php glass

সহজেই মরে (ডেড) অপ্পো! সার্ভিসে সাড়া নেই

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

কোনও কিছুতেই যেনো গা করছে না অপ্পো। যাচ্ছেতাই মানের সেট বাজারে ছেড়ে চটকদারিত্বে সাধারণ ক্রেতার পকেট কাটছে কিন্তু দিন কয়েক যেতে না যেতেই অপ্পোর গপ্প বড়ই করুণ হয়ে উঠছে ক্রেতাদের কাছে।

কোনও কিছুতেই যেনো গা করছে না অপ্পো। যাচ্ছেতাই মানের সেট বাজারে ছেড়ে চটকদারিত্বে সাধারণ ক্রেতার পকেট কাটছে কিন্তু দিন কয়েক যেতে না যেতেই অপ্পোর গপ্প বড়ই করুণ হয়ে উঠছে ক্রেতাদের কাছে।

ক্রেতারা নানা প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন, অভিযোগ দিচ্ছেন অপ্পোর কাছে। কিন্তু সমাধান পাচ্ছেন সামান্যই। ফলে অভিযোগের তালিকা লম্বা হচ্ছে।

অভিযোগকারীদের একজন যখন তখন অপ্পোর হ্যাং হয়ে যাওয়ার ভোগান্তি শেষে একে বাখওয়াজ বলেই তকমা দিয়েছেন।

অন্যজনের মাত্র দুই মাসের অভিজ্ঞতা অপ্পোর এ৩৭ নিয়ে। এরই মধ্যে তার সেটের ডিসপ্লের করুণ দশা। চার কোনায় নীল রঙা আলো, রাতের আঁধারে সে আলো আরও প্রকট হয়ে ওঠে।

একই এ৩৭ কিনে আরেকজনের অভিজ্ঞতা পুরোপুরি এক। নীল আলো ছড়িয়ে পড়েছে অপ্পোর কোনায় কোনায়।

মোটেই গত ১৪ আগস্ট একটা অপ্পো কিনেছেন একজন ক্রেতা। সেটিও এ৩৭। এই ক্রেতা অবশ্য নীল রঙের কথা বলেননি। তিনি জানিয়েছেন ডিসপ্লের চার কোনায় রঙটা ফ্যাকাশে হয়ে গেছে।

গত এপ্রিলে অপ্পো এফ১ কিনেছেন একজন। ৬ আগস্ট এসে তিনি পড়লেন নেটওয়ার্কিংয়ের ঝামেলায়। ফোন নেটওয়ার্ক শনাক্ত করতে পারছে না। অন্য মোবাইল ফোন অপারেটরের সিম পাল্টালেন গ্রাহক। তাতেও একই সমস্যা। এবার নিজের সিমটি অন্য সেটে ঢুকিয়ে দেখলেন দিব্যি নেটওয়ার্ক ঠিকঠাক। মজার ব্যাপার হচ্ছে এই গ্রাহক সার্ভিস সেন্টারে যোগাযোগ করলে তারা জানালেন মাদারবোর্ড পাল্টাতে হবে। এরপর থেকে মাসাধিককাল তার অপ্পো সার্ভিস সেন্টারেই পড়ে রয়েছে।

আরো একজন জানিয়েছেন তার এ৩৭ এর গল্প। তিনি কিনেছেন জুলাইয়ে। আগস্টের শেষভাগে একমাস যেতে না যেতেই নেটওয়ার্ক মেলে না। অতপর সিম পাল্টাও তাতেও ফল নেই। এরপর্যায় তার অপ্পো পুরোই মরে (ডেড) গেলো!  ছুটে গেলেন সার্ভিস সেন্টারে। সব ধরনের সফটওয়্যার আপডেট করা হলো। কিন্তু অবস্থা তথৈবচ। তার ফোনটিও সার্ভিস সেন্টারে পরে রয়েছে। ভীষণ বিরক্ত এই ক্রেতা। বললেন, ফোন নিয়ে এর চেয়ে বাজে অভিজ্ঞতায় আর কোনও দিনই পড়েননি।

আরেকজন লিখেছেন তার ফোন কোনও আপডেট নেয় না। ক্যামেরা ঠিক নেই। তার অপ্পো কেবলই হ্যাংড হয়।

আরেকজনের আছে একটি এফ১এফ অপ্পো। ভালোই চলে আসছিলো। কিন্তু হঠাৎ লক্ষ্য করলেন কন্টাক্ট লিস্ট পুরোই ফাঁকা। এরপর নেটওয়ার্ক না পাওয়ার সমস্য।

আরেক ক্রেতা দিনে দিনেই পড়েছেন অপ্পোর বিপাকে। কিনেছেন একটি এফ১ প্লাস। ঘরে নিয়েই দেখেন ক্রিনে একটা স্ক্র্যাচ। কেনার সময় খেয়াল করে দেখেননি। কিন্তু অপ্পো তার ফোনটি আর পাল্টিয়েও দেয়নি। বেচার সেই নিয়েই মনোকষ্টে রয়েছেন।

প্রিয় পাঠক, অপ্পো নিয়ে এমন আরও শত শত অভিযোগ রয়েছে। এই মোবাইল সেট ব্যবহারে আপনার অভিজ্ঞতা (ইতিবাচক কিংবা নেতিবাচক) বাংলানিউজকে জানান [email protected]  এই ঠিকানায়।

বাংলাদেশ সময় ১৭০৬ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ০৭, ২০১৬
এমএমকে

আসছে শীত, বাড়ছে খেজুরগাছের পরিচর্যা
ছোটপর্দায় আজকের খেলা
৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা, বখাটে আটক
মানহীন ইনসুলিনে ঝুঁকিতে রোগীরা
ভৈরবে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় পথচারীর মৃত্যু


১৫ নভেম্বর পর্যন্ত দিল্লির সব স্কুল বন্ধ ঘোষণা
বানিয়াচংয়ে ফজলু হত্যার ঘটনায় আরেকজন গ্রেফতার
বগুড়ায় শিশু ধর্ষণের অভিযোগে পান ব্যবসায়ী আটক
বেনাপোলে রজনী ক্লিনিকে অবহেলায় নবজাতক মৃত্যুর অভিযোগ
পটুয়াখালীতে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী দুইজনের বিবাহ দিলো প্রশাসন