সামঞ্জস্য নেই খুচরা-পাইকারিতে

401 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টফোর.কম

walton
ভোগ্যপণ্যের বৃহৎ পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে রোববার ছোলা বিক্রি হয় প্রতি মণ (৩৭ দশমিক ৩২ কেজি) ১৭০০ থেকে ১৮৮০ টাকা করে। সেই হিসেবে প্রতি কেজি ছোলার পাইকারি দাম পড়ে ৪৬ থেকে ৫১ টাকা।

চট্টগ্রাম: ভোগ্যপণ্যের বৃহৎ পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে রোববার ছোলা বিক্রি হয় প্রতি মণ (৩৭ দশমিক ৩২ কেজি) ১৭০০ থেকে ১৮৮০ টাকা করে।  সেই হিসেবে প্রতি কেজি ছোলার পাইকারি দাম পড়ে ৪৬ থেকে ৫১ টাকা। 

কিন্তু  নগরীর খুচরা বাজারগুলোতে একই দিনে প্রতি কেজি ছোলা বিক্রি হয়েছে ৬৪ থেকে ৬৮ টাকায়।

শুধু ছোলা নয়। পাইকারি বাজারের সঙ্গে এ ধরনের ব্যবধান প্রায় প্রতিটি ভোগ্যপণ্যেই।  তবে সবচেয়ে বেশি পার্থক্য দেখা গেছে ছোলা, মটর, চিনি, খেসারী, আদা, রসুন ও খেজুরসহ রমজানে নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের মূল্যে।

রোববার নগরীর বৃহত্তম পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জসহ অভিজাত খুচরা বাজার কাজীরদেউড়ি, কর্ণফুলী মার্কেটসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলছেন, মূল্যের ব্যবধানের জন্য খুচরা ব্যবসায়ীরা দায়ী। তারা নামে মাত্র কমিশনে পণ্য বিক্রি করছেন। 

তবে খুচরা ব্যবসায়ীদের দাবি, পাইকারি বাজারের সঙ্গে খুচরা বাজারে দামের খুব একটা তফাৎ নেই।  পণ্যের পরিবহণসহ বিবিধ খরচ হিসাবের পর অল্প লাভেই তারা পণ্য বিক্রি করছেন।
ramadan_market
খাতুনগঞ্জের হামিদুল্লাহ মিয়া বাজারের ব্যবসায়ী মো. সেকান্দার বাংলানিউজকে জানান, রোববার পেঁয়াজের দাম কিছুটা বৃদ্ধি পেলেও ছোলা, মটর, আদাসহ অন্যান্য ভোগ্যপণ্যের দামের কোনো পরিবর্তন হয়নি।

পাইকারি ও খুচরা বাজারগুলোতে দেখা যায়, পাইকারি বাজারে খেসারী বিক্রি হয়েছে প্রতি মণ ১২০০ থেকে ১২৩০ টাকা দরে।  সেই হিসেবে প্রতি কেজি খেসারীর মূল্য প্রতি কেজি ৩২ থেকে ৩৩ টাকা।  কিন্তু প্রতি কেজি ৩৫ থেকে ৩৬ টাকা ক্রয়মূল্য দেখিয়ে বিক্রয় হয় ৩৮ থেকে ৪০ টাকা কেজি দরে।

পাইকারি বাজারে মান ভেদে প্রতি কেজি মসুর ডাল বিক্রি হয়েছে ৭৫ থেকে ৯৮ টাকা দরে।  কিন্তু খুচরা বাজারে এর মূল্য ৮৪ টাকা থেকে ১২০ টাকা।

প্রতি কেজি মটর পাইকারি বাজারে বিক্রি হয়েছে ৩৮ টাকা দরে।  তবে খুচরা বাজারে বিক্রি হয়েছে ৪৪ থেকে ৪৫ টাকা।

