ভারি বৃষ্টি ও পাহাড় ধসের আশঙ্কা

746 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা, বরিশাল, রাজশাহী, রংপুর ও সিলেটে ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টির সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে। অতি বৃষ্টির কারণে ভূমি ধসের আশঙ্কাও করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ভূমি ধসের আশঙ্কায় বন্দরনগরীতে পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবসকারীদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম: ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা, বরিশাল, রাজশাহী, রংপুর ও সিলেটে ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টির সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে। অতি বৃষ্টির কারণে ভূমি ধসের আশঙ্কাও করা হচ্ছে।

ইতোমধ্যে ভূমি ধসের আশঙ্কায় বন্দরনগরীতে পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবসকারীদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

এদিকে অল্পবৃষ্টিতেই নগরীর নিম্নাঞ্চলে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। রোববার সকাল থেকে এক ঘণ্টার বৃষ্টিতে বিভিন্ন এলাকায় হাটুপানি জমে যায়। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন নগরবাসী।

পতেঙ্গা আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানা যায়, শনিবার দুপুর ১২টা থেকে রোববার দুপুর ১২টা পর্যন্ত ১১৭ দশমিক ২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন এলাকায় অতি ভারি বৃষ্টির সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে। এছাড়া অতি বৃষ্টির কারণে ভূমি ধসের আশঙ্কাও করা হচ্ছে। 

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পতেঙ্গা কার্যালয়ের পূর্বাভাস কর্মকর্তা তরিকুল নেওয়াজ কবির বাংলানিউজকে বলেন, মৌসুমী বায়ু সক্রিয় থাকায় আগামী ২৪ ঘণ্টা ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে। সমুদ্র বন্দরে কোনো সতর্কতা সংকেত নেই।

তবে নদী বন্দরগুলোকে ২ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে বলে তিনি জানান।

এদিকে রোববার সকাল থেকে বৃষ্টিতে চট্টগ্রাম নগরীর বাকলিয়া, আগ্রাবাদ, চকবাজার, কাপাসগোলা, ষোলশহর, মুরাদপুর, বহদ্দারহাট, আগ্রাবাদ, হালিশহরসহ নগরীর নিম্নাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় হাঁটু থেকে কোমর সমান পানি উঠে গেছে। এতে যান চলাচল যেমন ব্যাহত হচ্ছে, তেমনি দুর্ভোগে পড়েছেন স্থানীয়রা।

ভুক্তভোগীরা জানান, সরকারি সংস্থাগুলোর অপরিকল্পিত উন্নয়ন কাজ, পাহাড়ি মাটি নেমে নালা-নর্দমা ভরাট ও যত্রতত্র ময়লা আবর্জনা জমে থাকায় বৃষ্টির পানি নামতে না পেরে এ জলজটের সৃষ্টি হয়েছে।

আবহাওয়া দপ্তর সূত্র জানায়, বাংলাদেশের উপর মৌসুমী বায়ুপ্রবাহ সক্রিয় থাকার কারণে রোববার দুপুর দেড়টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘন্টার মধ্যে  রাজশাহী, রংপুর, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও  ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে।

একই সঙ্গে ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণের কারণে চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের পাহাড়ি এলাকার কোথাও কোথাও ভূমি ধসের সম্ভাবনাও  রয়েছে ।

পাহাড়ধসের শঙ্কা দেখা দেওয়ায় নগরের ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড় থেকে ইতোমধ্যে বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে ওই এলাকার বাড়িগুলোর বিদ্যুৎ, পানি ও গ্যাস সংযোগ। সরিয়ে নেওয়ার পরও অনেক পরিবার আবারও পাহাড়ে ফিরে গেছে বলে জানা গেছে।

চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) এস এম আবদুল কাদের বাংলানিউজকে বলেন,‘নগরীর ১১টি পাহাড়ে ৬৬৬টি পরিবারকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছিল। ইতোমধ্যে আমরা প্রায় ৮০০ পরিবারকে পাহাড় থেকে সরিয়ে বিভিন্ন জায়গায় পুনর্বাসন করেছি।’

বাংলাদেশ সময়: ১৬১৯ ঘণ্টা, জুন ২৯, ২০১৪

নজরুলজয়ন্তীতে ছায়ানটের নিবেদন
মঈনুল আহসান সাবেরের জন্ম
ইতিহাসের এই দিনে

মঈনুল আহসান সাবেরের জন্ম

চট্টগ্রামে ঈদের দিন করোনায় আক্রান্ত ১৭৯ জন
গান-আড্ডায় করোনা রোগীদের ঈদ উদযাপন ফিল্ড হাসপাতালে
প্লেন চালুর শুরুতেই ধাক্কা ভারতে, একের পর এক ফ্লাইট বাতিল


দেশবাসীকে ঘরে থাকার আহবান খালেদা জিয়ার
নারায়ণগঞ্জে মৃদু ভূমিকম্প অনুভূত
আড়াইহাজারে মাজার খাদেমের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
গণস্বাস্থ্যের কিটের ট্রায়াল স্থগিত
৫ হাজার মানুষকে ঈদ উপহার দিলেন সালমান খান