রমজানের নিরাপত্তা

রোববার নামছে দেড় হাজার অতিরিক্ত পুলিশ

505 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: ফাইল ফটো

walton
রমজানের মধ্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে রোববার থেকে বন্দরনগরীতে নামছে দেড় হাজার অতিরিক্ত পুলিশ। নগরীর কমপক্ষে ৮০টি পয়েন্টে রমজান জুড়ে তারা দায়িত্ব পালন করবে।

চট্টগ্রাম: রমজানের মধ্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে রোববার থেকে বন্দরনগরীতে নামছে দেড় হাজার অতিরিক্ত পুলিশ। নগরীর কমপক্ষে ৮০টি পয়েন্টে রমজান জুড়ে তারা দায়িত্ব পালন করবে।

এবার রমজানে ছিনতাই, ইভ টিজিং এবং যানজটসহ ১৮ থেকে ২০ দফা সমস্যা নির্ধারণ করে এবারের নিরাপত্তা পরিকল্পনা সাজিয়েছে নগর পুলিশ। আর সার্বিক নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণ করতে বরাবরের মত নগর পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ে একটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলা হচ্ছে। 

নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) বনজ কুমার মজুমদার বাংলানিউজকে বলেন, যেসব সমস্যার কারণে রমজানে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হয় সেগুলো আমরা চিহ্নিত করেছি। গত বছরের চেয়ে এবারের রমজানে আরও পাঁচশ পুলিশ বেশি নামানো হচ্ছে। রোববার থেকে তারা দায়িত্ব পালন শুরু করবে।

নগর পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গতবার নগরীতে এক হাজার নয়জন অতিরিক্ত পুলিশ নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেছিল। এবার দেড় হাজার পুলিশকে দায়িত্ব পালনের জন্য চূড়ান্ত করা হয়েছে।

নগরীতে তিন ভাগে ভাগ হয়ে পুলিশ দায়িত্ব পালন করবে। এর মধ্যে নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে দু’শিফটে ভাগ হয়ে স্থায়ী ডিউটিতে থাকবে পুলিশের টিম। এছাড়া বিভিন্ন পয়েন্টে টহল পুলিশ এবং হোন্ডা মোটর সাইকেলে মোবাইল টিমও দায়িত্বরত থাকবে।’

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, পুলিশ নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টকেও তিন ভাগে চিহ্নিত করেছে। এর মধ্যে নিরাপত্তার জন্য স্পর্শকাতর পয়েন্ট আছে কমপক্ষে ৩০টি। বাকি আরও কমপক্ষে ৫০টি পয়েন্ট আছে যেগুলো শুধু গুরুত্বপূর্ণ এবং মোটামুটি গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এসব টিমে দায়িত্ব পালনের জন্য প্রাথমিকভাবে ১১৫ টি টিম গঠন করা হয়েছে।

নগরীর ১৬টি থানার মধ্যে ৫৬টি পয়েন্টে থাকবে ৫৬টি ফুট পেট্রল টিম। এসব পয়েন্ট ঘিরে থাকবে ৫০টি হোন্ডা মোবাইল টিম।

স্পর্শকাতর পয়েন্ট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে বিভিন্ন মার্কেট, শপিংমল, রেলস্টেশন, বাস টার্মিনাল, জনবহুল মোড় বা পয়েন্ট এবং নগরীর প্রবেশপথকে। এসব পয়েন্টে পুরো রমজান জুড়ে স্থায়ীভাবে পুলিশ মোতায়েন থাকবে।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) বনজ কুমার মজুমদার বাংলানিউজকে বলেন, ১৮টি বড় মার্কেটে ২৪ ঘণ্টা পুলিশ প্রহরা থাকবে। ৫০টি মোবাইল হোন্ডা টিম অলি-গলিতে পাহারা দেবে। এছাড়া সিসিটিভি ক্যামেরায় নগরীর সব গুরুত্বপূর্ন স্পটের চিত্র নিয়মিত মনিটরিং হবে। মার্কেটের সামনেও সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপনের জন্য বলা হয়েছে।

নগরীর যেসব পয়েন্টে স্থায়ীভাবে পুলিশ মোতায়েন থাকবে সেগুলোর মধ্যে কোতয়ালী থানায় আছে ৬টি, বাকলিয়া থানায় ২টি, চকবাজার থানায় ২টি, সদরঘাট থানায় ২টি, পাঁচলাইশ থানায় ২টি, খুলশী থানায় ৬টি, বায়েজিদ বোস্তামি থানায় ২টি, চান্দগাঁও থানায় ৩টি, ডবলমুরিং থানায় ২টি, এবং হালিশহর থানায় ১টি।

