php glass

সক্ষমতা অর্জিত হলেই ভারতকে ট্রানজিট: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

97 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
বাংলাদেশের সক্ষমতা অর্জিত হলেই ভারতকে ট্রানজিট দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম।

চট্টগ্রাম: বাংলাদেশের সক্ষমতা অর্জিত হলেই ভারতকে ট্রানজিট দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম।

তিনি বলেন,‘সব হাইওয়ে ও অন্যান্য সুযোগ স্থাপিত না হলে এটা সম্ভব নয়। আর ট্রানজিট এখন শুধু বাংলাদেশ-ভারতের বিষয় নয়। এটাকে বৃহৎ পরিসরে আঞ্চলিক যোগাযোগ স্থাপনের প্রেক্ষাপটে দেখতে হবে।’

মঙ্গলবার দুপুরে নগরীর একটি হোটেলে বাংলাদেশ, চীন, ভারত ও মায়ানমার (বিসিআইএম) ইকোনোমিক করিডোর শীর্ষক সেমিনার শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

চিটাগাং চেম্বার ও ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত সেমিনারে গ্লোবাল কানেকটিভিটির ওপর গুরুত্ব আরোপ করে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, চার দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ইতিমধ্যে কোলকাতা-কুমিং বৈঠক হয়েছে।

‘করিডোর হলে চার দেশের মধ্যে আঞ্চলিক সমৃদ্ধি বৃদ্ধি পাবে। তাই করিডোর বাস্তবায়নের লক্ষ্যে গত বছর বৈঠক হয়েছে, আগামী জুনে আবার বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।’

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০০৫ সালে ভারতের ওপর দিয়ে গ্যাস লাইন নেওয়ার জন্য মায়ানমার বাংলাদেশকে প্রস্তাব দিয়েছিল। ওই সময় ক্ষমতায় থাকা চার দলীয় জোট সরকার তাদের প্রস্তাবটি ফিরিয়ে দেন। এখন বাংলাদেশ ও ভারত যৌথভাবে তাদেরকে প্রস্তাব দিলেও তারা সায় দিচ্ছে না।

তবে গ্যাস আনার ব্যাপারে মায়ানমারের জ্বালানি মন্ত্রীর সাথে সরকারের আলাপ-আলোচনা চলছে বলে জানান তিনি।

সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জুন বলেন, চট্টগ্রাম বাংলাদেশের অর্থনৈতিক কেন্দ্র। আর আঞ্চলিক যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু হলে বাংলাদেশ হবে সেই ব্যবস্থার কেন্দ্রস্থল।

চীন চট্টগ্রামে আলাদা শিল্পাঞ্চল চায় জানিয়ে তিনি বলেন, এতে চীনা ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগ করবে।  

তিনি বলেন, চট্টগ্রাম ও চীনের কুনমিং হল বোন শহর (সিস্টার সিটি)। শত শত চীনা কোম্পানি বাংলাদেশে আসে। তাদের জন্য আমরা এখানে একটা আলাদা ইকোনমিক পার্ক চাই এবং সেটা অবশ্যই চট্টগ্রামে।  

সেমিনারে বাংলাদেশে ভারতের ডেপুটি হাইকমিশনার সন্দীপ চক্রবর্তী বলেন, যেসব বিষয় দ্বিপাক্ষিকভাবে সম্ভব হয় না আঞ্চলিক উদ্যোগে তা সফল হয়। বিসিআইএম কার্যকরের ক্ষেত্রে আমাদের পুরনো আঞ্চলিক সংযোগগুলো পুনঃস্থাপন করলেই চলবে।

ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে বিদ্যুৎ, সড়ক ও রেল যোগাযোগ স্থাপনের ক্ষেত্রে অনেক কাজ হয়েছে উল্লেখ করে সন্দীপ চক্রবর্তী বলেন, চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহারের বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারকে প্রস্তাব দিয়েছি। গভীর সমুদ্র বন্দরের বিষয়েও আমরা গভীরভাবে আন্তরিক।

সেমিনারে সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ভৌগলিক কারণে ভারত ও চীনের ‘ল্যা- লক’ অংশের জন্য চট্টগ্রাম গুরুত্বপূর্ণ প্রবেশদ্বার। আঞ্চলিক যোগযোগ স্থাপনের জন্য সবার আগে প্রয়োজন সোনাদিয়ায় গভীর সমুদ্র বন্দর স্থাপন।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের রিসার্চ ফেলো শহীদুল ইসলাম।

চিটাগাং চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলম এর সভাপতিত্বে আনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জুন, ভারতের ডেপুটি হাই কমিশনার সন্দীপ চক্রবর্তী, চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি নুরুন নেওয়াজ সেলিম, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ছৈয়দ মাহমুদুল হক প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।  

বাংলাদেশ সময়: ১৬২৫ ঘণ্টা, মার্চ ২৫, ২০১৪

খুলনায় আ’লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীদের প্রযুক্তির প্রশিক্ষণ
সিলেটে লবণ বিক্রেতাকে জরিমানা
লবণের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির চেষ্টা, হবিগঞ্জে আটক ৪
‘খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার অধিকার থেকে বঞ্চিত করছে সরকার’
আবাসন খাতে সর্বোচ্চ করদাতা র‌্যাংগস প্রপার্টিজ লিমিটেড


‌সিলেটের বাজারে লব‌ণ সংকটের গুজব
মিরপুরে ছুরিকাঘাতে ২ শিক্ষার্থী আহত
লিবিয়ায় বিমান হামলায় এক বাংলাদেশি নিহত, আহত ১৫
৬০ বিঘা জমির আম গাছ কাটার ঘটনায় গ্রেফতার এক
গোলাপি বলে বাড়তি সুবিধা দেখছেন মিরাজ