ঢাকা, শনিবার, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৫ আগস্ট ২০২০, ২৪ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

পাখি চিনি-১০

ডুব-সাঁতারে পটু পাখি ডুবুরি

ইচ্ছেঘুড়ি ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭১৭ ঘণ্টা, জুলাই ৩, ২০২০
ডুব-সাঁতারে পটু পাখি ডুবুরি

ডুব সাঁতারে দারুণ পটু। নামটি তার সার্থক। ডুবুরি। পানির উপর কোনো কম্পন না তুলে ডুব দিতে পারে ভুস করে। নিচের থাকতে পারে কমপক্ষে তিন মিনিট। বিপদে পড়লে আরো বেশি। 

পানির নিচে এদের ডুব সাঁতার মুগ্ধ করার মতো। পানির নিচে পানি ঠেলে এগিয়ে যেতে পটু হলেও ডাঙায় এরা ভালোমতো হাঁটতে পারে না।

এদের ডানা খুব ছোট। তাই সহজে উড়তেও চায় না। লেজ না থাকায় এদের শরীরের গড়নটা চমৎকার।

...ঠোঁট ও ঘাড় লম্বা। দূর থেকে মনে হয় হাঁস। তাই এদের আরেক নাম ডুবুরি হাঁস। পানডুবিও বলা হয় এদের। মেয়ে ও পুরুষ পাখি দেখতে একই রকম। এমনিডে ডুবুরির রং বাদামি। তবে প্রজনকালে রঙে যেন ঝিলিক দেয়।

পৃথিবীতে ২১ রকম ডুবুরি আছে। সবচেয়ে ছোট প্রজাতিটি আছে বাংলাদেশে। এক সময় খাল-বিল, হাওর-বাওড়ে নিয়মিত ডুবুরি দেখা যেত। এখন খুবই কম। এরা খুবই ভীতু পাখি। উদ্ভিদের কচি পাতা, ছোট মাছ, শামুক, ব্যাঙ এদের খাদ্য।

...বর্ষাকাল ও শরতের শেষে এরা বাসা বাঁধে। দুজন মিলে বানায় ভাসমান বাসা। জলজ উদ্ভিদ-গুল্মের উপর জলজ ঘাস ও গুল্মের নরম ডগা দিয়ে বাসা বাসা বাঁধে। কচুরিপানার ভিতরেও বাসা করে। তাই শিকারি শত্রুরা সহজে দেখতে পায় না। মেয়ে পাখিটি ৪টি ডিম দেয়। ডিম ফোটে ২৭-২৮ দিনে। বাচ্চারা উড়তে শেখে ২৮ দিন পর। তবে আগে থেকেই মায়ের সঙ্গে পানিতে নামে।  

এরা নিজেদের পালক নিজেরা খায়। বাচ্চারা বাবা-মায়ের বুকের লোম ঠুকরে ঠুকরে খায়। বিল-ঝিলের উদ্ভিদ-গুল্ম টিকে থাকলে টিকে থাকবে সুন্দর এ পাখিটি।

তথ্যসূত্র: শরীফ খান, বাংলাদেশের পাখি

বাংলাদেশ সময়: ১৭১০ ঘণ্টা, জুলাই ০৩, ২০২০
এএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

জাতীয় এর সর্বশেষ

Alexa