দীর্ঘ অপেক্ষার পর একটি ফরম

813 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: সোহেল সরওয়ার/বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
স্কুলে ভর্তির ফরম দেয়া হবে সকাল ৮টা থেকে। কিন্তু ফরমের জন্য আগেরদিন দুপুর ১২টা থেকেই স্ক‍ুলের সামনে অভিভাবদের লম্বা লাইন। পরের দিন ভোরে লাইন গিয়ে গড়ায় স্কুলের সামনে থেকে নগরীর গণি বেকারির পেট্রোল পাম্প পর্যন্ত।

চট্টগ্রাম: স্কুলে ভর্তির ফরম দেয়া হবে সকাল ৮টা থেকে। কিন্তু ফরমের জন্য আগেরদিন দুপুর ১২টা থেকেই স্ক‍ুলের সামনে অভিভাবদের লম্বা লাইন। পরের দিন ভোরে লাইন গিয়ে গড়ায় স্কুলের সামনে থেকে নগরীর গণি বেকারির পেট্রোল পাম্প পর্যন্ত।

প্রতিবছর এমন চিত্র দেখা যায় চট্টগ্রামের শিশু বিদ্যাপীঠ সেন্ট মেরিস স্কুলের ভর্তি ফরম বিক্রির সময়। এ বছরও তার ব্যতিক্রম হয়নি।
 
শুক্রবার সকালে সেন্ট মেরিস স্কুলের সামনে গিয়ে দেখা গেছে ভর্তিচ্ছু শিশুদের অভিভাবকের দীর্ঘ লাইন।  অভিভাবকরা জানান, আগেরদিন বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে তারা লাইন ধরেছেন শুধু মাত্র একটি ভর্তি ফরম পাওয়ার আশায়।

এ দীর্ঘ লাইনের ব্যাপারে সেন্ট মেরিস স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা সিস্টার মেরি শান্তা বাংলানিউজকে জানান, প্রতিবছরই ভর্তি ফরমের জন্য এমন দীর্ঘ লাইন হয়। এটা কেন হয় আমি জানি না। আমরাতো সবসময় বলি আরো অনেক ভালো স্কুল আছে। ওসব স্কুলে যান। অযথা এখানে দীর্ঘক্ষণ লাইন ধরারতো কোনো প্রয়োজন দেখি না।

তিনি বলেন, হয়তো আমাদের স্কুলে শিক্ষার মান ভালো, আমরা সবসময় শৃংঙ্খলা মেনে চলি তাই অভিভাবকরা শিশুদের এখানে ভর্তি করাতে চায়।

ও আর নিজাম রোড থেকে আসা ব্যাংক কর্মকর্তা আরিফ বাংলানিউজকে জানান, সেন্ট মেরিস নগরীর পুরোনো ঐতিহ্যবাহী স্কুল। তাই বাচ্চাকে এখানে ভর্তি করাতে চাই।

দীর্ঘ লাইনের ব্যাপারে তিনি বলেন, ভর্তি ফরম দেয়ার প্রক্রিয়া অনলাইনে হলে অভিভাবকদের এ ভোগান্তি কমতো।

বাকলিয়া থেকে আসা ইয়াসমিন রহমান বাংলানিউজকে জানান, এ স্কুলে পড়ালেখার পরিবেশ ভালো তাই ফরম নিতে এসেছি।
বাকলিয়া থেকে আসা শাহিন সুলতানা সুমি বাংলানিউজকে জানান, এ স্কুলটি মিশনারি দ্বারা পরিচালিত বলে এখানে শিক্ষ‍া ব্যয় অন্যান্য স্কুলের তুলনায় কম।

সেন্ট মেরিস স্কুলে শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে কেজি শ্রেণীতে ভর্তির জন্য ফরম দেয়া শুরু হয়। ফরম দেয়া হবে বিকাল ৩টা পর্যন্ত।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ শিক্ষাবর্ষে দু শিফটে তিনটি সেকশানে ৩৩০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। তবে অভিভাবকদের অনুরোধ সাপেক্ষে আসন সংখ্যা ৩৬০ থেকে ৩৯০ হতে পারে।

আগামী ২৯ ও ৩০ নভেম্বর মৌখিক এবং ১৫ ডিসেম্বর লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ৩১ ডিসেম্বর ফলাফল দেয়ার পর ২০১৫ সালের ১লা জানুয়ারি থেকে ক্লাস শুরু হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৩৪ ঘণ্টা, নভেম্বর ২১, ২০১৪

Nagad
যে গ্রামে হাতি-মানুষের যুদ্ধ
শেষ শ্রদ্ধা শেষে সিমেট্রিতে এন্ড্রু কিশোরের কফিন
বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবি: ময়ূরের দুই ইঞ্জিন ড্রাইভার গ্রেফতার
স্বাস্থ্য সংকট হ্রাসে ‘ডাটা বিপ্লব’
এন্ড্রু কিশোরের শেষ যাত্রায় জায়েদ খান


মাশরাফির ছোট ভাই সেজারেরও করোনা নেগেটিভ
খনন হবে সাঙ্গু-চাঁদখালী নদী, সোনাইছড়ি বেড়িবাঁধে সংস্কার
র‍্যাঙ্কিংয়েও বড় লাফ হোল্ডারের
সাহেদের যত প্রতারণা
ইউআইটিএস ও গুলশান ক্লিনিকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক