রংপুরের কাছে হেরে গেল মাশরাফির ঢাকা

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: শোয়েব মিথুন

walton

আগেই শেষ চার নিশ্চিত হয়ে যাওয়ায় ম্যাচটা ঢাকা প্লাটুনের জন্য ছিল শীর্ষস্থান দখলের লড়াই। রংপুর রেঞ্জার্সকে অল্পতে থামিয়ে দিয়ে জয়ের আশাও জাগিয়েছিল দলটি। কিন্তু ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় পারলেন না মাশরাফিরা।

বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ৩৯তম ম্যাচে শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে শুরুতে ব্যাট করতে নেমে লুইস গ্রেগরি ও আল-আমিনদের ব্যাটে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৪৯ রানের সংগ্রহ পেয়েছিল রংপুর। জবাবে সমান উইকেট হারালেও ১৩৮ রানেই শেষ হয় ঢাকার ইনিংস।

রংপুরের ছুড়ে দেওয়া ১৫০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৯ রানেই ওপেনার এনামুল হকের উইকেট হারায় ঢাকা। এরপর তামিম ইকবাল ও মেহেদী হাসান মিলে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তুললেও রান তোলার গতি আহামরি ছিল না। 

ছবি: শোয়েব মিথুনদলকে ৫৫ রানে রেখে মেহেদী (২০) বিদায় নেওয়ার পর ঢাকার আশা হয়ে ছিলেন তামিম। কিন্তু ৩৩ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ৩৪ রান করে এই বাঁহাতি ওপেনার বিদায় নেওয়ার পর কার্যত হারের মুখে পড়ে যায় ঢাকা। এরপর মমিনুল হকের ব্যাট থেকে আসে ১৮ রান। 

৮৮ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলা ঢাকার পরবর্তী ব্যাটসম্যানদের ব্যাটে জয়ের কোনো আবহ দেখা যায়নি। শাদাব (১৬) তবু কিছুটা চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু আসিফ আলী (১), আরিফুল হক (১), ফাহিম আশরাফ (৩) ব্যর্থ হলে সব আশাই শেষ হয়ে যায়।

জেতার জন্য শেষ ওভারে ঢাকার দরকার ছিল ২৩ রান। লুইস গ্রেগরির করা ওভারের প্রথম বলটি হলো নো বল আর সঙ্গে মাশরাফির ব্যাট থেকে এলো বাউন্ডারি। পরের বলে ওয়াইড। এরপর লেগ বাই থেকে এলো আরও ৪ রান। কিন্তু বাকি ৪ বল থেকে মাত্র ১ রান নিতে পারেন ঢাকা অধিনায়ক (১২*)। ফলাফল ১১ রান আগেই থামে ঢাকার ইনিংস।

ছবি: শোয়েব মিথুনবল হাতে রংপুরের হয়ে ২ উইকেট করে তুলে নিয়েছেন জুনায়েদ খান, তাসকিন আহমেদ এবং আরাফাত সানি। আর ১টি করে উইকেট ঝুলিতে পুরেছেন মোস্তাফিজুর রহমান ও লুইস গ্রেগরি।

এর আগে ঢাকার আমন্ত্রণে শুরুতে ব্যাট করতে নেমে মাশরাফি আর মেহেদীর নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে চাপে পড়ে যায় রংপুর। দুই পেসার মিলে টানা ৮ ওভার বল করার পথে তুলে নেন রংপুরের শেন ওয়াটসন (১০) ও ক্যামেরন ডেলপোর্টের (৬) উইকেট। এর মধ্যে নিজের ৪ ওভারে মাত্র ১৭ রান খরচ করেন মাশরাফি। 

এদিকে রংপুরের আরেক ওপেনার মোহাম্মদ নাঈমও (১৭) দ্রুত বিদায় নেওয়ার পর ঘুরে দাঁড়ায় রংপুর। আল-আমিনকে নিয়ে ৪৯ রানের জুটি গড়েন গ্রেগরি। তবে ৩২ বলে ৫ চার ও ২ ছক্কায় ৪৬ রানের ইনিংস খেলে ঢাকার থিসারা পেরেরার শিকার হন তিনি।

ছবি: শোয়েব মিথুনগ্রেগরি বিদায় নেওয়ার পর ফের ঢাকার বোলিং তোপের সামনে পড়ে যায় রংপুর। যদিও দলকে ১৪০ রানে পৌঁছে দেওয়ার আগে আল-আমিনের ব্যাট থেকে আসে ২৪ বলে ৩৫ রান। কিন্তু ২৮ রানের ইনিংস খেলতে জহুরুল ইসলাম ব্যয় করেন ২৪ বল। এরপর তাসকিন, মোস্তাফিজ আর আরাফাত সানি কেউই রানের দেখা পাননি।

বল হাতে ঢাকার থিসারা পেরেরা নিয়েছেন ৩ উইকেট। ২ উইকেট গেছে শাদাবের দখলে। আর ১টি করে উইকেট ঝুলিতে পুরেছেন মাশরাফি ও মেহেদী।

ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হয়েছেন রংপুরের গ্রেগরি।

ছবি: শোয়েব মিথুনএই জয়ে ১২ ম্যাচ খেলা রংপুরের পয়েন্ট হলো ১০। রংপুরের প্লে-অফের আশা অবশ্য আগেই শেষ হয়ে গেছে। আর শীর্ষস্থান দখলের সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে না পারা ঢাকার পয়েন্ট এখন ১১ ম্যাচে ১৪। হাতে অবশ্য এখনও ১ ম্যাচ আছে মাশরাফির দলের।

বাংলাদেশ সময়: ১৮১৫ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১০, ২০২০
এমএইচএম

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: ক্রিকেট বঙ্গবন্ধু বিপিএল ২০১৯
রাঙামাটিতে মাস্ক না পরায় ১৭ জনকে জরিমানা
বাস ভাড়া বাড়ার প্রতিবাদে খুলনায় মানববন্ধন
৪ মাস চিকিৎসার পর উহানে করোনা আক্রান্ত চিকিৎসকের মৃত্যু
সরকারি চাকুরেদের এসিআর দাখিলের সময় বাড়লো ২ মাস
ইউনাইটেড হাসপাতালে আগুনের ঘটনায় প্রতিবেদন চেয়েছেন হাইকোর্ট


করোনায় কপাল খুলেছে নওগাঁর লেবু চাষিদের 
মাঠে ফেরার পরিকল্পনা করে ফেলেছে বিসিবি
খাবারের কারখানায় তৈরি হচ্ছে নকল স্যানিটাইজার!
১৬ হাজার ২৭৬ কোটি টাকার ১০ প্রকল্প অনুমোদন
ময়মনসিংহে চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীসহ ৬৩ জন করোনায় আক্রান্ত