৭২৫ ইভিএমে কোতোয়ালীর ভোট

সিফায়াত উল্লাহ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ইভিএম মেশিন।

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম-৯ কোতোয়ালী আসনে ৭২৫টি ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট গ্রহণ করা হবে। ইতোমধ্যে জেলা নির্বাচন অফিস সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে।

php glass

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মুনীর হোসাইন খান বাংলানিউজকে বলেন, নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কোতোয়ালী আসনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। এজন্য সংশ্লিষ্ট নির্বাচন কমকর্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

কোতোয়ালী আসনের ১৪৪টি কেন্দ্রে বুথ রয়েছে ৭২৫টি। প্রত্যেক বুথে একটি করে ইভিএম মেশিন বসানো হবে বলে জানান জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, ‘ভোট গ্রহণের জন্য তালিকাভুক্ত কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ শুরু হবে ১৪ ডিসেম্বর থেকে। এ সময়ের মধ্যে কোতোয়ালী আসনের কর্মকর্তাদের ইভিএমে ভোটগ্রহণের ওপর প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।’

কোতোয়ালী আসনটি চট্টগ্রামের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আসন হিসেবে ধরা হয়। শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এ আসনের ভোটারদের মাঝেও ইভিএম নিয়ে আগ্রহ আছে।

এই আসনের ভোটার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মিজানুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, জাতীয় নির্বাচনে প্রথমবারের মতো ইভিএম ব্যবহার হচ্ছে। চট্টগ্রামের মধ্যে কোতোয়ালী আসনেও ব্যবহার হবে ইভিএম। জীবনের প্রথম ভোটটি ইভিএমে দিতে পারবো-ভেবে ভালোই লাগছে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লড়তে কোতোয়ালী আসন থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও স্বতন্ত্র ১২ জন প্রার্থী। রোববার (২ ডিসেম্বর) মনোনয়ন যাচাই-বাছাইয়ে বিএনপির মোহাম্মদ সামশুল আলমসহ ৩ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে।

এ আসনে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে মহাজোট থেকে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ও ঐক্যফ্রন্ট থেকে মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন নির্বাচন করবেন।

এর আগে ২০১০ সালের জুন মাসে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কোতোয়ালীর জামালখান ওয়ার্ডে স্বল্প পরিসরে ইভিএম ব্যবহার করা হয়েছিল।

যেভাবে ভোট দিবেন ইভিএমে

ভোটার বুথে যাওয়ার পর পোলিং কর্মকর্তা প্রথমে আঙুলের ছাপ, ভোটার নম্বর, জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর বা স্মার্ট পরিচয়পত্র ব্যবহার করে ভোটারকে শনাক্ত করবেন। এরপর ডাটাবেজে ভোটার বৈধ হিসেবে শনাক্ত হলেই প্রজেক্টরের ডিসপ্লেতে সেটি দেখা যাবে।

পরবর্তীতে একটি টোকেন ভোটারকে দেওয়া হবে। ভোটার টোকেন নিয়ে সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তার কাছে যাবেন। টোকেন দেখে স্ক্যানারের মাধ্যমে শনাক্ত করে ব্যালট ইস্যু করে দিবেন সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা।

এরপর ভোটার গোপনকক্ষে গিয়ে পছন্দের প্রার্থী ও প্রতীক দেখে বাম দিকে বোতামে চাপ দিয়ে সিলেক্ট করে ব্যালট ইউনিটের সবুজ রঙের কনফার্ম বোতাম চেপে তার ভোট শেষ করবেন।

ভুল প্রতীক সিলেক্ট হয়ে গেলে, ব্যালট ইউনিটের লাল রঙের ক্যান্সেল বোতাম চেপে পরবর্তীতে সঠিক প্রতীক সিলেক্ট করতে পারবেন ভোটার। তবে এ সুযোগ দুবারের বেশি পাওয়া যাবে না।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৪৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩, ২০১৮
এসইউ/এসি/টিসি

সুলেখকের সম্পাদনায় আগ্রহ একাডেমির বইয়ে
নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী
শেখ হাসিনার সদস্যপদ নিয়ে সিদ্ধান্ত ডাকসুর পরবর্তী সভায়
আ’লীগ ভিন্নমত সহ্য করতে পারে না: ফখরুল
আইসক্রিম তৈরির উপকরণ পামওয়েল-ঘনচিনি ও রং!


গাজীপুরে বাসচাপায় কলেজছাত্র নিহত
দেশে ইলিশ উৎপাদন বেড়েছে ৭৮ শতাংশ
নিউজিল্যান্ডের জাতীয় প্রতীকে মুসল্লি, ছবি ভাইরাল
ফরিদগঞ্জে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু
৫ বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বকে সম্মাননা দিলো বাংলাদেশ প্রতিদিন