উৎসবের পরিবর্তে দুর্যোগ প্রতিরোধই বড় করে দেখছে ছায়ানট

ফিচার রিপোর্টার | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছায়ানট

walton

ঢাকা: করোনা ভাইরাসজনিত দুর্যোগের সময় রমনার বটমূলে বাংলা নববর্ষ উদযাপন না করে বরং বিপন্ন ও দুস্থ মানুষকে অন্ন যোগানোর কাজে যুক্ত হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ছায়ানট।

বুধবার (১ এপ্রিল) রাতে ছায়ানটের সাধারণ সম্পাদক লাইসা আহমদ লিসা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে ছায়ানট কর্তৃপক্ষ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে বাঙালির সবচেয়ে বড় প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ। রমনার বটমূলে ঐতিহ্যের আয়োজন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই প্রস্তুত হচ্ছিল ছায়ানট। কিন্তু বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্ব যখন চরম বিপর্যয়ের সম্মুখীন, তখন অনুষ্ঠান আয়োজনের পরিকল্পনা ত্যাগ করে দূর্গত জনগণের পাশে দাঁড়নোকেই বেশি জরুরি মনে করছে ছায়ানট।

ইতোমধ্যে সেই লক্ষ্যে কাজ শুরু হয়েছে উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এবারের মহান স্বাধীণতা দিবসের পর থেকে প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসেবে দুস্থ শিশু, কর্মহীন দিনমজুরসহ দরিদ্রদের ত্রাণ সহায়তায় যুক্ত হয়েছে ছায়ানট।

এছাড়া করোনা ভাইরাসের জন্য এই মহা সংকটকালে ব্যক্তিপর্যায়ে থেকে পারিবারিক ও সামাজিকভাবে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি অনুযায়ী চলা এবং নিজে নিরাপদ থেকে সবাইকে নিরাপদে রাখতেও এই বিজ্ঞপ্তিতে অনুরোধ জানায় ছায়ানট কর্তৃপক্ষ।

বাঙালির আপন সত্তার স্বাধীনতা আকাঙ্ক্ষা আর মানবকল্যাণের ব্রত নিয়ে ১৯৬১ সালে জন্ম হয় ছায়ানটের। সংগঠনটি বরাবরই সমাজের প্রতি দায়বদ্ধ। ১৯৬৭ সাল থেকে প্রতিবছর রমনার বটমূলে পহেলা বৈশাখের ভোরে বাংলা নববর্ষকে স্বাগত জানিয়ে আসছে এই সংগঠন। এই উৎসব ১৯৭১ সালে দেশকে শত্রুমুক্ত করার সশস্ত্র সংগ্রামের সময় ছাড় আর কখনোই বন্ধ হয়নি।

বাংলাদেশ সময়: ০৪০৭ ঘণ্টা, এপ্রিল ০২, ২০২০
এইচএমএস/এএটি

করোনায় মৃত বিএনপি নেতার মরদেহ দাফন করলো ছাত্রলীগ
ফিরতে হচ্ছে প্রকৃতির কাছে, তুলসী পাতা আছে তো ঘরে?
রোববার চট্টগ্রাম থেকে ৩ ট্রেনে যাত্রী যাবেন ১০৪০ জন
করোনা: জনপ্রতিনিধিদের আরও বেশি সম্পৃক্ত করার নির্দেশ
পাথরঘাটায় হরিণের মাথা-চামড়া জব্দ


রাজনীতির ইতিহাসে কালজয়ী জিয়া: এলডিপি
ফেরিঘাট দেখে সারাদেশ মূল্যায়ন করা যাবে না
করোনাকালে বাল্যবিয়ের চেষ্টা, বর-কনের অভিভাবকের জরিমানা
বশেমুরবিপ্রবির উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের করোনা শনাক্ত
পাইলটের করোনা, মাঝপথ থেকে ফিরলো এয়ার ইন্ডিয়ার ফ্লাইট