php glass

চমেককে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরের প্রতিবাদে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবস্থান ধর্মঘট

111 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি : বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ ও অবস্থান ধর্মঘট পালন করেছে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ ও অবস্থান ধর্মঘট পালন করেছে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

বুধবার সকাল এগারোটায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল কর্মকর্তা-কর্মচারী সংগ্রাম ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে এসব কর্মসূচি পালন করা হয়।

সংগঠনের সভানেত্রী রোমেনা আক্তারের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সদস্য সচিব রতন আলী মিয়া, যুগ্ম সম্পাদক রুখমা চৌধুরী, ডিপ্লোমা নার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক রতন কুমার নাথ প্রমুখ।

সমাবেশে রোমেনা আক্তার বলেন,‘প্র্রধানমন্ত্রী জনগণের ঘরে ঘরে স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার কথা বলে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরের মতো আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। তিনি নিশ্চিতভাবে কোন আমলা দ্বারা প্রভাবিত হয়েছেন। কুমিল্লা থেকে টেকনাফ পর্যন্ত প্রায় পাঁচ কোটি মানুষের এই একটিই হাসপাতাল। একে স্বায়ত্তশাসনের আওতায় আনা হলে বর্ধিত ফি’সহ নানা জটিলতায় সাধারণ মানুষ চিকি‍ৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হবেন।’

তিনি বলেন,‘হাসপাতালটি স্বায়ত্তশাসনের আওতায় আনা হলে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের হয়তো ছয় মাস কিংবা এক বছর কষ্ট হবে। কিন্তু সাধারণ গরীব রোগীদের দুর্ভোগ হাজার গুন বেড়ে যাবে। তাই সরকারের উচিত অন্য কোন জায়গায় স্বতন্ত্র একটা বিশ্ববিদ্যালয় করা।’

রোমেনা আক্তার বলেন,‘সরকার আমাদের প্রতিপক্ষ ভাবছে। প্রতিপক্ষ না ভেবে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ চট্টগ্রামবাসীর ন্যায্য দাবি মেনে নিতে হবে।’

রতন আলী মিয়া বলেন,‘বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা স্বায়ত্তশাসন হলে হাসপাতালের কী অবস্থা হয় যারা পিজি হাসপাতালে গেছে তারা জানেন। পাঁচ কোটি মানুষের স্বাস্থ্য সেবার কথা মাথায় না রেখে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালকে স্বায়ত্ত্বশাসিত করা যাবে না।’

তিনি বলেন,‘আমরা আগেও বলেছি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সঙ্গে আমাদের কোন বিরোধ নেই। আমরাও চাই মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হোক। কিন্তু তা অন্য জায়গায়। চট্টগ্রামে যদি আর দশটা-পাঁচটা জেনারেল হাসপাতাল থাকতো তবে বিশ্ববিদ্যালয় রূপান্তরে কোন সমস্যা ছিল না।’

রুখমা চৌধুরী বলেন,‘কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নিজেদের সমস্যার কথা চিন্তা করছে সত্যি, তবুও তাদের বদলী হওয়ার সুযোগ আছে। কিন্তু বিনামূল্যে বা নামমাত্র মূল্যে যে সব জনগণ সেবা নিচ্ছেন, তাদের কী হবে আমাদের জনপ্রতিনিধিরা সেই চিন্তাটা করছে না।’

রতন কুমার নাথ বলেন,‘বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরের প্রক্রিয়া থেকে সরে না আসা পর্যন্ত কর্মকর্তা-কর্মচারিদের আন্দোলন চলবে। কেউ কেউ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়ে আমাদের আন্দোলনকে বাধাগ্রস্থ করার চেষ্টা করছেন। এ ধরণের কোন অপচেষ্টা করা হলে লাগাতার ধর্মঘট চলবে।’

বাংলাদেশ সময়: ১৩২৯ ঘণ্টা, এপ্রিল ৯, ২০১৪

রাজধানীতে দু’টি বোমা নিষ্ক্রিয় করলো পুলিশ
ভোলাহাটে মহানন্দা নদীর ডানতীর রক্ষা বাঁধে ভাঙন
কোহলি-রোহিতদের কোচ হচ্ছেন জয়াবর্ধনে!
হাওরে নিখোঁজ কলেজছাত্রের মরদেহ উদ্ধার
ইভিএমে ভোটদান শেখাতে শিক্ষার্থীদের সহায়তা নিতে চায় ইসি


৬ মাসে চট্টগ্রাম বিআরটিএতে চার হাজার মামলা
রাজধানীতে বাসের ধাক্কায় নিহত ২
ছোটপর্দায় আজকের খেলা
ইবিতে নতুন ৩ সহকারী প্রক্টর নিয়োগ
টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গাসহ নিহত ২