দশ ট্রাক অস্ত্র মামলা

মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত লিয়াকত গেলেন কাশিমপুর কারাগারে

121 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মেজর লিয়াকত হোসেন

walton
চাঞ্চল্যকর দশ ট্রাক অস্ত্র চোরাচালান মামলার রায়ের চারমাস পর মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআই’র সাবেক উপ-পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত মেজর লিয়াকত হোসেনকে কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি সেলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম: চাঞ্চল্যকর দশ ট্রাক অস্ত্র চোরাচালান মামলার রায়ের চারমাস পর মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআই’র সাবেক উপ-পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত মেজর লিয়াকত হোসেনকে কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি সেলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে লিয়াকতকে নিয়ে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে কাশিমপুরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় প্রিজন ভ্যান। রাতে তাদের কাশিমপুরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মো.ছগীর মিয়া বাংলানিউজকে বলেন, লিয়াকতের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামে কোন মামলা বিচারাধীন নেই। কয়েদির সঙ্গে তার স্বজনদের দেখা করার সুবিধা বিবেচনা করে লিয়াকতকে কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি সেলে পাঠানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ১৫ মে আইজি (প্রিজন) লিয়াকতকে কাশিমপুর কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়ে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে চিঠি পাঠান। এরপর লিয়াকতের সুবিধামত তাকে বৃহস্পতিবার কাশিমপুর কারাগারে নিয়ে যাবার সময় চূড়ান্ত করা হয়।

দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামীদের মধ্যে লিয়াকতসহ ৬ জনকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ঢাকায় এবং কাশিমপুরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এরা হলেন, জামায়াতের আমির ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী মতিউর রহমান নিজামী, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, এনএসআই’র সাবেক দু’মহাপরিচালক অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী ও অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুর রহিম এবং ডিজিএফআই’র সাবেক পরিচালক (নিরাপত্তা) অবসরপ্রাপ্ত উইং কমাণ্ডার সাহাবুদ্দিন আহমেদ।

একই মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আরও ৬ জন আসামী বর্তমানে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের কনডেম সেলে আছে বলে জানান জেল সুপার ছগীর মিয়া।

এরা হলেন, এনএসআই’র সাবেক মাঠ কর্মকর্তা আকবর হোসেন খান, সিইউএফএল’র সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহসিন উদ্দিন তালুকদার,  সিইউএফএল’র সাবেক মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) কে এম এনামুল হক, চোরাচালানি হিসেবে অভিযুক্ত হাফিজুর রহমান, অস্ত্র খালাসের জন্য শ্রমিক সরবরাহকারী দীন মোহাম্মদ ও ট্রলার মালিক হাজী আবদুস সোবহান।

উল্লেখ্য গত ৩০ জানুয়ারি চট্টগ্রামের স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক এস এম মুজিবুর রহমান দশ ট্রাক অস্ত্র চোরাচালান মামলায় ১৪ আসামীর মৃত্যুদণ্ড দেন। একইসঙ্গে তাদের পাঁচ লক্ষ টাকা করে জরিমানা করা হয়।

একই ঘটনায় অস্ত্র আইনে দায়ের হওয়া আরেক মামলায় ১৪ জনকে যাবজ্জীবন এবং আরও সাত বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

সাজাপ্রাপ্ত আসামীদের ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন উলফা’র সামরিক কমাণ্ডার পরেশ বড়ুয়া এবং শিল্প মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব নূরুল আমিন পলাতক আছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯২৭ ঘণ্টা, মে ২২,২০১৪

৩ হাজার কর্মহীন মানুষের মধ্যে এমপি কমলের ত্রাণ বিতরণ 
ঝুঁকিপূর্ণ সাঁকোই ভরসা দুই উপজেলার ২০ হাজার মানুষের 
অসহায় মানুষের পাশে স্মারক সংগ্রাহক জসিম
মাগুরায় যুবকের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার
কক্সবাজার সৈকতের বালিয়াড়ি তৈরিতে হচ্ছে সাগরলতা বনায়ন 


ঠাকুরগাঁওয়ে করোনা সন্দেহে ১৪ জনের নমুনা সংগ্রহ 
নদী তীরের মাটি কাটায় সোয়া লাখ টাকা জরিমানা
ব্যক্তি উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ করলো ‘সহযোগী’
উপোস থাকবে না রাস্তার কুকুরগুলোও
দেশের ৯ জেলায় ছড়িয়েছে করোনা সংক্রমণ