php glass

চমেককে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর

প্রস্তাবনা-২০১১ বাতিলের দাবি জনস্বাস্থ্য কমিটির

136 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজকে (চমেক) বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরের জন্য ২০১১ সালের প্রকল্প প্রস্তাবনাটি বাতিলের আহ্বান জানিয়েছে জনস্বাস্থ্য অধিকার রক্ষা কমিটি।

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজকে (চমেক) বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরের জন্য ২০১১ সালের প্রকল্প প্রস্তাবনাটি বাতিলের আহ্বান জানিয়েছে জনস্বাস্থ্য অধিকার রক্ষা কমিটি।

সোমবার সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে কমিটি এ দাবি জানায়।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, ‘২০১১ সালের ৩১ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ৬ জন শিক্ষকের পাঠানো প্রকল্প প্রস্তাবের প্রেক্ষিতেই সরকার কলেজটিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরের প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। প্রস্তাবনায় কলেজ ও হাসপাতালের আয়-ব্যায়ের ব্যবধান ঘুঁচাতে কলেজটিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর করে রোগীদের সেবা মূল্য ও চার্জ বৃদ্ধি করতে বলতে হয়েছে। চার্জ নির্ধারণের দায়িত্ব বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে দেয়ায় গরীব রোগীরা যেমন সেবা বঞ্চিত হবেন একইসঙ্গে শিক্ষার্থীদেরও বিভিন্ন ধরণের ফি বেড়ে যাবে।’

বক্তারা বলেন,‘আমরা চট্টগ্রাম ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় গরীব রোগীদের নির্ভরতার এ হাসপাতালকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আওতায় নেওয়ার বিপক্ষে। তবুও সরকার চাইলে আলাদা প্রস্তাবনার মধ্য দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় করতে পারে। সেক্ষেত্রে এ কলেজকে সরকারি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ঘোষণা করা হোক। রোগীদের সেবা ও ছাত্রদের শিক্ষা ফি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বদলে সরকার নির্ধারণ করবে।

‘অনেকে বলার চেষ্টা করছেন সরকারের প্রজ্ঞাপনে কেবল মেডিকেল কলেজের কথা উল্লেখ রয়েছে যার কারণে হাসপাতাল এর আওতায় পড়বেনা। তাদের বুঝতে হবে, হাসপাতালটি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের নিজস্ব হাসপাতাল। হাসপাতালকে তো বিশ্ববিদ্যালয় করা হয় না। যেখানে কলেজ যাবে হাসপাতাল স্বাভাবিক ভাবেই সেখানে যাবে। তাই প্রজ্ঞাপনে ভিন্ন ভাবে হাসপাতালের কথা উল্লেখ করা হয়নি।’

সংবাদ সম্মেলনে সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা না করে সস্তা জনপ্রিয়তা কামাতে  চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন বক্তারা।

তারা বলেন, পিজিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর করতে গিয়ে গরীব রোগীদের কোন অসুবিধা হয়নি। কারণ ঢাকায় ৪-৫টি সরকারি মেডিকেল কলেজ ও ১০-১২টি বিশেষায়িত হাসপাতাল রয়েছে। চট্টগ্রামে জেনারেল হাসপাতাল ছাড়া আর কিছু নেই। তাই এ হাসপাতালকে নিয়ে নীতি নির্ধারকদের বাণিজ্যিক চিন্তা বাদ দেওয়া উচিত।

‘উচ্চমানের বিশেষজ্ঞ ডাক্তার সৃষ্টির লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের আদলে আলাদা করে একটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হোক। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ১০০ একর জায়গা রয়েছে। ফৌজদার হাটেও সরকারের প্রচুর খাস জমি রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণের জন্য জায়গার তো অভাব নেই।’

বক্তারা অভিযোগ করেন, গত ১৫ এপ্রিল সরকার প্রজ্ঞাপন জারী করে এর প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন আইনের খসড়া প্রণয়নের জন্য ১০ সদস্যের কমিটি গঠন করলেও কমিটিতে চট্টগ্রামের কাউকে রাখা হয়নি।

বক্তারা এসময় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের বাজেট বরাদ্দ বাড়িয়ে হাসপাতালের আসন সংখ্যা ৩ হাজার বেডে উন্নীত করার দাবি জানান। এছাড়াও কলেজটিতে প্রয়োজনীয় লোকবল নিয়োগ ও ডাক্তারদের চাকুরী স্থায়ী করার দাবিও তুলেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন নগর পরিকল্পনাবিদ প্রকৌশলী সুভাষ বড়ুয়া, জনস্বাস্থ্য কমিটির আহ্বায়ক ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষক ডা. মাহফুজুর রহমান, সদস্য সচিব ডা. সুশান্ত বড়ুয়া, সিটি কর্পোরেশনের মহিলা কাউন্সিলর জান্নাতুল ফেরদৌস পপি, জনস্বাস্থ্য রক্ষা কমিটির সদস্য হাসান মারুফ রুমি প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৪০ ঘণ্টা, মে ১২, ২০১৪

কসবায় দুইটি ট্রেনের সংঘর্ষে নিহত ১০
আসামি ধরতে গিয়ে হামলায় ৩ পুলিশ জখম
আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দরের সম্ভাবনা বহু দূরে চলে গেছে 
রাস্তায় আন্দোলন করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা যাবে না
বাংলাদেশে বিনিয়োগের পরিবেশ এখন ভালো: গণপূর্তমন্ত্রী


মুক্তি পেল দণ্ডিত ১২১ শিশু
বড় ভাইকে গলা কেটে হত্যা, সৎভাই আটক
উন্মোচিত হলো নুমাইর আতিফ চৌধুরীর ‘বাবু বাংলাদেশ’
চুরির দায়ে বেনাপোল কাস্টমস হাউজের ৫ সদস্য বরখাস্ত 
বিএনপি জাতীয়তাবাদী শক্তির প্লাটফর্ম: গয়েশ্বর