মায়ানমার থেকে আমদানি করা আদা ১৪০ টাকা, ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি করা আদা ১২৫ এবং চায়না থেকে আনা আদা ২১০ টাকা করে পাইকারি বাজারে বিক্রি হয়েছে।  কিন্তু খুচরা বাজারে এর মূল্য যথাক্রমে ১৫৫ টাকা, ১৪০ টাকা ও ২৪০ টাকা দরে।

একইভাবে পাইকারি বাজারে দেশি রসুন ৬০ থেকে ৬৫ টাকা ক্রয়মূল্যের বিপরীতে ৭৫ টাকা,  চায়না থেকে আমদানি করা রসুন ৮০ থেকে ৮২ টাকার পরিবর্তে ৯০ থেকে ৯৫ টাকা, এবং চিনি ৪২ টাকার  বিপরীতে ৪৬ টাকা করে বিক্রি করছেন বিক্রেতারা।

রমজানে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্যবধান পাওয়া গেছে খেজুরের মূল্যে।  পাইকারি বাজারে প্রকারভেদে খেজুরের মূল্য ছিলো ১৪০ থেকে ২০০ টাকা।  কিন্তু খুচরা বাজারে বিক্রি হয়েছে ২০০ থেকে ৩৫০ টাকা পর্যন্ত।
ramadan_market_2
সরেজমিনে দেখা যায়, পণ্যের মূল্য তালিকা টানানোর ব্যাপারে সরকারের নির্দেশনা থাকলেও অধিকাংশ দোকানি তা মানছেন না। ফলে খুচরা বাজারে ক্রেতারা পণ্যের মূল্য নিয়ে বিভ্রান্তির সম্মুখীন হচ্ছেন।

এদিকে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনগুলোর নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের অভাবেই পাইকারি ও খুচরা বাজারে মূল্যের কোনো সামঞ্জস্য নেই বলে মনে করছেন ভোক্তারা।

তাদের অভিযোগ, রমজানে মিডিয়া বান্ধব লোক দেখানো কিছু কার্যক্রম চালিয়ে দায় সারে বাজার মনিটরিংয়ে দায়িত্বরত প্রতিষ্ঠানগুলো, সত্যিকারের আন্তরিক কোনো উদ্যোগ দেখা যায় না।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. ইলিয়াস হোসেন বাংলানিউজকে জানান, রমজানে ভেজাল রোধ ও  দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের জন্য পাঁচজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের অধীনে কার্যক্রম চলছে।  তবে শুক্রবার ও শনিবার ছুটির দিন হওয়ায় এবং রোববার গুরুত্বপূর্ণ এক বৈঠকের কারণে মনিটরিং কার্যক্রম চালানো সম্ভব হয়নি।

তিনি বলেন, ‘স্থানীয় পত্রিকাগুলোতে বিজ্ঞাপন দিয়ে নগরীর বিভিন্ন অঞ্চলে দায়িত্বরত ম্যাজিস্ট্রেটদের মোবাইল নম্বর জনসাধারণের নিকট সরবরাহ করা হয়েছে।  কোনো ভোক্তা হয়রানির শিকার হলেই সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেটকে ফোনে বিষয়টি অবহিত করতে পারবেন।  এছাড়া ভেজাল রোধ ও দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে নিয়মিত অভিযান চলবে।’

বাংলাদেশ সময়: ১৯৪৩ ঘণ্টা, জুন ২৯, ২০১৪

ইবনে খালদুনের জন্ম, নেহরুর প্রয়াণ
খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন মান্না
রংপুরে মদপানে পাঁচজনের মৃত্যু
করোনায় ঢাকায় আইনজীবীর মৃত্যু
রাজধানীতে বেড়েই চলেছে করোনার সংক্রমণ


ডা. জাফরুল্লাহর জন্য ফল পাঠালেন খালেদা জিয়া
করোনায় আক্রান্ত হয়ে কাউন্সিলর মাজহারের মৃত্যু
শিবগঞ্জে বজ্রপাতে গৃহিণীর মৃত্যু
ধান মাড়াই মেশিনে চাপা পড়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু
নোবেলের বাবা মোজাফফর নান্নু করোনা আক্রান্ত