ঢাকা, শনিবার, ১৫ কার্তিক ১৪২৭, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

জাতীয়

চেনা রাজধানীর অচেনা দৃশ্যপট

শামীম খান, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৩৩ ঘণ্টা, মার্চ ২৬, ২০২০
চেনা রাজধানীর অচেনা দৃশ্যপট

ঢাকা: এ আমাদের চিরচেনা রাজধানীই, তবে চিত্রটা ভিন্ন। সড়ক, অলিগলি, দোকান-পাট সবই আছে আগের মতো। শুধু সে সড়কে নেই যানবাহন, অলিগলি মানুষশূন্য প্রায়। আর ফার্মেসি, দুএকটি মুদি দোকান বাদে বন্ধ সবই। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে এই অচেনা ঢাকাই আদর্শ চিত্র।

বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের যে দাপট চলছে বাংলাদেশেও লেগেছে তার আঘাত। এ ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার আগামী ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে।

জনসাধারণকে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সরকারের নির্দেশনা মেনে সর্বস্তরের মানুষ ঘরে অবস্থান করছেন। জনসাধারণের ঘরে থাকা নিশ্চিত করতে সড়কে টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনীসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর সদস্যরা।

ব্যস্ততম শাপলা চত্বরের বর্তমান চিত্রবৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত রাজধানীর পুরানা পল্টন, জিরো পয়েন্ট, কাকরাইল, মতিঝিল, টিকাটুলিসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, রাস্তায় কোনো যানবাহন নেই। প্রতিটি সড়কই যানবাহন ও জনশূন্য।

সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় বৃহস্পতিবার (আগামী ২৬ মার্চ) থেকে সারাদেশে গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। আগামী ৪ এপ্রিল পর্যন্ত এ নিদের্শনা অব্যাহত থাকবে। তবে ব্যক্তিগত বাহন ব্যবহারে বাধা নেই।

বন্ধ বিপণিবিতানগণপরিবহনে নিষেধাজ্ঞা থাকায় বুধবার (২৫ মার্চ) বিকেল থেকেই গণপরিবহন কমে যায় রাজধানীতে। ওইদিন সন্ধ্যায় রাজধানীজুড়ে নেমে আছে সুনসান নীরবতা। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে জনশূন্য সড়কে মাঝে মধ্যে দু-একটি পুলিশের গাড়ি, প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেল ছাড়া কোনো গণপরিবহন চোখে পড়েনি। এমন কী রিকশাও কম রাস্তায়।

প্রধান প্রধান সড়কের বিভিন্ন স্থানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের ঘোরাঘুরি করতে দেখা যায়।

গত মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এক ভিডিওবার্তায় বলেন, ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, ওষুধ, জরুরি সেবা, জ্বালানি, পচনশীল পণ্য পরিবহন-এ নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবে এবং পণ্যবাহী যানবাহনে কোনো যাত্রী পরিবহন করা যাবে না বলে জানান। একইভাবে নৌযান, রেল, প্লেন চলাচলও বন্ধ রয়েছে।  

রাজধানীর সড়কগুলোর পাশাপাশি মার্কেট, শপিংমল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ সব ধরনের প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। মহান স্বাধীনতা দিবস হলেও করোনার কারণে রাজধানীতে স্বাধীনতা দিবসের কোনো আনুষ্ঠানিকতা ছিল না। রাজধানী শহরের পাড়া, মহল্লার দোকানপাট বন্ধ এবং মহল্লার রাস্তায় কোনো যানবাহন চলছে না। কোনো কোনো এলাকায় দু’একটি মুদির দোকান ও ওষুধের দোকান খোলা রয়েছে। দু’একটি রিকশা দেখা গেলেও যাত্রী নেই।

বাংলাদেশ সময়: ২০২৬ ঘণ্টা, মার্চ ২৬, ২০২০
এসকে/এএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

জাতীয় এর সর্বশেষ

Alexa