ঢাকার বাতাসের মান এখন গ্রহণযোগ্য পর্যায়ে

হোসাইন মোহাম্মদ সাগর, ফিচার রিপোর্টার | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকায় বাতাসের মান এখন গ্রহণযোগ্য পর্যায়ে। ছবি: ডিএইচ বাদল

walton

ঢাকা: তিলোত্তমা এই ঢাকাকে এর আগে কখনো একটিবারের জন্যও কোলাহলমুক্ত রাখেনি এর নাগরিকরা। এমনকি একা ফেলে চলেও যায়নি। তবে একুশ শতকের প্রথম মহামারি করোনা এসে বদলে দিয়েছে দৃশ্যপট। সংক্রমণ থেকে বাঁচতে অনেকেই ঢাকাকে একা ফেলে গ্রামে চলে গেছেন। আর যারা শহরে আছেন, তারাও ঘরবন্দি।
 

ঢাকার এই আকস্মিক বদলে যাওয়ায়, বদলে গেছে এর পরিবেশও। নাগরিক কোলাহল থেমে যাওয়ায় বাড়তে শুরু করেছে পাখিদের কিচিরমিচির। বন্ধ হয়ে গেছে কল-কারখানা, কেমিক্যালের দোকান আর কর্কশ হর্ন কিংবা ইঞ্জিনের শব্দ। শত্রু সৈন্যের মতো শহরের চারপাশে ঘিরে থাকা ইটভাটাগুলোর চুল্লি বন্ধ করে চলে গেছে শ্রমিকেরা। ফলে ঢাকার বাতাস থেকে কমতে শুরু করেছে দূষণ, পাল্টে গেছে দৃশ্যপট।

পৃথিবীতে বায়ু দূষণের দিক দিয়ে ঢাকাকে উপরের দিকেই রাখা হয়। তবে গত এক মাসের নাটকীয়তায় ঢাকার বাতাসে দূষণ কমে এসেছে। বলা যেতে পারে, ১০ বছরের মধ্যে এই মে মাসেই ঢাকার বাতাসের মান সবথেকে ভালো। আর তা এতটাই যে, তাকে নির্মল বলা যায়। কেননা এখন আর ঢাকার বায়ু থেকে মানুষের বায়ু দূষণে ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা নেই।

যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের বায়ুমান মনিটর বাতাসে ভাসমান সূক্ষ্ম বস্তুকণার মাত্রা পরিমাপ করে। একে সাধারণভাবে বলা হয় পিএম ২.৫। আর বর্তমানে ঢাকায় দূতাবাস প্রাঙ্গণের বস্তুকণাগুলোর ব্যাস ২ দশমিক ৫ মাইক্রন বা তার চেয়েও ছোট।

ঢাকায় অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্র কনস্যুলেটের তথ্য অনুযায়ী, রোববার (০৩ মে) বিকেল ৩টার পরিমাপ অনুযায়ী ঢাকায় বায়ুর মান ৮০ একিউআই (এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স) এবং পিএম ২.৫। এই সময় ঢাকার এই বায়ুমান গ্রহণযোগ্য বা ভালো। বায়ুর এই মান মানুষের ক্ষতি করে না। গত এক দশকে ঢাকায় বায়ুরমান বিকেল ৩টায় ৮৫ একিউআই এবং পিএম ২.৫ বা এত ভালো ছিল কি-না, তা গবেষণার বিষয়।

কনস্যুলেটের তথ্য অনুযায়ী, বাতাসের একিউআই মান ৫১ থেকে ১০০ এর মধ্যে হলে সেই বাতাসের মান গ্রহণযোগ্য। তবে কিছু দূষণকারী পদার্থ থাকার জন্য বায়ুদূষণের প্রতি অস্বাভাবিকভাবে স্পর্শকাতর খুব কম সংখ্যক মানুষের জন্য এটি মাঝারি ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। অর্থাৎ এই পরিসরে বাতাসে দূষণ খুব অল্প, যা একজন ব্যক্তির জন্য স্বাস্থ্য ঝুঁকি একদমই কম। তবে বাতাসের ওজন কণা ও সামান্য দূষণের জন্য কিছু মানুষ, যারা শারীরিকভাবে বেশ সংবেদনশীল, তারা স্বল্প পরিসরে শ্বাসকষ্টের লক্ষণগুলো অনুভব করতে পারেন।

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ঢাকাসহ সারাদেশে অঘোষিত লকডাউনের কারণে মানুষ অনেকটাই ঘরবন্দি হয়ে গেছে। ২৬ মার্চ সাধারণ ছুটি ঘোষণার পর বড় একটা অংশ গ্রামে চলে গেছেন। তারপর থেকে ঢাকার বায়ুমান ভালো হতে শুরু করে। ঢাকায় অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্র কনস্যুলেটের তথ্য অনুযায়ী ওইদিন (২৬ মার্চ) সকাল ১০টায় ঢাকার বায়ুমান ছিল ১৪৪ আর পিএম ২.৫। আর ৩৮ দিন পর এখন তা কমে ৮০ একিউআই এবং পিএম ২.৫।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৫৭ ঘণ্টা, মে ০৩, ২০২০
এইচএমএস/এইচএডি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: করোনা ভাইরাস
Nagad
লেজিসলেটিভ-সংসদ বিভাগের সচিব সস্ত্রীক করোনা আক্রান্ত
ঢাকায় ভারতীয় নতুন হাইকমিশনার হচ্ছেন বিক্রম দোরাইস্বামী
গণভবন থেকে সেনাকুঞ্জ কোথায় নেই তারা
ক্রেতাশূন্য দক্ষিণবঙ্গের সবচেয়ে বড় পশুর হাট ‘সাতমাইল’
মিরপুরে বিকেল হলেই বসে চোরাই মোবাইলের বাজার


ত্রিপুরায় ফের আসতে পারে লকডাউন: রতন লাল
সিঙ্গাপুরে করোনার মধ্যেও সুষ্ঠু জাতীয় নির্বাচন
পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে নেহরীন মোস্তফার পিপিই বিতরণ
বিরামপুরে করোনায় সাবেক সেনা সদস্যের মৃত্যু
বরিশালের হিজলায় ৩ লাখ মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল ধ্বংস