php glass

আ’লীগ আর মুক্তিযুদ্ধের চেতনার দল নয়: মওদুদ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বক্তব্য রাখছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। ছবি: বাংলানিউজ

walton

ঢাকা: আওয়ামী লীগ এখন আর মুক্তিযুদ্ধের চেতনার দল নয় মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, তারা নিজেরাই বলছে তাদের দলে অনুপ্রবেশকারীতে ভরে গেছে। অর্থাৎ মুক্তিযোদ্ধা নেই। তাই ধরে নিতে হবে আওয়ামী লীগ এখন আর স্বাধীনতার চেতনার প্রতিনিধিত্ব করেছে না। বরং স্বাধীনতার চেতনাকে ভুলুণ্ঠিত করে দিয়ে সম্পূর্ণ উল্টোভাবে সরকার এখন নিজেদের পরিচালনা করছে।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ৭ নভেম্বর উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

মওদুদ বলেন, আজকে তারা স্বাধীনতার চেতনার নতুন সজ্ঞা বানিয়েছে। আজকে স্বাধীনতার চেতনা মানে হলো একদলীয় শাসন। স্বাধীনতার চেতনা মানে হলো ভোট চুরি করে ক্ষমতা দখল করে রাষ্ট্র পরিচালনা করা। স্বাধীনতার চেতনা হলো বিচার বিভাগের স্বাধীনতা থাকতে পারবে না। আইনের শাসন থাকতে পারবে না। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা থাকতে পারবে না। এটা হলো তাদের নতুন সজ্ঞা অনুযায়ী স্বাধীনতার চেতনা।

তিনি বলেন, ৭ নভেম্বর বাংলাদেশের স্বাধীনতার একটি প্রতীক। যারা ৭ নভেম্বরকে যারা অবমূল্যায়ন করতে চায় তারা সত্যিকার অর্থে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করে না বলে আমি মনে করি।

দেশে কোনো রাজনীতি নেই দাবি করে তিনি বলেন, দেশে বিরোধীদলও নেই। কিন্তু সরকারের মধ্যে এক বিরাট অস্থিরতা লক্ষ্য করছি। এর কারণ তাদের দুঃশাসন, অপশাসন, দুর্নীতি অত্যাচার নির্যাত এমন পর্যায়ে গেছে যে তাদের এই অপকর্মের ভাড়েই তাদের পতন ঘটবে।

১১টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১জন ভিসির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে উল্লেখ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, কিন্তু কেন। তারা তো সম্মানিত ব্যক্তি। তাদের তো সম্মান করার কথা। কিন্তু তারা সম্মান রক্ষা করতে পারেননি। অপরদিকে আমাদের সরকার প্রধান বলেছেন তিনি শিক্ষার্থীদের শাস্তি দেবেন তারা যদি ভিসিদের দুর্নীতির প্রমাণ দিতে না পারেন। যার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি যদি ভিসি পদে থেকে যান তাহলে তার বিরুদ্ধে কী নিরপেক্ষভাবে তদন্ত করা সম্ভব হবে?

খালেদা জিয়াকে আইনি প্রক্রিয়ায় মুক্ত করা সম্ভব নয় কথাটি পুনর্ব্যক্ত করে তিনি বলেন, আন্দোলনই তার মুক্তির একমাত্র পথ। আন্দোলনের মাধ্যমেই তার মুক্তি হবে। দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসবে। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ফিরে আসবে। একটি সুষ্ঠু সুন্দর রাজনৈতিক সংস্কৃতি আমাদের নেতারা বাংলাদেশকে উপহার দেবে।

জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইসতিয়াক আজিজ উলফাতের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ২১০৫ ঘণ্টা, নভেম্বর ১২, ২০১৯
এমএইচ/এএটি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: বিএনপি
ঢাবির ৫২তম সমাবর্তন: স্মৃতি থাকুক ক্যাম্পাসের সবখানে
তথ্য কমিশন-এটুআই’র মধ্যে চুক্তি সই
বাংলাদেশ ক্যানসার এইড ট্রাস্টের যাত্রা শুরু
জাপার সম্মেলন উপলক্ষে প্রচার উপ-কমিটির সভা
‘নারীর প্রতি সহিংসতার প্রকাশ্য প্রতিবাদ করতে হবে’


বগুড়ায় ইউপি সদস্যকে ইয়াবাসহ আটক
সালমান-ক্যাটরিনার পারফরম্যান্সে শেষ হলো বিপিএল’র উদ্বোধনী
ট্রাক্টরই এখন কৃষকের ‘গলার কাঁটা’
বাংলাদেশকে অনেক ভালোবাসি: সালমান খান
পঞ্চগড়ে শীতের তীব্রতা চরমে, দুর্ভোগে নিম্ন আয়ের মানুষ