কবরে দিচ্ছে ফুল, সঙ্গে অশ্রুও

নিউজরুম এডিটর | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মহিউদ্দিন চৌধুরীর কবরে ফুলেল শ্রদ্ধা। ছবি: সংগৃহীত

চট্টগ্রাম: নগরের চশমা হিলের বাড়িতে এই দিনটাতে জমতো ফুলের পাহাড়। নেতা-কর্মীদের ভীড়ে পুরো এলাকা সরগরম থাকতো সকাল থেকে রাত অবধি।

চট্টলবীর এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর ৭৪তম জন্মবার্ষিকী শনিবার (১ ডিসেম্বর)। প্রিয় নেতার প্রতি ভালোবাসার টানে আজও মানুষ যাচ্ছে তার বাসভবনে। কবরে দিচ্ছে ফুল, সঙ্গে অশ্রুও।

সকাল ১০টা থেকে মরহুমের কবরে কোরআন খতম, খতমে খাজেগান, খতমে গাউসিয়া, কবর জেয়ারত, দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে যোগ দেন পরিবারের সদস্যসহ নেতা-কর্মী এবং শুভানুধ্যায়ীরা। বাদ জোহর থেকে এতিম ও অসহায় মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়। 

শেখ ফরিদ চশমা মসজিদ অঙ্গনে মরহুমের কবরে ফাতেহা পাঠ ও কোরানখানিতে রাজনীতিক, নাগরিক, পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সহ সর্বস্তরের মানুষ শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন।

 মহিউদ্দিন চৌধুরীর জন্মদিনে বাসভবনে মিলাদ মাহফিলএ সময় উপস্থিত ছিলেন শফিক আদনান, শফিকুল ইসলাম ফারুক, অ্যাড. ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী,  জহুর আহমদ, আবু তাহের, মো. হোসেন, সংসদ সদস্য এম এ লতিফ, কাউন্সিলর জহরলাল হাজারী, আবুল মনসুর, সৈয়দ আমিনুল হক, মো. ইয়াকুব, পেয়ার মোহাম্মদ, কাউন্সিলর মো. হোসেন হীরন, মামুনুর রশিদ মামুন, জাহাঙ্গীর চৌধুরী, সাহাব উদ্দিন আহমেদ, আনসারুল হক, মো. ইলিয়াছ, কাজী মাহবুবুর হক চৌধুরী এটলী, মহিউদ্দিন বাচ্চু, ফরিদ মাহমুদ, আতিকুর রহমান আতিক, আবদুর রহমান, মোজাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, শেখ সরওয়ার্দী, সিরাজুল ইসলাম, সলিমউল্লাহ বাচ্চু প্রমুখ। দুপুরে মরহুমের চশমা হিলের বাসভবনে মিলাদ মাহফিল পরিচালনা করেন মাওলানা হারুনুর রশিদ। 

১৯৪৪ সালের ১ ডিসেম্বর রাউজানের গহিরা গ্রামে সমভ্রান্ত বক্স আলী চৌধুরী পরিবারে জন্ম নেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। বাবা রেল কর্মকর্তা হোসেন আহমদ চৌধুরী এবং মা বেদুরা বেগম।

ছাত্রাবস্থাতেই রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন মহিউদ্দিন চৌধুরী। ১৯৬২ সালে এসএসসি, ১৯৬৫ সালে এইচএসসি এবং ১৯৬৭ সালে ডিগ্রি পাস করেন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে এবং পরে আইন কলেজে ভর্তি হলেও ছাত্র আন্দোলনে জড়িয়ে শেষ করতে পারেন নি লেখাপড়া।

জনতার ভালোবাসায় সিক্ত মহিউদ্দিন চৌধুরী। ফাইল ছবিআত্মজীবনীমূলক বই সূত্রে জানা যায়, ১৯৬৮ ও ১৯৬৯ সালে নগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। ১৯৭১ সালে ‘জয় বাংলা’ বাহিনী গঠন করেন। সেই সময় পাকিস্তানি সেনাদের হাতে গ্রেফতার হন। পরে পাগলের অভিনয় করে কারাগার থেকে ছাড়া পেয়ে ভারতে পালিয়ে যান। সেখানে উত্তর প্রদেশের তান্ডুয়া সামরিক ক্যাম্পে প্রশিক্ষণরত মুক্তিযোদ্ধাদের একটি স্কোয়াডের কমান্ডার নিযুক্ত হন।

মহিউদ্দিন চৌধুরী যুবলীগের নগর কমিটির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন। এরপর শ্রমিক রাজনীতিতে যুক্ত হন। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিশোধ নিতে মৌলভী সৈয়দের নেতৃত্বে গঠন করেন ‘মুজিব বাহিনী’। ওই সময় ‘চট্টগ্রাম ষড়যন্ত্র মামলা’র আসামি করা হলে তিনি  কলকাতায় চলে যান। ১৯৭৮ সালে দেশে ফেরেন।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন প্রায় দুই যুগ। ২০০৬ সালের ২৭ জুন নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি হন। এ দায়িত্ব নিয়ে বহাল ছিলেন আমৃত্যু। একটানা ৩ বার প্রায় ১৭ বছর চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র ছিলেন এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী।

বিশেষ মুহূর্তে মহিউদ্দিন চৌধুরীকে মিষ্টি খাইয়ে দেন আ জ ম নাছির উদ্দীন। ফাইল ছবি১৯৯৪ সালে প্রথমবার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে প্রার্থী হয়েই বিজয়ী হন। ২০০০ সালে দ্বিতীয় দফায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এবং ২০০৫ সালে তৃতীয় দফায় মেয়র নির্বাচিত হন তিনি।

দল ও দেশের প্রতি তার আত্মত্যাগের স্বীকৃতিস্বরূপ ছেলে ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল পেয়েছেন দলের কেন্দ্রীয় পদ।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার  নওফেল চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালী-বাকলিয়া) আসনে এবার নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করছেন।

মহিউদ্দিন চৌধুরীর জন্মদিনে আজও অনেকে এসেছেন। কেউ কেঁদেছেন আবার কেউ নীরবে কবরের পাশে ছিলেন দাঁড়িয়ে।

“টিল ডেথ, আই উইল ডু ফর দ্য পিপল অব চিটাগং” বলেছিলেন মহিউদ্দিন চৌধুরী, তার সর্বশেষ পালন করা জন্মদিনে সবার উদ্দেশ্যে। কিন্তু আজ প্রিয় মানুষটির সান্নিধ্য পাওয়া হলো না।

আগের রাত ১২টার পর কেক কাটা হয়নি, প্রিয় নেতা মুখে তুলে দেননি মিষ্টি। হঠাৎ ধমকও দিলো না কেউ। তাতে কি, নেতা হারিয়ে যাননি। তিনি যে বীর মহিউদ্দিন, বীরের মতোই বেঁচে আছেন সবার অন্তরে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১, ২০১৮
এসি/টিসি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: চট্টগ্রাম
ভিয়েতনাম মিশনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন 
ময়মনসিংহে ডিবির সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদকবিক্রেতা নিহত
চকবাজারে এখনও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যদের সতর্ক অবস্থান
টিভি ব্যক্তিত্ব স্টিভ আরউইনের জন্ম
চকবাজার ট্র্যাজিডি তদন্তে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কমিটি


চকবাজার ট্র্যাজিডিতে যুক্তরাষ্ট্রের শোক       
ফেরত এলো ভারতে পাচার ২৭ নারী-শিশু
চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনের শোক
অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেন ড. কামাল
পুরান ঢাকায় হয় কারখানা থাকবে নয় বাড়িঘর