করোনা: ফেনীতে ৬ জনের নমুনা সংগ্রহ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ফেনীর মানচিত্র

walton

ফেনী: ফেনীতে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ নিরূপণে আরও ছয় ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করেছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। সন্দেহভাজন রোগীরা ফেনীর চারটি উপজেলার বাসিন্দা। তারা জ্বর, সর্দি, কাশি উপসর্গে ভুগছেন বলে স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে।

শুক্রবার (৩ এপ্রিল) দুপুরে সিভিল সার্জন ডা. সাজ্জাদ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সংগৃহীত নমুনা পরীক্ষার জন্য চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশন ডিজিজ (বিআইটিআইডি) সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। পরীক্ষার রিপোর্ট হাতে পেলে বিস্তারিত জানা যাবে। আর রিপোর্ট পজিটিভ এলে পরিবারের অন্যদেরও নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

ফেনী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ইকবাল হোসেন ভূঁইয়া জানান, বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এমটি ল্যাবরেটরির প্রশিক্ষিত টেকনিশিয়ান সত্যজিত ওইসব ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে।

সিভিল সার্জন বলেন, নমুনা সংগৃহীত ব্যক্তিদের মধ্যে চারজন ছাগলনাইয়া ও সোনাগাজীর এবং বাকি দু’জন ফেনী সদর ও দাগনভূঞার বাসিন্দা। তিনি জানান, ওই ছয়জনের বাড়ির সব বাসিন্দাদের আলাদাভাবে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এর আগে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ নিরূপণে ফেনী শহরের মাস্টারপাড়ার একজনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য চট্টগ্রামে পাঠায় জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। তার পরীক্ষার রিপোর্ট এখনও পাওয়া যায়নি।

জেলা সিভিল সার্জন সাজ্জাদ হোসেন জানান, রিপোর্ট পেতে ৪৮ ঘণ্টা সময় লাগবে। এরপর রোগীদের অসুখের ধরন জানা যাবে।

অন্যদিকে বুধবার দুপুরে ফেনী সদর উপজেলার পশ্চিম ছনুয়া গ্রামের বাড়িতে শ্বাসকষ্টে মৃত যুবকের করোনা সংক্রমণ পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছে বলে স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

বাংলাদেশ সময়: ০৩২৭ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৪, ২০২০
এসএইচডি/এএ

২১ জুন বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ
নলডাঙ্গায় সড়ক দুর্ঘটনায় স্বামী নিহত-স্ত্রী আহত
বান্দরবানে জগন্নাথ দেবের স্নানযাত্রা অনুষ্ঠিত
হাসপাতালে করোনা রোগীদের ভোগান্তি বন্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে
খাদ্যের খোঁজে দল বেঁধে ঘুরছে হনুমান, কামড়ালো ১২ জনকে


দীঘিনালায় দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী নারীকে কুপিয়ে হত্যা
কাশিমপুর কারাগারে এক হাজতির মৃত্যু
নোয়াখালীতে ৩৯ জনের করোনা পজিটিভ, আক্রান্ত বেড়ে ৮৮০ 
বগুড়ায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা
গোপালগঞ্জে করোনায় নতুন আক্রান্ত ২০, মোট ২৪২