স্পোর্টিং উইকেটে পেসাররা পাবে বাড়তি সুবিধা

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ইন্দোরে পেসারদের জন্য থাকবে বাড়তি সুবিধা

walton

দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথমটিতে আগামী ১৪ নভেম্বর মাঠে নামবে বাংলাদেশ-ভারত। ইন্দোরের হলকার ক্রিকেট স্টেডিয়ামে নামবে দুই দল। এই ভেন্যুতে এখন পর্যন্ত একটি টেস্ট ম্যাচই অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২০১৬ সালের অক্টোবরে ইন্দোরের এই স্টেডিয়ামে নেমেছিল ভারত-নিউজিল্যান্ড। ৩২১ রানের বিশাল ব্যবধানে জয় পায় বিরাট কোহলির ভারত।

আইসিসির প্রকাশিত টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে বোলারদের তালিকায় ২৫ জনের ছয়জনই ভারতীয়। চার নম্বরে আছেন পেসার জাসপ্রিত বুমরাহ। দশে আছেন স্পিনার রবীচন্দ্রন অশ্বিন, ১৪’তে রবীন্দ্র জাদেজা, ১৫’তে মোহাম্মদ শামি। ২২ নম্বরে পেসার ইশান্ত শর্মা আর ২৪ নম্বরে আছেন আরেক পেসার উমেস যাদব।

এই ছয় বোলারই আছেন বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে। কঠিন এক চ্যালেঞ্জই নিতে হবে সফরকারী ব্যাটসম্যানদের। বোলারদের ওই তালিকায় বাংলাদেশের তিন জন আছেন শীর্ষ ২৫-এ। ২০ নম্বরে সাকিব, ২৩ নম্বরে তাইজুল আর ২৫ নম্বরে মিরাজ। সাকিবের এই সিরিজে খেলা হচ্ছে না।

গত চার বছরে হোম সিরিজ ভারতীয় পেসারদের স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে। পেসারদের সুবিধার কথা মাথায় রেখেই তাদের উইকেট দেওয়া হচ্ছে। ২০১৭ সালে সবুজ ঘাসে মোড়ানো উইকেটে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলে ভারত দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ভালো করেছিল। ভারতীয় পেসাররা সুবিধা পেলে সেখানে বাংলাদেশও পিছিয়ে থাকবে না। টিম বাংলাদেশের স্কোয়াডে আছেন মোস্তাফিজুর রহমান, আল-আমিন হোসেন, আবু জায়েদ রাহি আর এবাদত হোসেনরা।

ঘরোয়া ক্রিকেট রঞ্জি ট্রফিতে সবুজ ঘাসে মোড়ানো উইকেট দেওয়া হলেও মধ্যপ্রদেশ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান কিউরেটর সামান্দার সিং চৌহান গত চার বছর ধরে তৈরি করেছেন লাল মাটির উইকেট। ক্রিকেট বোদ্ধাদের মতে, লাল মাটির উইকেট পেসারদের জন্য সত্যিকারের স্বর্গরাজ্য। এই উইকেটে নিমিষেই পেসাররা অতিরিক্ত বাউন্স আদায় করে নিতে পারেন। ব্যাটসম্যানদের ফাঁদে ফেলতে পেসারদের সহায়তা করে লাল মাটির উইকেট। তবে, স্ট্রোকমেকার ব্যাটসম্যানদের জন্যও এই উইকেট যথেষ্ট সহায়তা করবে। স্পিনাররা চাইলেই বাড়তি সুবিধা পাবে এই উইকেটে। লাল মাটির উইকেটকে বলা হচ্ছে পুরোপুরি স্পোর্টিং উইকেট।

গতবার রঞ্জির ফাইনালে বিদর্ভ আর দিল্লি মুখোমুখি হয়েছিল এই স্পোর্টিং উইকেটে। সেই ম্যাচে দুটি সেঞ্চুরির পাশাপাশি ব্যাটসম্যানরা সাতটি ফিফটির দেখা পেয়েছিলেন। ২০১৭ সালের রঞ্জির ফাইনালে মুখোমুখি হয় গুজরাট আর মুম্বাই। স্পোর্টিং এই উইকেটে চারদিনের ম্যাচের শেষ সেশনে খেলা গড়িয়েছিল।

ভারতীয় গণমাধ্যমে জানানো হয়, টিম ইন্ডিয়ার বিশেষ অনুরোধ ছিল ইন্দোরের উইকেট তাদের মতো করে তৈরির। কিন্তু মধ্যপ্রদেশ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন সেই অনুরোধ রাখেনি। ক্রিকেট বোদ্ধাদের মতে, এই স্পোর্টিং উইকেটে মূলত লড়াই হবে স্পিন নির্ভর বাংলাদেশ আর পেস নির্ভর ভারতের বোলারদের। প্রধান কিউরেটর সামান্দার সিং চৌহান জানালেন, ‘দুই দলের সমান সুযোগ থাকবে। তবে, যতই দিন যাবে উইকেট আরও শক্ত হবে।’

উল্লেখ্য, হোম সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ভারতীয় পেসাররা নিয়েছেন ২৬ উইকেট, যেখানে ভারতীয় স্পিনাররা তুলে নিয়েছেন ৩৪ উইকেট।

বাংলাদেশ সময়: ১৫০৭ ঘণ্টা, নভেম্বর ১২, ২০১৯
এমআরপি

Nagad
সরকারের চরম অবহেলায় করোনা ছড়িয়েছে: মির্জা ফখরুল
গোপালগঞ্জে বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার
সাবেক অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নান আর নেই
ধামইরহাটে গৃহবধূর আত্মহত্যা
অনলাইন শিক্ষায় সেরা দশে নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি


করোনা আক্রান্ত চিত্রনায়িকা তমা মির্জা
চিলাহাটি-হলদীবাড়ি রেললাইন স্থাপন শুরু
সব সঞ্চয় হারিয়ে ফ্লাট বিক্রি করেছিলেন এন্ড্রু কিশোর
জন্মদিনে ৩৫ শিশুর অস্ত্রোপচারের দায়িত্ব নিলেন গাভাস্কার
মালদ্বীপ থেকে ফিরলেন আটকে পড়া ১৫৭ বাংলাদেশি