মিরসরাই বিএনপির কাউন্সিল শীঘ্রই, পদ পেতে তোড়জোড়

156 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
উত্তর চট্টগ্রামের সাতটি উপজেলায় শীঘ্রই নতুন কমিটি গঠনের চিন্তাভাবনা করছে উত্তর জেলা বিএনপি। মিরসরাই উপজেলা, বারইয়ার হাট পৌরসভা ও মিরসরাই পৌরসভার আহ্বায়ক কমিটি গঠনের মধ্য দিয়ে এ প্রক্রিয়া শুরু হবে।

চট্টগ্রাম: উত্তর চট্টগ্রামের সাতটি উপজেলায় শীঘ্রই নতুন কমিটি গঠনের চিন্তাভাবনা করছে উত্তর জেলা বিএনপি। মিরসরাই উপজেলা, বারইয়ার হাট পৌরসভা ও মিরসরাই পৌরসভার আহ্বায়ক কমিটি গঠনের মধ্য দিয়ে এ প্রক্রিয়া শুরু হবে।

দীর্ঘ আড়াই বছর পর মিরসরাই উপজেলার নতুন কমিটি গঠনের এ খবরে স্থানীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে পদ পেতে তোড়জোড় শুরু হয়েছে।  উপজেলা কমিটিতে আহবায়ক, সদস্য সচিব ও সদস্য হতে চাঙ্গা হয়ে উঠেছে অতীতে দলের আন্দোলন সংগ্রামে নিষ্ক্রিয়রাও। জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতাদের মনজয়ে ড্রয়িং রুম ও দলীয় অফিসে নিয়মিত ভিড় শুরু করেছেন প্রার্থীরা।

তৃনমুলের নেতাকর্মীদের দাবি, যারা অতীতে পদ নিয়ে শহরে বসে  গ্রামের রাজনীতি করতো তাদের বাদ দিয়ে যারা দলের সুখে দুখে ছিলো তাদের মুল্যায়ন করলে দল শক্তিশালী হবে। অতীতে কোন্দলের কারণে নির্বাচনে ভরাডুবি হয়েছে। তাই, আন্দোলন সংগ্রামে পরিক্ষিতদের উপজেলা বিএনপির পদে নিয়ে আসতে হবে।

তারা বলছেন, কাউন্সিলে একজন নিরপেক্ষ গ্রহনযোগ্য আহবায়ক দিয়ে ভোটাভুটির মাধ্যমে নেতা নির্বাচন হলে চমক থাকবে উপজেলা বিএনপির কমিটিতে।

জানা গেছে, সম্প্রতি বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া উত্তর জেলা বিএনপির কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে উত্তর লায়ন আসলাম চৌধুরীকে আহবায়ক ও আব্দুল্লাহ আল হাসানকে সদস্য সচিব করে একটি কমিটি গঠন করে। আহবায়ক কমিটি আগামী কয়েক দিনের মধ্যে উত্তর জেলায় অবস্থিত সাত উপজেলার কমিটি গঠন করবে।

কাউন্সিলরদের মুখে মুখে উপজেলা বিএনপির আহবায়ক হিসেবে নতুন মুখের গুঞ্জন শুরু হয়েছে। যারা উপজেলা আহবায়ক, সদস্য সচিব ও পরবর্তীতে উপজেলা সভাপতি- সাধারণ সম্পাদক, ইউনিয়ন সভাপতি–সাধারণ সম্পাদক হতে আগ্রহী তাদের অতীত কর্মকান্ড নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ করছে কাউন্সিলররা। তারা জানান, কোন অযোগ্য লোক নের্তৃত্বে আসতে পারবেনা।

বিএনপি নেতা সাবেক চেয়ারম্যান রফিক, ওসমানপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এফ কবির ও উপজেলা যুব দলের একাংশের যুগ্ন সম্পাদক নাজিম উদ্দিন লিটন জানান, গত উপজেলা নির্বাচনে কোন্দলে জর্জরিত বিএনপিকে ঐক্যবদ্ধ করে দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করার নেপথ্য ভুমিকা পালন করায় সকলের গ্রহনযোগ্য নিরপেক্ষ হিসেবে আমরা বড়তাকিয়া গ্রুপের চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম ইউসুফকে আহবায়ক হিসেবে দেখতে চাই।

অন্যদিকে আহবায়ক পদে মনোনয়ন পেতে কেন্দ্র ও জেলায় জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি নুরুল আমিন, আব্দুল আউয়াল চৌধুরী। সদস্য সচিব হিসেবে উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. আলমগীর, সাবেক সদস্য সচিব চেয়ারম্যান সালাহ উদ্দিন সেলিম ও সাবেক যুগ্ন সম্পাদক গাজী নিজাম উদ্দিনের নাম শুনা যাচ্ছে।

আহবায়ক প্রার্থী আব্দুল আউয়াল চৌধুরী বলেন, আমি দীর্ঘ সময় ধরে উপজেলা ও জেলার রাজনীতির সাথে জড়িত রয়েছি। এবারও উপজেলা বিএনপির আহবায়কের দায়িত্ব নিতে আগ্রহী। তারপরও দল যাকে ভালো মনে করবে তাকে দায়িত্ব দিবে। আমি তার সাথে কাজ করে যাবো

সাবেক উপজেলা বিএনপির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন জানান, মনিরুল ইসলাম ইউসুফের মতো একজন উদার মনের শিল্পপতি বিএনপির আহবায়ক হলে আমার দ্বিমত নেই, এছাড়া অন্যকেউ হলে তার অতীত আমলনামা কেমন দেখতে হবে। কোন অযোগ্য লোক আহবায়ক হলে তখন আমি প্রার্থী হয়ে প্রতিবাদ জানাবো।

মনিরুল ইসলাম ইউসুফ জানান, আমি পদের জন্য আগ্রহী না। রাজনীতিনৈতিক পদে না থেকেও এতদিন দলের নেতাকর্মীদের সহযোগিতা করে আসছি। নির্বাচনে দলকে ঐক্যবদ্ধ করে দলের প্রার্থীকে বিজয়ী করার জন্য কাজ করেছি। দল যখন যে সিদ্ধান্ত দিবে আমি সে সিদ্ধান্তের সাথে একমত থাকবো।

উত্তর জেলা বিএনপির আহবায়ক আসলাম চৌধুরী বলেন, যোগ্যতার ভিত্তিতে মিরসরাই উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন করা হবে। তবে কেন্দ্রীয় কমিটিতে আছেন এমন কোন সদস্য থানা পর্যায়ে নেতৃত্বে স্থান পাবেনা।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৫৪ ঘণ্টা, মে ২১, ২০১৪

করোনা প্রতিরোধে বাংলাদেশকে সহায়তা দেবে যুক্তরাজ্য
বরিশালে দুই ফটো সাংবাদিককে পিটিয়ে আহত করলো পুলিশ
করোনা: হবিগঞ্জের সড়কে সড়কে র‍্যাবের টহল ও মাইকিং
বীরবিক্রম শাফী ইমাম রুমীর জন্ম
সেই প্রবীণদের বাড়িতে ইউএনও, ফোনে কথা বললেন প্রতিমন্ত্রী


ইতালিতে করোনায় মৃত্যু ১০ হাজার ছাড়ালো
করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু: পুলিশি পাহারায় দাফন
যুক্তরাষ্ট্রে স্ত্রীসহ করোনায় আক্রান্ত কাজী মারুফ
করোনায় নাকাল দুস্থদের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ ইশরাকের
করোনা সন্দেহে মাদারীপুরে কলেজছাত্র আইসলেশনে