সাত বছরের আক্ষেপ ঘোচানোর অপেক্ষায় মুশফিক

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: শোয়েব মিথুন

walton

প্রথমবারের মতো বিপিএলের ফাইনালে খেলার অপেক্ষায় মুশফিকুর রহিম। শুধু বিপিএল নয়, ঘরোয়া কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনালে এই প্রথম খেলতে যাচ্ছেন এই ডানহাতি। ২০১২-২০১৯, অর্থাৎ সাত বছরের শিরোপা আক্ষেপ কি ঘোচাতে পারবেন চলতি আসরের সেরা এই ব্যাটসম্যান?

শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ফাইনালে মুখোমুখি হবে খুলনা টাইগার্স ও রাজশাহী রয়্যালস। পুরো টুর্নামেন্ট জুড়েই দারুণ ক্রিকেট খেলা সেরা দুটি দলই ফাইনাল খেলছে। লিগ পর্বে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে থেকেই শেষ করেছিল খুলনা। অন্যদিকে দ্বিতীয় স্থানে থেকে শেষ করেছিল রাজশাহী।

তবে ফাইনালে ওঠার গল্পটা ছিল দুই রকম। প্রথম কোয়ালিফায়ারে রাজশাহীকে ২৭ রানে হারিয়ে সরাসরি ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করে খুলনা। অন্যদিকে খুলনার কাছে বাজেভাবে পরাজিত হয় রাজশাহী। পরে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারেও রাজশাহী প্রায় হারতে বসেছিল। কিন্তু অান্দ্রে রাসেলের অতিমানবীয় ইনিংসের কল্যাণে শেষ পর্যন্ত চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সকে ২ উইকেটে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে।

এদিকে ফাইনালের আগে শেষবারের মতো নিজেদের ঝালিয়ে নিয়েছে খুলনা। মাঠে সবাই নিজেদের সেরাটা দিতে প্রস্তুত। অবশ্য দল হিসেবে দারুণ ছন্দে রয়েছে খুলনা। আর ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সের বিচারে এগিয়ে আছেন মুশফিকুর রহিম। ৪৭০ রান নিয়ে শীর্ষ রান সংগ্রাহকের তালিকায় শীর্ষেই রয়েছেন খুলনার অধিনায়কতবে এর চেয়েও বড় বিষয় হলো প্রথমবারের মতো বিপিএলের ফাইনাল খেলছেন এই অভিজ্ঞ ডানহাতি। ফলে বিপিএল’র শিরোপা জয়ের আক্ষেপ ঘোচানোর সুযোগ তার সামনে।

রাইলি রুশোও রয়েছেন দারুণ ছন্দে। রান সংগ্রাহকের তালিকায় মুশফিকের পরেই আছেন খুলনার এই ব্যাটসম্যান। তাই ব্যাটিং নিয়ে চিন্তার কোনো কারণ নেই। অন্যদিকে খুলনার বোলিং বিভাগও বেশ শক্তিশালী। রাজাশাহীর বিপক্ষে দারুণ বোলিং করেছেন মোহাম্মদ আমির। রবি ফ্রাইলিংকও হয়ে উঠতে পারেন চিন্তার কারণ। শীর্ষ উইকেট শিকারের তালিকায় শীর্ষ দশের এই দুই বোলার ছাড়াও রয়েছেন শহিদুল ইসলাম। সবমিলিয়ে খুলনা লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত।

অন্যদিকে বিপিএলের শুরু থেকেই ধারাবাহিক ক্রিকেটে খেলে আসছে রাজশাহী। বিশেষ করে দুই ওপেনার লিটন দাস ও আফিফ হোসেন ধারাবাহিক ভাবেই ভালো করছেন। যদিও শেষ দুই ম্যাচে ব্যাটে রান পাননি দুই ওপেনার। তবে এই দুজনের ব্যাটেই এর আগে দারুণ সূচনা পেয়েছে রাজশাহী। বলতে গেলে প্রায় প্রতি ম্যাচেই জয়ের ভিত্তি গড়ে দেন তারাই। বিশেষ করে লিটন দাঁড়িয়ে গেলে রাজশাহীর স্কোর বোর্ডে বড় রান আসা স্বাভাবিক ঘটনা।

রাজশাহীর স্কোয়াডে প্রতিপক্ষের জন্য সবচেয়ে ভয়ের নাম তাদের অধিনায়ক আন্দ্রে রাসেল। পুরো ম্যাচ একাই ঘুরিয়ে দেয়ার মতো সামর্থ্য রয়েছে তার। এই ক্যারিবীয় অলরাউন্ডারের ব্যাটে ভর করেই ফাইনালের টিকিট পায় রাজশাহী। তবে দলটির জন্য চিন্তার কারণ হবে তাদের বোলিং বিভাগ। ১২ উইকেট নিয়ে শীর্ষ উইকেট শিকারির তালিকায় দশ নম্বরে রয়েছেন মোহাম্মদ ইরফান। আর ১৩ নম্বরে রয়েছেন রাসেল। এছাড়া রাজশাহীর বোলিংয়ে তেমন কোনো সাফল্য নেই। তবে ম্যাচটি ফাইনাল আর টি-টোয়েন্টি বলেই শিরোপা জয়ের আশা করতেই পারে রাজশাহী।

মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হবে ফাইনাল ম্যাচটি।

বাংলাদেশ সময়: ২১৩৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৬, ২০২০
আরএআর/এমএইচএম

গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি না মানার অভিযোগও এসেছে: কাদের
চাষিদের জন্য বিনা ভাড়ায় আম পরিবহন শুরু 
ইএসপিএন ক্রিকইনফোর স্বপ্নের ওয়ানডে একাদশে সাকিব
রামেক হাসপাতালের আইসিইউতে করোনা রোগীর মৃত্যু
কুড়িগ্রামে বাসের ধাক্কায় পথচারী নিহত


সারা দেশ কি সরকার গোরস্থান বানাতে চায়: রিজভী
পঞ্চগড়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ইজিবাইকচালকের মৃত্যু
সাইকেলের ধাক্কায় পড়ে গেলেন বাইকের চালক
যাত্রী স্বল্পতায় মঙ্গলবারের সব ফ্লাইট বাতিল বিমানের
আসামে ভূমিধসে ২০ জন নিহত