php glass

হালদায় ডিম ছেড়েছে মা মাছ

168 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
দেশের একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদীতে ডিম ছেড়েছে মা-মাছ। রোববার ভারী বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়ার পর সন্ধ্যায় নমুনা ডিম ছাড়ে। এরপর সোমবার ভোর থেকে ডিম ছাড়তে শুরু করেছে মা মাছ।

চট্টগ্রাম: দেশের একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদীতে ডিম ছেড়েছে মা-মাছ। রোববার ভারী বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়ার পর সন্ধ্যায় নমুনা ডিম ছাড়ে। এরপর সোমবার ভোর থেকে ডিম ছাড়তে শুরু করেছে মা মাছ।

রোববার সন্ধ্যায় নমুনা ছাড়ার পর রাত থেকে ডিম আহরণকারীরা আহরনের সরঞ্জাম নিয়ে প্রস্তুত ছিলেন। ভোররাতে ডিম ছাড়া শুরুর পর হালদায় নেমে পড়েন প্রায় ৪০০ ডিম সংগ্রহকারী। 

চট্টগ্রাম জেলা মৎস্য কর্মকর্তা প্রভাতী দেব বাংলানিউজকে বলেন, সোমবার ভোর থেকেই হালদায় ডিম ছাড়তে শুরু করে মা মাছ। নদীর সব কয়টি পয়েন্ট থেকে মাছের ডিম সংগ্রহ করে জেলেরা।

কোন কোন সংগ্রহকারী আড়াই কেজি পর্যন্ত ডিম সংগ্রহ করতে পেরেছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তবে সর্বমোট কি পরিমাণ ডিম সংগ্রহ হয়েছে তা এক সপ্তাহ পর জানা যাবে।

উল্লেখ্য, চট্টগ্রামের রাউজান-হাটহাজারী উপজেলা সীমানা দিয়ে বয়ে যাওয়া হালদা নদীতে প্রতি বছর চৈত্র থেকে আষাঢ় মাসে ডিম ছাড়ে মা-মাছ। কৃত্রিম পোনার চেয়ে হালদার পোনা বাড়ে বলে এ পোনার কদর রয়েছে সারা দেশে। পোনা ব্যবসায়ীরা স্থানীয়ভাবে হ্যাচারি তৈরি করে অপেক্ষায় থাকেন, মা-মাছ কখন ডিম ছাড়বে সে আশায়।

উৎসবের আমেজে হালদায় ডিম আহরণকারীরা ডিম সংগ্রহ করেছেন উল্লেখ করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রাণী বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মনজুরুল কিবরিয়া বাংলানিউজকে জানান, সোমবার বিকেল পর্যন্ত ডিম সংগ্রহ করেছে জেলেরা। 

রাউজানের উরকিরচর, মইশকরম, বাড়ীঘোনা, রাম দাশ মুন্সিরহাট, আজিমেরঘাট, কাগতিয়া, বিনাজুরী, দক্ষিণ গহিরা, অংকুরীঘোনা, হাটহাজারীর মাদর্শা, মাছুয়াঘোনা, আমতুয়া, গড়দুয়ারা, পোরলীর মুখ এলাকায় শত শত নৌকা নিয়ে অভিজ্ঞ জেলেরা মাছের ডিম সংগ্রহ করে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় লোকজন।
হাটহাজারী উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুন বাংলানিউজকে বলেন,মা মাছ প্রথম দফায় নয়া হাট এলাকায় নমুনা ডিম ছাড়ে। সোমবার ভোররাতে ডিম ছাড়তে শুরু করে। এরপর থেকে হালদার নদীর অংকুরি ঘোনা, গড়দুয়ারা, পূর্ব মেখল, মদুনা ঘাট, নয়া  হাট, রামদাশ হাটসহ ১১টি পয়েন্টে শত শত নৌকা-সাম্পান নিয়ে মিহি জাল দিয়ে ডিম সংগ্রহ করেন ডিম আহরণকারীরা।

ডিম চুরি রোধে রাউজান ও হাটহাজারী উপজেলার ২০ কিলোমিটার এলাকায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর টহল অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তিনি। এছাড়া সরকারী হ্যাচারি গুলো রয়েছে প্রস্তুত। যাতে ডিম আহরণকারীরা সহজে এসব হ্যাচারিতে ডিম ফুটাতে পারে।

অন্যান্যবারের চেয়ে এবার অনেক বেশী ডিম পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন গড়দুয়ারার ডিম আহরণকারী কামাল উদ্দিন।

রাউজানের আরেক ডিম আহরনকারী অন্তু বড়ুয়া বাংলানিউজকে বলেন, সারা রাত জেগে থেকে সকালে বেশী পরিমান ডিম সংগ্রহ করতে পারায় অনেক আনন্দ লাগছে। তবে হ্যাচারি গুলোতে মি ফুটাতে গিয়ে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ তার। 

গত বছর হালদা নদী থেকে এক হাজার ৫০ কেজিরও বেশি ডিম আহরতিত হয়। এরআগের বছর আহরিত হয় প্রায় ৬০০ কেজি। এবার আরো বেশী  ডিম আহরণ হতে পারে ধারণা করছেন মৎস্য কর্মকর্তা ও হালদা গবেষকদের। 

বাংলাদেশ সময়: ১৭৪০ ঘণ্টা, মে ১২, ২০১৪

পাবনায় সরকারিভাবে আমন সংগ্রহের কার্যক্রম শুরু
বায়িং হাউজগুলোর দক্ষতা বাড়ানোর ওপর জোরারোপ
ওয়ারীতে দেশি অস্ত্রসহ ৬ ডাকাত আটক
সিলেটে ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার
কেরানীগঞ্জে বাসচাপায় অটোরিকশাযাত্রী নিহত


পাইকগাছায় ঘের ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা 
দুর্গাসাগর দীঘিতে নিখোঁজের ৮ ঘণ্টা পর যুবকের মরদেহ উদ্ধার
সারাদেশের পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার
বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার অবদান লিপিবদ্ধ করার দাবি
এলেঙ্গা-হাটিকুমরুল-রংপুর মহাসড়কে বসুন্ধরা সিমেন্ট