‘পাঁচ বছর বাঁচিলে আবার ভোট দিয়ুম’

আল রাহমান, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ভোট দিতে এসেছিলেন বৃদ্ধ আহমদ ছফা।

পটিয়া-রাউজান থেকে ফিরে: কিশোর নাতির কাঁধে ভর দিয়ে আহমদ ছফা (৯০) কেন্দ্রে পৌঁছেন সকাল সাড়ে আটটায়। পটিয়া (চট্টগ্রাম-১২) আসনের আল্লাই ওখারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে তখন পুরুষ ভোটারদের দীর্ঘ লাইন।

বৃদ্ধের চোখে বিস্ময় দেখে এগিয়ে এলেন পুলিশের একজন সদস্য। নিজেই পৌঁছে দিলেন বুথের সামনে। ৫ মিনিটের মধ্যে ভোট দিয়ে ফিরলেন তিনি।

চট্টগ্রামের ভাষায় বাংলানিউজকে বললেন, ‘পাঁচ বছর বাঁচিলে আবার ভোট দিয়ুম। শরীলের অবস্থা খারাপ। হাতও ভাঙা। নঅ বাঁচিলে ইবা শেষ ভোট।’

ভোট দিতে এসেছিলেন বৃদ্ধ আহমদ ছফা।চার ছেলে, চার মেয়ের বাবা আহমদ ছফা বলেন, রাস্তাঘাটসহ দেশের অনেক উন্নতি হয়েছে। এটা অকল্পনীয়।

একই আসনে পটিয়া পৌরসভার কাগজীপাড়ার ভোটার হাবিবুর রহমান (৮৫), হোসেন আহমদ (৮০), মফজল আহমদ (৮৫) নিজের ভোট নিজে দিতে পারায় খুশি হয়েছেন বলে জানালেন।

লড়িহরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটার মোস্তফা বেগম (৬৫)। সাড়ে নয়টায় ভোট দেন তিনি। প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে বলেন, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট দিয়েছি। লাইন ছোট ছিল। বেলা বাড়লে লম্বা লাইনে দাঁড়াতে হবে ভেবে সকালেই চলে এসেছি।

রাউজান (চট্টগ্রাম-৬) নোয়াপাড়া কলেজ কেন্দ্রে ভোট দিতে আসেন পশ্চিম নোয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা ঊষা রানী চক্রবর্তী (৬৬)। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, ৩৯ বছর ভোট গ্রহণ করেছি। এবার ভোট দিতে এসে এক ঘণ্টা লাইনে দাঁড়াতে হলো। খুব খুশি লাগছে।

কর্ণফুলী উপজেলার (চট্টগ্রাম-১৩) এজে চৌধুরী বহুমুখী কৃষি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের পুরুষ ভোটারের দুইটি লাইনে কয়েকশ’ করে ভোটার। কিন্তু সবার আগে দাঁড়িয়েছেন শাহ আলম (৬৩)।

তিনি বাংলানিউজকে বলেন, সাড়ে সাতটায় তীব্র শীত উপেক্ষা করে কেন্দ্রে এলাম। শারীরিক অবস্থা দুর্বল দেখে অন্যরা সবার আগে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। এতে নিজে সম্মানিত বোধ করছি। প্রবীণরা এ সম্মানটুকুই চায়।

হাটহাজারীর (চট্টগ্রাম-৫) কুলগাঁও সিটি করপোরেশন কলেজ কেন্দ্রে ভোট দেন মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন।

তিনি বাংলানিউজকে বলেন, সাতসকালে এসে ভোট দিয়েছি। এখন এসেছি উৎসব দেখতে। হাজারো মানুষের লাইন। তরুণ ভোটারদের উৎসাহ দেখে নিজেরও খুশি লাগছে।

চট্টগ্রাম-৮ আসনের পশ্চিম মোহরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন মুক্তিযোদ্ধা মো. আবু তাহের মিয়া (৭২)। তিনি বলেন, সুশৃঙ্খল পরিবেশে ভোট দিতে পেরেছি এটা অনেক বড় পাওয়া।

বাংলাদেশ সময়: ১৩২০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৮
এআর/এসি/টিসি

মেসির হ্যাটট্রিকে বার্সার জয়
ডিজিটাল কেওয়াইসি চালু করলো নগদ
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে দুই ডাকটিকিট
চকবাজারে ফের আগুন আতঙ্ক, ছোটাছুটিতে আহত ৭
চকবাজার ট্র্যাজেডি: কারণ অনুসন্ধানে আইইবি’র কমিটি


‘সংস্কৃতিচর্চা জাতিকে অশুভ শক্তি থেকে বিরত রাখে’ 
শেষ ছুটির দিনে প্রাণবন্ত বইমেলা
উত্তরায় বাসের ধাক্কায় কিশোরের মৃত্যু
চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আব্বাস, সম্পাদক ফরিদ
‘ঢাকাকে সুন্দর-আধুনিক শহরে পরিণত করবো’