ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২২ জিলহজ ১৪৪১

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

বাঁশখালীর ১১ হত্যা মামলা

‘এ বিচারের ভবিষ্যৎ কি ?’

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৩১ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৮, ২০১৪
‘এ বিচারের ভবিষ্যৎ কি ?’ ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে ১১ জনকে পুড়িয়ে হত্যা মামলার চলমান বিচারে হতাশা প্রকাশ করে এজন্য এটর্ণি জেনারেলের কার্যালয়কে দায়ি করেছেন মামলার বাদি বিমল কান্তি শীল এবং হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত। মামলার বিচারে স্থবিরতা কাটাতে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন বাদি।



মঙ্গলবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে উভয়ই অভিন্ন সুরে বলেন, হাইকোর্টের আদেশে মূল আসামী আমিনুর রহমান চৌধুরী ওরফে আমিন চেয়ারম্যান বিচার প্রক্রিয়ার বাইরে আছেন। মূল আসামী যদি বিচার প্রক্রিয়ার বাইরে থাকেন, তাহলে এ বিচারের ভবিষ্যৎ কি ?

সম্পত্তি দখলের উদ্দেশ্যে ২০০৩ সালের ১৮ নভেম্বর বাঁশখালীর সাধনপুরের শীলপাড়ায় নারী, শিশুসহ ১১ জনকে পুড়িয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। জঘন্যতম এ হত্যাকাণ্ডের ১১ বছর পূর্তিতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ।

সংবাদ সম্মেলনে রানা দাশগুপ্ত আমিনুর রহমানের বিচার স্থগিত রাখার ব্যাপারে হাইকোর্টের আদেশের বিষয়টি তুলে ধরে বলেন, হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করা নিয়ে এটর্ণি জেনারেলের কার্যালয় সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করছে না। তারা যদি সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতেন তাহলে স্বজন হারানো বিমল শীলের আর্তি আমাদের শুনতে হত না।

আন্তর্জাতিক মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনালের এই প্রসিকিউটর বলেন, সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতনকারীদের দায়মুক্তি দেয়ার যে সংস্কৃতি বাংলাদেশে চালু হয়েছিল, দু:খজনক হলেও সত্য যে সেই সংস্কৃতি এখনও অব্যাহত আছে। সংখ্যালঘুদের উপর হামলাকারীরা এখনও রাষ্ট্র কিংবা রাজনীতির আশ্রয়-প্রশ্রয়ে এখনও দুর্বিনীত ভূমিকা পালন করছে। আমরা আইনের শাসন চাই, দায়মুক্তির সংস্কৃতি থেকে অব্যাহতি চাই।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বাদি বিমল শীল নৃশংস এ ঘটনার বর্ণণা দিয়ে বলেন, ১১ খুনের ঘটনার মূল নায়ক আমিনুর রহমান চৌধুরী ৮ বছর ধরে প্রভাব খাটিয়ে ঘটনার দায় থেকে নিজেকে আড়াল করেন। তিন বছর আগে তার নাম সম্পূরক অভিযোগপত্রে এলেও তিনি নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ না করে হাইকোর্ট থেকে জামিন নেন।

তিনি বলেন, এরপর চট্টগ্রামের তৃতীয় অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন মামলাটিতে যাতে তার বিচার সম্ভব না হয় সেজন্য ২০১১ সালের ডিসেম্বরে হাইকোর্ট থেকে স্থগিতাদেশও আদায় করে নিয়েছেন।

তিনি বলেন, হাইকোর্টের আদেশে আমিনুর রহমান চৌধুরীকে বাদ দিয়ে বাকি ৩৮ আসামীর বিচার চলছে। আমার প্রশ্ন, মূল আসামী যদি বিচার প্রক্রিয়ার বাইরে থাকেন, তাহলে এ বিচারের ভবিষ্যৎ কি ? বিচারের বাইরে থাকার সুযোগ নিয়ে আমিনুর রহমান চৌধুরী সাক্ষীদের শুধু প্রভাবিত নয়, ভয়ভীতি ও হুমকির মধ্যে রেখেছে যাতে সাক্ষীরা কেউ আদালতে না আসে।

রানা দাশগুপ্ত বলেন, আসামী আমিনুর রহমান চৌধুরী খুবই প্রভাবশালী। তার ভয়ে সাক্ষীরা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। আবার তিনি নিজেকেও বিচার প্রক্রিয়ার বাইরে রেখেছেন। তাহলে এ বিচারের ভবিষ্যৎ কি ?

বাদি বিমল শীল বলেন, রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী জেলা পিপি অ্যাডভোকেট আবুল হাশেম চলতি বছরের মার্চে আমিনুর রহমানের বিচারের উপর হাইকোর্টের দেয়া স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারে উদ্যোগ নেয়ার জন্য এটর্ণি জেনারেলের অফিসে আবেদন জানিয়েছিলেন। কিন্তু গত আট মাসেও এটর্ণি জেনারেলের অফিস এ ব্যাপারে কোন কার্যকর পদক্ষেপ নেননি। এ অবস্থায় আমি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

সংবাদ সম্মেলনে বাদি বিমল শীলের ভাই নির্মল কান্তি শীল, জেল‍া আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট অনুপম চক্রবর্তী, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতা প্রকৌশলী পরিমল কান্তি চৌধুরী, তাপস হোড়, অ্যাডভোকেট নিতাই প্রসাদ ঘোষ, বিজয় লক্ষ্মী দেবী উপস্থিত ছিলেন।

সাধনপুরের ঘটনায় নির্মম খুনের শিকার ব্যক্তিরা হলেন, তেজেন্দ্র লাল শীল (৭০), তার স্ত্রী বকুল বালা শীল (৬০), ছেলে অনিল কান্তি শীল (৪২) ও তার স্ত্রী স্মৃতি রাণী শীল (৩০), তাদের মেয়ে মুনিয়া শীল (৭) ও রুমি শীল (১১), চারদিন বয়সী শিশু কার্তিক শীল, তেজেন্দ্রর ছোট ভাইয়ের মেয়ে বাবুটি শীল (২৫), প্র‍সাদী শীল (১৭), অ্যানি শীল (১৫) এবং তেজেন্দ্র’র বেয়াই দেবেন্দ্র শীল (৭৫)।

ঘটনার পর থেকেই এর সঙ্গে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা আমিনুর রহমান চৌধুরী ওরফে আমিন চেয়ারম্যানের সম্পৃক্ততার অভিযোগ উঠে। আমিন চেয়ারম্যান বিএনপি সরকারের বন ও পরিবেশ প্রতিমন্ত্রী এবং বাঁশখালীর সাবেক সাংসদ জাফরুল ইসলাম চৌধুরীর চাচাত ভাই।

চাঞ্চল্যকর এ মামলায় কয়েক দফা অভিযোগপত্র দাখিল, বাদির নারাজিসহ নানা নাটকীয়তার পর ২০১২ সালের ১৯ এপ্রিল ৩৮ আসামির বিরুদ্ধে সম্পত্তি দখল করতে গিয়ে পরিকল্পিত হত্যাকান্ডের ধারায় অভিযোগ গঠন করেন আদালত। এরপর আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৪২২ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৮, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa