চট্টগ্রামের উন্নয়ন বিরোধী চক্রান্ত রুখে দেওয়া হবে

123 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, চট্টগ্রামের উন্নয়নে কোন উদ্যোগ নেওয়া হলে তখনি চট্টগ্রাম বিদ্বেষী লোকজন সক্রিয় হয়ে উঠে।

চট্টগ্রাম: সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, চট্টগ্রামের উন্নয়নে কোন উদ্যোগ নেওয়া হলে তখনি চট্টগ্রাম বিদ্বেষী লোকজন সক্রিয় হয়ে উঠে। তারা চক্রান্তে লিপ্ত হয়। মেডিকেল কলেজকে বিশ্ববিদ্যালয় রূপান্তর করার যখন ঘোষণা দেওয়া হয়েছে তখনও তারা চক্রান্তে মেতে উঠেছে। চট্টগ্রামের সর্বস্তরের মানুষকে নিয়ে এ চক্রান্ত রুখে দেওয়া হবে।

বুধবার দুপুরে নগরীর চশমা হিলের বাসভবনে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়ন পরিষদ আয়োজিত মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, অযথা একটা বির্তক এনে বিবেদ সৃষ্টি করার চেষ্টা করছে। এতে তারা সফল হবে না। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় যখন প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় তখনও এটা না হওয়ার জন্য একটি পক্ষ চক্রান্তে লিপ্ত ছিল। সিলেকশন কমিটি যখন ট্রেন যোগে চট্টগ্রাম আসতেছিলো কুমিল্লায় তাদের আটকে দেওয়া হয়। আমরা ঝুঁকি নিয়ে কুমিল্লায় গিয়ে তাদের নিয়ে এসেছিলাম।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামের ন্যায় সংগত দাবিকে চক্রান্তের মাধ্যমে ভন্ডুল করে দেওয়ার চেষ্টা ইতিমধ্যে করা হয়েছে। বর্তমানেও করা হচ্ছে। অযথা বির্তক তৈরি করে মানুষের মাঝে ক্ষোভ তৈরি করার চেষ্টা চলছে। সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে নেমে চক্রান্তকারীদের প্রতিহত করতে হবে।

সাবেক মেয়র বলেন, কিছু লোক ঢাকা থেকে এসে মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য সভা-সমাবেশ করছে। চট্টগ্রামের উন্নয়ন ক্ষতিগ্রস্থ করার চেষ্টা করছে। তাদেরকে প্রতিহত করতে হবে। অর্থের যোগান চট্টগ্রাম থেকে দেওয়া হলেও ঢাকায় বসে আমাদেরকে অবহেলা করা হয়। ডিপ সি পোর্ট করার কথা থাকলে তা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে না। কেন তা হবে না?

মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, মেডিকেল কলেজকে বিশ্ববিদ্যালয় রূপান্তর নিয়ে যে বির্তক তৈরি হচ্ছে তা নিরসনে স্পষ্ট বক্তব্য লিখিত আকারে বিতরণ করা হবে। যারা চক্রান্তে লিপ্ত তাদের বুঝানো হবে। লালদিঘী মাঠে জনসভা করা হবে। যদি তারা বুঝতে না চাই তাহলে ‘ট্রিট ফর ট্রেট’।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় হওয়ার জন্য জায়গা-জমি সবই দেওয়া হয়েছে। অবিলম্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম শুরু করা হোক। আমাদের সন্তানরা জ্ঞান অর্জন করুক। চট্টগ্রামের লোকজন যাতে বাইরে না গিয়ে চট্টগ্রামেই উন্নত স্বাস্থ্য সেবা পায় সে ব্যবস্থা করা হোক।

নগর জাতীয় পার্টির সভাপতি সোলায়মান আলম শেঠ বলেন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল করার জন্য আমাদের অনেক জমি বিনা পয়সায় দেওয়া হয়েছিলো। এখনো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রয়োজন হলে আরো জায়গা লিখে দেওয়া হবে। অবিলম্বে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম শুরু করা হোক।

বিএমএ নেতা ডা. শেখ শফিউল আজম বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরিপত্রে স্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজকে শুধু স্বায়ত্বশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে এবং চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সরকারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে বহাল রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। সুতরাং এখানে বির্তক বা সংশয় তৈরি করার কোনো সুযোগ নেই। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য আলাদা হাসপাতাল তৈরি করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের চাকরি বেসরকারি হয়ে যাবে বলে জুঁজুর ভয় দেখানো হচ্ছে। এটা স্রেফ গুজব এবং মিথ্যাচার। তারা চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনেও কাজ করতে পারবে। হাসপাতালের অধীনেও কাজ করতে পারবে।

বিএমএ চট্টগ্রামের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ডা. নাসির উদ্দিন মাহমুদের সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আনোয়ারুল আজিম আরিফ, উপ উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী, দক্ষিণ  জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি  ড. বেনু কুমার দে, ইনস্টিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ(আইইবি) চট্টগ্রাম কেন্দ্রের সাবেক সভাপতি প্রকৌশলী মোহাম্মদ হারুন, পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদ চট্টগ্রামের সভাপতি ডা. একিউএম সিরাজুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট আনোয়ারুল ইসলাম চৌধুরী, সাংবাদিক মোস্তাফা কামাল পাশা, সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, বিএমএ চট্টগ্রামের দপ্তর সম্পাদক ডা. মো. সেলিম।

এসময় উপস্থিত ছিলেন চুয়েট উপ উপাচার্য অধ্যাপক মোহাম্মদ রফিকুল আলম, সিডিএ সাবেক চেয়ারম্যান শাহ মুহম্মদ আখতার উদ্দিন, সাবেক মহানগর পিপি অ্যাডভোকেট কামাল উদ্দিন আহমেদ, সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী, অধ্যাপক ডা. ঝুলন দাশ শর্মা, ডা. প্রণব চৌধুরী,  আইইবি ভাইস চেয়ারম্যান প্রকৌশলী এম এ রশীদ, সাধারণ সম্পাদক উদয় শেখর দত্ত, কাউন্সিলর মো. গিয়াস উদ্দিন।

বাংলাদেশ সময়: ১৭০০ঘণ্টা, মে ২১, ২০১৪

কক্সবাজার সৈকতের বালিয়াড়ি তৈরিতে হচ্ছে সাগরলতা বনায়ন 
ঠাকুরগাঁওয়ে করোনা সন্দেহে ১৪ জনের নমুনা সংগ্রহ 
নদী তীরের মাটি কাটায় সোয়া লাখ টাকা জরিমানা
ব্যক্তি উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ করলো ‘সহযোগী’
উপোস থাকবে না রাস্তার কুকুরগুলোও


দেশের ৯ জেলায় ছড়িয়েছে করোনা সংক্রমণ 
না’গঞ্জের পুরাতন পালপাড়ায় অঘোষিত লকডাউন 
র‌্যাব সদস্য করোনা আক্রান্ত, টেকনাফে ১৫ বাড়ি-দোকান লকডাউন
তালিকা টাঙিয়ে হঠাৎ ১৮৯ পোশাক শ্রমিককে অব্যাহতি
লংগদুতে প্রেমের জেরে কিশোরীর আত্মহত্যা