফেস্ট: প্রথম দিন দর্শক ছিল কানায় কানায় পূর্ণ
ক্যালিফোর্নিয়ায় স্কুলে বন্দুকধারীর হামলা, নিহত ১
কংক্রিটের শহরে ছড়িয়ে পড়লো লোকগানের সুর