php glass

‘পোড়া মৃতদেহের রাজনীতি ও সময়ের গল্প’

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

পোড়া মৃতদেহের রাজনীতি ও সময়ের গল্প গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন/ছবি: বাংলানিউজ

walton

ঢাকা: ‘পোড়া মৃতদেহের রাজনীতি ও সময়ের গল্প’ বিষয়টি খুব সময়পযোগী বললে ভুল হবে না। তাই নিশ্চিত ভাবেই বলা যায়, এ শিরোনামে প্রকাশিত কোনো গ্রন্থে সময়ের প্রতিচ্ছবিই ধরা দেবে। ‘পোড়া মৃতদেহের রাজনীতি ও সময়ের গল্প’ একটি গ্রন্থেরই নাম। সুইডেন প্রবাসী ‘সাব্বির খান’ যেটির লেখক।

বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (এনএসইউ) সিন্ডিকেট হলে শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে গ্রন্থটির মোড়ক উন্মোচন করলেন বিশিষ্টজনরা। 

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এনএসইউ’র উপাচার্য অধ্যাপক আতিকুল ইসলাম, কথাসাহিত্যিক ও দৈনিক কালের কণ্ঠের সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, এনএসইউ’র ডেপুটি ডাইরেক্টর বেলাল আহমেদ, সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ এ আরাফাত।
 
গ্রন্থাটির মোড়ক উন্মোচনের পর সাব্বির খান বলেন, দেশের বাইরে থেকে দেশ দেখাটা হচ্ছে স্যাটেলাইটের মতো করে দেখা। তারই প্রতিচ্ছবি ওঠে এসেছে ‘পোড়া মৃতদেহের রাজনীতি ও সময়ের গল্প’ গ্রন্থাটিতে। এটা রেফারেন্স হিসেবে অনেকেই ব্যবহার করতে পারবেন।
 
এনএসইউ’র উপাচার্য আতিকুল ইসলাম বলেন, এদেশে একটা শ্রেণী আছে, যারা ইনটেলেকচ্যুয়াল। দেশের গানের সঙ্গে, বাংলা গানের সঙ্গে, লালনগীতির সঙ্গে, ইতিহাস সংস্কৃতির সঙ্গে, এদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। এরা শুধু ডিগ্রি অর্জন করেছেন। তারা নিজেদের বিরাট ধারা ‘আঁতেল’ মনে করেন। আর একটা শ্রেণী যারা নিজেদের মনে করেন আমরাই প্রকৃত মুসলিম। এরা এ ধ্যান-ধারণা নিয়ে সৌদি আবর যান। ওখানে ওই ধারারই ডিকটেশন নেন। দেশের জন্য এ শ্রেণীই বেশি ক্ষতিকর। কেননা, ইসলামের দোহাই দিয়ে রাজনীতি করার মতো আন ইসলামিক কাজ সারা দুনিয়ায় আর একটাও নেই।
 
আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘পোড়া মৃতদেহের রাজনীতি ও সময়ের গল্প’ গ্রন্থাটির মত আরো অনেক গ্রন্থের দরকার। কেননা, এ ধরনের গ্রন্থ তরুণ প্রজন্মের মাঝে চিন্তার খোরাক জোগাবে।
 
ইমদাদুল হক মিলন বলেন, স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশকে তছনছ করে দিতে এখনো কিছু মানুষ কাজ করে যাচ্ছে। যারা ’৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করেছিল। ‘পোড়া মৃতদেহের রাজনীতি ও সময়ের গল্প’ গ্রন্থাটিতে স্বাধীনতা পরবর্তী বিভিন্ন সময়ে দেশের নানা পট পরিবর্তন, ঘটনা নিয়ে লেখা হয়েছে। এটা অবশ্যই রেফারেন্স হিসেবে খুব কাজে দেবে।
 
১৯৬৬ সালের ৩০ জুলাই জন্মগ্রহণ করেন সাব্বির খান। তার পৈত্রিক নিবাস গোপালগঞ্জ। তিনি ১৯৮৪ সালে নারায়ণগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং ১৯৮৬ সালে সরকারি তোলারাম কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। ছিলেন ছায়ানট সংগীত বিদ্যায়াতনে নজরুল সংগীতের ছাত্র। স্বৈরশাসক বিরোধী আন্দোলনের সময় হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ সরকারে রোষানলে পড়ে তিনি দেশত্যাগে বাধ্য হন। এরপর সুইডেন সরকারের রাজনৈতিক আশ্রয় নেন। ২০০২ সালে সুইডেনের ওরেব্রু ইউনিভার্সিটি থেকে কম্পিউটার সায়েন্সে ডিগ্রি লাভ করেন সাব্বির খান। বর্তমানে তিনি কালের কন্ঠ পত্রিকায় স্ক্যান্ডিনেভিয়ান করেসপন্ডেন্ট হিসেবে সম্পৃক্ত রয়েছেন।
 
ব্যক্তিগত জীবনে সাব্বির খান রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও কলামিস্ট হিসেবে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে গ্রহণযোগ্যতায় সমৃদ্ধ। দ্য হাফিংটন পোস্ট, আনন্দবাজার পত্রিকা, জনকণ্ঠ, ইত্তেফাক, বাংলাদেশ অবজারভার, দ্য এশিয়ান এইজ ও কালের কণ্ঠ পত্রিকা এবং বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকায় তিনি নিয়মিত লেখেন। এছাড়া সুইডেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভূক্ত সাংবাদিক হিসেবে ‘দ্য ফরেন প্রেস এসোসিয়েশন-সুইডেন’ এবং ‘সুইডিশ পেন’ এর সদস্যও সাব্বির খান।
 
বাংলাদেশ সময়: ২০১৬ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৭, ২০১৭
ইইউডি/এসএইচ

আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দরের সম্ভাবনা বহু দূরে চলে গেছে 
রাস্তায় আন্দোলন করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা যাবে না
বাংলাদেশে বিনিয়োগের পরিবেশ এখন ভালো: গণপূর্তমন্ত্রী
মুক্তি পেল দণ্ডিত ১২১ শিশু
বড় ভাইকে গলা কেটে হত্যা, সৎভাই আটক


উন্মোচিত হলো নুমাইর আতিফ চৌধুরীর ‘বাবু বাংলাদেশ’
চুরির দায়ে বেনাপোল কাস্টমস হাউজের ৫ সদস্য বরখাস্ত 
বিএনপি জাতীয়তাবাদী শক্তির প্লাটফর্ম: গয়েশ্বর
রাজধানীতে র‍্যাবের অভিযানে আটক ২
ভয়াল ১২ নভেম্বর