php glass

সেই বদনি এখন ভাইস চেয়ারম্যান

150 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
চাঞ্চল্যকর দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় খালাস পাওয়া আলোচিত আসামী মরিয়ম বেগম ওরফে বদনি মেম্বার এবার উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। আনোয়ারার বৈরাগ ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হিসেবে টানা ২০ বছর ধরে দায়িত্ব পালন করা বদনি মেম্বার এবার নেতৃত্ব দেবেন পুরো উপজেলা জুড়ে।

চট্টগ্রাম: চাঞ্চল্যকর দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় খালাস পাওয়া আলোচিত আসামী মরিয়ম বেগম ওরফে বদনি মেম্বার এবার উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। আনোয়ারার বৈরাগ ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হিসেবে টানা ২০ বছর ধরে দায়িত্ব পালন করা বদনি মেম্বার এবার নেতৃত্ব দেবেন পুরো উপজেলা জুড়ে।

রোববার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বদনি মেম্বার ভোট পান ৫৬ হাজার ১৫৫। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির শিরিন ইয়াসমিন ভোট পেয়েছেন ৩১ হাজার ৯৩২।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বদনি মেম্বার ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করার জন্য আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন। ব্যর্থ হয়ে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবেই নির্বাচনে অংশ নেন।

শেষ পর্যন্ত বদনির জনপ্রিয়তার কাছে হার মেনেছেন প্রভাবশালী রাজনৈতিক দল সমর্থিত প্রার্থীরা।

আনোয়ারা উপজেলার বৈরাগ ইউনিয়নের কোট্টাপাড়া এলাকার মধ্যবিত্ত পরিবারের গৃহবধূ মরিয়ম বেগম ওরফে বদনি’র নাম মানুষের মুখে মুখে আসে ২০০৪ সালে।

ওই বছরের ১ এপ্রিল রাতে আনোয়ারায় রাষ্ট্রায়ত্ত সার কারখানা চিটাগং ইউরিয়া ফার্টিলাইজার লিমিটেডের (সিইউএফএল) জেটিঘাটে দশ ট্রাক অস্ত্রের চালান খালাসের সময় ধরা পড়ে।

এ ঘটনায় কর্ণফুলী থানার তৎকালীন ওসি আহাদুর রহমান বাদি হয়ে অস্ত্র আইনের ১৯ (ক) ধারায় ৪৩ জনকে এবং চোরাচালানের অভিযোগে বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫ (বি) ধারায় ৪৫ জনকে আসামী করে পৃথক দু’টি মামলা মামলা দায়ের করেন।

এতবড় অস্ত্রের চালান খালাসের ঘটনায় বিস্ময়করভাবে আসামী করা হয় ট্রলার মালিক, ঘাট শ্রমিক, পরিবহন শ্রমিক, ট্রলারের সারেং, মাঝিমাল্লাদের। আরও বিস্ময়করভাবে আসামীর তালিকায় আসে স্থানীয় ইউপি সদস্য মরিয়ম বেগমের নামও।

এত বড় অস্ত্রের চালান আনার সঙ্গে বদনির নাম যুক্ত হলে তা মানুষের মধ্যে একদিকে কৌতুকের উদ্রেক করে। শুরুতেই এ মামলার ঘটনাপ্রবাহ নিয়ে মানুষের মধ্যে অবিশ্বাস সৃষ্টি হয়।

২০০৫ সালে বদনিসহ আসামীদের বিরুদ্ধে বিচারও শুরু হয়। ২০০৭ সালের ২০ নভেম্বর রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত মামলাটি অধিকতর তদন্তের আদেশ দেন।

সিআইডির এএসপি ইসমাইল হোসেন প্রথম দফা অধিকতর তদন্তের দায়িত্ব পেলেও তিনি তদন্ত শেষের আগেই বিদায় নেন। পরে সিআইডি’র চট্টগ্রাম অঞ্চলের সিনিয়র এএসপি মনিরুজ্জামান চৌধুরী ২০০৯ সালের ২৯ জানুয়ারি তদন্তভার গ্রহণ করেন। মনিরুজ্জামানের তদন্তে বেরিয়ে আসতে থাকে ঘটনার সঙ্গে জড়িত রাঘববোয়ালদের নাম, উলফার প্রসঙ্গ, একের পর এক স্পর্শকাতর ও চাঞ্চল্যকর বিষয়।

মনিরুজ্জামানের দাখিল করা সম্পূরক অভিযোগপত্রে আসামী হন সাবেক শিল্পমন্ত্রী ও জামায়াতের আমির মতিউর রহমান নিজামী এবং সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ ১১ জন প্রভাবশালী।

গত ৩০ জানুয়ারি চট্টগ্রামের স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক এস এম মুজিবুর রহমান অস্ত্র  চোরাচালান মামলায় নিজামী-বাবরসহ ১৪ জনকে মৃত্যুদণ্ড এবং অস্ত্র আইনে দায়ের হওয়া মামলায় যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও সাত বছরের সশ্রম কারাদন্ড দেন। 

রায়ে দেখা গেছে, আগে যাদের বিরুদ্ধে বিচার শুরু হয়েছিল তাদের মধ্যে মাত্র তিনজন এবং মনিরুজ্জামানের অভিযোগপত্রে অভিযুক্ত ১১ জন সাজা পেয়েছেন। খালাস পেয়েছেন বদনিসহ অন্যান্য সব আসামী।

রায় ঘোষণার পরদিন বাংলানিউজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বদনি বলেন, আম‍ার পক্ষে কি দশ ট্রাক অস্ত্র, এত অস্ত্র আনা সম্ভব ? আমি কিছু জানতামও না। এ ঘটনার সঙ্গে আমি জড়িত নয়। তারপরও শুধু শুধু আমাকে এ মামলায় আসামী করা হয়েছে। চার মাস জেলে ছিলাম। দশ বছর ধরে আমাকে কোর্টে গিয়ে হাজিরা দিতে হয়েছে। অনেক টাকাপয়সা খরচ হয়েছে। 

আবেগাপ্লুত কণ্ঠে বদনি বলেন, ‘বিনা দোষে আমি জেল খেটেছি। আমাকে যারা এই হয়রানি করেছে আমি তাদের বিচার চাই। আমি আল্লাহর কাছেও বিচার চাই, বান্দার কাছেও বিচার চাই।’

বাংলাদেশ সময়: ২৩১১ ঘণ্টা, মার্চ ২৩, ২০১৪

মারাত্মক ঝুঁকিতে উন্নয়নশীল দেশের স্যানিটেশন শ্রমিকরা
পাথরঘাটায় বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্তদের সান্ত্বনা দিলেন নওফেল
বৈষম্য বিলোপের লক্ষ্যে মঙ্গলবার বিশ্ব পুরুষ দিবস
মালিতে জঙ্গি হামলায় ২৪ সেনা নিহত
মেহেরপুরে পরোয়ানাভুক্ত ১২ আসামি গ্রেফতার, মাদক জব্দ


খুলনায় পরিবহন ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনেও দুর্ভোগে যাত্রীরা
বড় জয়ে গ্রুপ পর্ব শেষ করলো স্পেন
‘গুড নিউজ’ নিয়ে হাজির অক্ষয়-কারিনা
শাবিপ্রবিতে শূন্য আসনে ভর্তি শুরু
রাঙামাটিতে কমছে ম্যালেরিয়া রোগীর সংখ্যা, এখন আক্রান্ত ৬২৬