রং লুকানো অঞ্জন

971 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
অঞ্জন ফুল প্রথম দেখি ঢাকার রমনা পার্কে। বেশ কয়েক বছর আগের কথা। ফুল ছোট হলেও অদ্ভুত তার দ্যুতি।

ঢাকা: অঞ্জন ফুল প্রথম দেখি ঢাকার রমনা পার্কে। বেশ কয়েক বছর আগের কথা। ফুল ছোট হলেও অদ্ভুত তার দ্যুতি।

ভেবেছিলাম অনেক দূরের কোনো দেশ তার আদি আবাস। যদি এ অঞ্চলেরই ফুল হবে তবে এত অচেনা মনে হচ্ছে কেন। পরে অবশ্য ভুল ভাঙে। কারণ গাছটির জন্মস্থান আমাদের প্রতিবেশি দেশ ভারতের দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চল ও মায়ানমার।

ছবি তুলতে গিয়ে দেখি ফুলটি বারবারই রং লুকিয়ে ফেলছে। আসলে এ ফুলের রং অতি সূক্ষ্ম ধরনের। ঢাকায় রমনা পার্কের কয়েকটি গাছ ছাড়াও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বোটানিক্যাল গার্ডেন ও বলধা গার্ডেনেও দেখা যায়। তবে তুলনামূলকভাবে ততটা সহজলভ্য নয়। অঞ্জন ফুল আকারে ছোট হলেও চটকদারী বর্ণের কারণে খুব সহজেই নজরকাড়ে।



গাছ (Memecylon edule) প্রায় ৩ মিটার পর্যন্ত উঁচু হতে পারে। গড়নে ঝোপাল ও চিরসবুজ। পাতা লম্বায় ৬ থেকে ১০ সেন্টিমিটার ও প্রস্থে আড়াই থেকে ৫ সেন্টিমিটার। গাঢ়-সবুজ রঙের ও চার্ম। ফুল ফোটার মৌসুম বসন্ত থেকে গ্রীষ্ম অবধি। তবে বছরে আরো কয়েকবার ফুল ফোটে।

কাণ্ড ও ডালপালা জুড়ে ছোট ছোট নীলচে বেগুনি রঙের ফুলের থোকার রং সত্যিই মোহনীয়। প্রতিটি ফুলের গুচ্ছ ৫ মিলিমিটার চওড়া, ডালের গা থেকে বেরোয় এবং প্রায় সারা গাছ ছেয়ে ফেলে। ফলের রং প্রথমে লাল, পরে ধীরে ধীরে কালো রং ধারণ করে। আমাদের দেশে সাধারণত কলমেই চাষ।

বাংলাদেশ সময়: ০০৫১ ঘণ্টা, জুন ০৫, ২০১৪

সাইফের সিনেমার প্রচারণায় লারা
সুনামগঞ্জে চাচার হাতে ভাতিজা খুন
সৌন্দর্যের জগতে ফারহানা চৈতির বাধাহীন পথচলা
ফেনী ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষক-কর্মকর্তা নিয়োগ
ডিএনসিসির ৮ ভেন্যু থেকে করা হবে নির্বাচনী মালামাল বিতরণ


লালমনিরহাট কারাগারের জেলার আর নেই
খুবির মেডিক্যাল সেন্টারের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন
যশোরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ২ জন নিহত
বানরের খামচি খেয়ে যুব বিশ্বকাপ শেষ অজি ব্যাটসম্যানের
গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত রাজশাহীবাসী