৫৬টি ফুট পেট্রল টিমের মধ্যে কোতয়ালী থানায় থাকবে ১২টি টিম, বাকলিয়া থানায় ২টি, চকবাজার থানায় ৫টি, পাঁচলাইশ থানায় ৯টি, চান্দগাঁও থানায় ২টি, ডবলমুরিং থানায় ৫টি, হালিশহর থানায় ৪টি, পাহাড়তলী থানায় ৩টি, আকবর শাহ থানায় ৩টি, বন্দর থানায় ৪টি, ইপিজেড থানায় ৫টি এবং পতেঙ্গা থানায় ২টি ফুট পেট্রল টিম থাকবে।

মোবাইল টিমগুলোর মধ্যে কোতয়ালী থানায় থাকবে ৪টি টিম, বাকলিয়া থানায় ২টি, চকবাজার থানায় ৩টি, সদরঘাট থানায় ৩টি, পাঁচলাইশ থানায় ৪টি, খুলশী থানায় ৩টি, বায়েজিদ বোস্তামি থানায় ২টি, চান্দগাঁও থানায় ৬টি, ডবলমুরিং থানায় ২টি, হালিশহর থানায় ৪টি, পাহাড়তলী থানায় ৩টি, আকবর শাহ থানায় ৩টি, বন্দর থানায় ২টি, ইপিজেড থানায় ৪টি, পতেঙ্গা থানায় ২টি এবং কর্ণফুলী থানায় ৩টি টিম থাকবে।

পুলিশ সূত্র জানায়, নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার, থানা ও ফাঁড়ি থেকে পরিদর্শক, উপ-পরিদর্শক, সহকারী উপ পরিদর্শক, কনস্টেবল, স্পেশাল আর্মড ফোর্স, পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেণ্ট বিভাগ, নগর গোয়েন্দা বিভাগ, পুলিশ লাইন থেকে আসা সদস্যরা ১১৫টি টিমে ভাগ হয়ে থাকবেন।

এছাড়া সার্বিক নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণের জন্য যে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলা হবে সেখানে তিনজন সহকারী কমিশনার দায়িত্ব পালন করবেন। এর সঙ্গে স্ট্যান্ড বাই ডিউটিতে থাকেবে ২০ জন করে মোট ৪০ জনের দু’প্লাটুন পুলিশ সদস্য।

এদিকে বৃহস্পতিবার বিকেলে নগর পুলিশ কমিশনার মো.শফিকুল ইসলামসহ উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা রমজানের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে ব্যবসায়ী, আমদানিকারক, পাইকারি ব্যবসায়ী, দোকান মালিক এবং চেম্বার নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) মনজুর মোর্শেদ  বাংলানিউজকে বলেন, বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, প্রত্যেক মার্কেটের সামনে পুলিশের স্থায়ী ক্যাম্প থাকবে। মার্কেটের সামনে কমিউনিটি পুলিশ রাখা, পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করার জন্য মার্কেট কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে।  ইভ টিজিং রোধে শিক্ষার্থীদের স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে ব্যবহারের বিষয়টি নিয়ে আলোচনা চলমান আছে।
 
বাংলাদেশ সময়: ২০০০ ঘণ্টা, জুন ২৬, ২০১৪

চট্টগ্রামে করোনা চিকিৎসায় যুক্ত হচ্ছে ইম্পেরিয়াল-ইউএসটিসি
নিরানন্দ ঈদের দিনগুলোতে ফাঁকা সাভারের বিনোদন কেন্দ্র
যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যু সংখ্যা লাখ ছুঁই ছুঁই
হেরোইনসহ গ্রেপ্তারের পর ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ লঙ্কান পেসার
নদীর পাড়ে ঈদ বিনোদন


হবিগঞ্জে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১, আটক ৪
জেনারেল হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু
শুধু সাধারণ জীবাণু নয়, করোনা রুখতেও মাউথওয়াশ!
আনোয়ারা রাব্বীর মৃত্যুতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শোক
পালানোর চেষ্টা করোনা রোগীর, ধরে হাসপাতালে পাঠালো পুলিশ