php glass

সুস্থ আছে তানিয়া খানের সেই মেছোবাঘের ছানা

বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন, ডিভিশনাল সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

তানিয়া খানের স্মৃতিবিজড়িত সেই মেছোবাঘের ছানা/ছবি: বাংলানিউজ

walton

মৌলভীবাজার: কেবল তার একদৃষ্টির চাহনি! চোখের দু’টো পাতাও পড়েনি একবারও। প্রায় মিনিট পাঁচেক বিশাল খাঁচার ভেতরে ক্যামেরা নিয়ে প্রবেশ করে মেছোবাঘটির দিকে তাক করা হলো। কিন্তু সে নির্বিকার। ভয় পাওয়া বা তেড়ে আসা কিছু করেনি।

এই মেছোবাঘটিই ছিল বন্যপ্রাণী গবেষক তানিয়া খানের সেবাশুশ্রুষা পাওয়া শেষ প্রাণী। ১২ দিন এই মেছোবাঘটিকে মায়ের মতোই যত্নআত্তি করে গেছেন তিনি। মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা আগেও এ ছানাটির জন্য তিনি নির্জন বারান্দায় বসে একটি বড় কাঠের টুকরো খোদাই করছিলেন। যাতে মেছোবাঘছানাটি খেলাধুলা বা ছোটাছুটি করতে পারে।

মৃত্যুর সময়টিতেও তানিয়ার পরিচর্যায় ছিল মেছোবাঘের এ ছানা। গত বুধবার (১৩ মার্চ) হৃদরোগজনিত কারণে ঘুমের মধ্যেই মারা যান বন্যপ্রাণী গবেষক তানিয়া খান। তারপর থেকে ব্যক্তি উদ্যোগে গড়ে ওঠা বন্যপ্রাণী সেবাকেন্দ্র ‘সোল’ (সেভ আওয়ার আনপ্রোটেক্টেড লাইফ) এর প্রাণীরা এতিম হয়ে পড়ে।

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা সূত্র থেকে জানা যায়, মৌলভীবাজারের মমরুজপুর এলাকায় শিশুদের হাতে ধরা পড়ে মেছোবাঘের ছানাটি। বাচ্চাটির বয়স তখন ৮-১০ দিন। বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ বাচ্চাটি ৪ মার্চ উদ্ধার করে তানিয়ার কাছে হস্তান্তরের প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। মেছোবাঘের ছানাটির কথা শুনেই তানিয়া খান ছানাটিকে তার নিজের কাছে রেখে লালন-পালনের জন্য রাজি হয়ে যান।

সেদিনই তিনি একটি বেসরকারি হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়ে মেছোবাঘের ছানাটিকে কোলে করে বাসায় ফেরেন। শুরু হয় তার অসুস্থতার মধ্যেও মেছোবাঘ ছানার যত্নআত্তি। তখনও ছানাটির চোখ ফোটেনি; ভালো করে হাঁটতে পারছিল না।

আলোচনার এক ফাঁকে তানিয়া খান বাংলানিউজকে বলেছিলেন- ‘আমি আর মেছোবাঘের ছানা দু’জনেই টিকে থাকার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছি। কে সারভাইব করবো জানি না...’। তিনি আরো বলেছিলেন, ‘এই মেছোবাঘের ছোট ছানাটিকে লালনপালন আমার জীবনের সবচেয়ে বড় উল্লেখ্যযোগ্য ঘটনা।’

আজ তানিয়া খান নেই; কিন্তু তার জীবনের শেষ দিনগুলোতে সেবাশুশ্রুষা পাওয়া শেষপ্রাণীটি টিকে আছে।

শুক্রবার (১৫ মার্চ) সকালে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের জানকিছড়া ক্যাম্পের লাউয়াছড়া রেসকিউ সেন্টারে গিয়ে দেখা গেলো তানিয়া খানের সেই মেছোবাঘের ছানাটি সুস্থ আছে এবং খাওয়া-দাওয়া করছে ঠিকমতো।

লাউয়াছড়া রেসকিউ সেন্টারের দায়িত্বে থাকা ঋষি বড়ুয়া বলেন, ‘বুধবার (১৩ মার্চ) সন্ধ্যা ৬টায় মেছোবাঘের ছানাটি এখানে এসেছে। সকাল-বিকেল নিয়মিত খাবার দিচ্ছি। দিনে শুটকি খেতে দিচ্ছি। রাতে তাজা কোয়েল পাখি খেতে দেবো।’

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের সিলেট বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) শামসুল মুহিত চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, ‘তানিয়া খানের মেছোবাঘের ছানাটিকে বড় করতে তুলতে আমরা প্রয়োজনীয় খাদ্যসহ সেবাযত্ন করে যাচ্ছি। এ প্রাণীটি আমাদের সবার আবেগের অংশ হয়ে গিয়েছে।’

বাংলাদেশ সময়: ০৮৪৫ ঘণ্টা, মার্চ ১৬, ২০১৯
বিবিবি/জেডএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: মৌলভীবাজার জীববৈচিত্র্য
বিয়ের আসরে বোমা হামলায় সব হারিয়ে নিঃস্ব বর
বিএনপি আদালতে ব্যর্থ, আন্দোলনেও ব্যর্থ: কাদের
ঈশ্বরদীতে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ     
মঙ্গলবার থেকে মশানিধনে চিরুনি অভিযান
ঝিনাইদহে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীসহ ২ জনের যাবজ্জীবন


আসছে ধারাবাহিক নাটক ‘বেমানান’
ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারে শরিয়তের বিধান
রাষ্ট্রীয় কাঠামো পরিবর্তনে নাশকতার টার্গেট
ব্যর্থ মন্ত্রীরা অর্বাচীনের মতো কথা বলছেন: ফখরুল
রুয়েট শিক্ষককে লাঞ্ছনার প্রতিবাদে মানববন্ধন