করোনা থেকে রক্ষায় নফল ইবাদত ও দোয়ায় শবে বরাত পালিত

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: ডি এইচ বাদল

walton

ঢাকা: করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের মধ্যে সারাদেশে ধর্মীয় ভাব গাম্ভীর্যর মধ্য দিয়ে পালিত হচ্ছে পবিত্র শবে বরাত। তবে এবার মসজিদে নিয়ন্ত্রিত পরিবেশের মধ্যে মুসল্লি বেশি নেই। বরাতের রাতে মসজিদ বা কবরস্তানের সামনেও মানুষের উপস্থিতি দেখা যাচ্ছে না।

করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে শবে বরাতের রাতে বিশেষ দোয়া করার সাথে সাথে কবরস্থান বা মাজারে জনসমাগম না করার জন্য দেশের সকল ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিল ইসলামিক ফাউন্ডেশন।

যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) দিবাগত রাতে সারাদেশে পবিত্র শবে বরাত উদযাপিত হচ্ছে। হিজরি বর্ষের শাবান মাসের ১৪ তারিখে দিবাগত রাতটিকে মুসলমানগণ সৌভাগ্যের রজনী হিসেবে পালন করে থাকেন।

অনেকের মতে, মহিমান্বিত এ রাতে মহান আল্লাহ তার বান্দাদের ভাগ্য নির্ধারণ করেন। মুসলমানগণ এ রাতে মহান আল্লাহর রহমত ও নৈকট্য লাভের আশায় নফল নামাজ, কোরআন তিলাওয়াত, জিকিরসহ বিভিন্ন ইবাদত বন্দেগীর মাধ্যমে অতিবাহিত করেন।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের নির্দেশনা মেনে মসজিদগুলোতে বেশি মুসল্লি চোখে পড়েনি। পুরান ঢাকার কলতাবাজার এলাকায় তিনটি মসজিদে নিয়ন্ত্রিত মুসল্লি চোখে পড়েছে। মসজিদগুলো থেকে বাসায় বসে নফল নামাজ ও করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তির জন্য দোয়া করার আহ্বান জানানো হচ্ছে। এই আহ্বান মেনে বাসাতেই নফল নামাজ, কালেমা, তওবা ও ইসতেগফার আদায় করছেন তারা।

আর অন্যান্যবার শিশু-যুবকেরা এই রাতে রাস্তায় দল বেধে বেড়ালেও এবার চিত্র ভিন্ন। বিভিন্ন এলাকায় লকডাউন করায় আতঙ্কিত সবাই। তবে পাড়ার মোড়ে মোড়ে কিছুটা জটলা করছে শিশু-কিশোরেরা।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক আনিস মাহমুদ বুধবার এক বিজ্ঞপ্তিতে জানান, বিশ্বে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করছে। বাংলাদেশেও এর প্রভাব দৃশ্যমান হচ্ছে।

‘বিরাজমান এ পরিস্থিতিতে মহিমান্বিত এ রজনীতে নিজ নিজ বাসস্থানে অবস্থান করে ইবাদত-বন্দেগীর সময় ব্যক্তিগত দোয়া ও প্রার্থনা ছাড়াও করোনা ভাইরাসের মহামারির আক্রমণ থেকে আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি, মুসলিম উম্মাহ ও বিশ্ববাসীকে সুরক্ষা ও নিরাপদ রাখার বিষয়ে মহান আল্লাহর দরবারে বিশেষ দোয়া করার জন্য দেশের সকল ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের প্রতি আহবান জানানো যাচ্ছে।’

দেশের শ্রদ্ধেয় আলেম-ওলামা, পীর-মাশায়েখ, মসজিদের সম্মানিত খতিব, ইমাম, মুয়াজ্জিন, মাদরাসার অধ্যক্ষ ও শিক্ষকসহ সকল ধর্মপ্রাণ মুসলমানকে এই দোয়া ও প্রার্থনার জন্য অনুরোধ জানানো হয়।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে শবে বরাতে কবর যিয়ারতের উদ্দেশ্যে কবরস্থানে না গিয়ে নিজ নিজ বাসস্থানে অবস্থান করে মৃত আত্মীয়-স্বজনের রূহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করার জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে বিশেষভাবে আহ্বান জানায় ইসলমিক ফাউন্ডেশন।

একই সাথে কবরস্থান ও মাজারের গেইট বন্ধ রাখাসহ কবরস্থানের ভিতর ও বাইরে কোনো ধরনের জনসমাগম না-করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্তদের অনুরোধ করে।

বাংলাদেশ সময়: ০০০২ ঘণ্টা, এপ্রিল ১০, ২০২০
এমআইএইচ/এমএমএস

ফার্মেসিতে মিলছে না প্রয়োজনীয় ওষুধ, মিললেও দাম চড়া
স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই গণপরিবহনে
করোনা আক্রান্ত হয়ে রানা প্লাজার মালিকের বাবার মৃত্যু
করোনার কারণে সংকুচিত হচ্ছে কর্মসংস্থান
ফ্লয়েড করোনা আক্রান্ত ছিলেন


কুড়িগ্রামে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে তরুণীর মৃত্যু
ইন্দুরকানীতে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১০
আশুলিয়ায় বাসচাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
রণবীরের ‘৮৩’ নিয়ে দীপিকার বিড়ম্বনা
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৫ মৃত্যু, শনাক্ত ২৪২৩ জন