php glass

জামালপুরে যমুনার পানি বিপদসীমার ১৫২ সে. মি. ওপরে

গোলাম রাব্বানী নাদিম, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

জামালপুরে ভয়াবহ রূপ নিয়েছে বন্যা। ছবি: বাংলানিউজ

walton

জামালপুর: সর্বকালের রেকর্ড ভেঙে জামালপুরের যমুনার পানি বিপদসীমার ১৫২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। 

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দিনগত রাত ৮টার দিকে জামালপুরের বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্ট এলাকায় এ পানির স্তর রের্কড করা হয়। এর আগে ২০১৭ সালে এ পয়েন্টে পানির সর্বোচ্চ স্তর ছিল ১৩৪ সেন্টিমিটার।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) পানি পরিমাপক (গেজ রিডার) আব্দুল মান্নান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
 
এদিকে, অব্যাহত পানি বাড়ার ফলে জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। ইতোমধ্যে দেওয়ানগঞ্জের সঙ্গে সারাদেশের রেল ও সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে।
 
এবারের বন্যায় জামালপুরের ৭টি উপজেলায় প্রায় ৫০০ কিলোমিটার গ্রামীণ রাস্তা পানিতে ডুবে গেছে। বন্যায় দেওয়ানগঞ্জ-খোলাবাড়ী, বকশীগঞ্জ-সাধুরপাড়া, ইসলামপুর-উলিয়া, ইসলামপুর-গুঠাইল ও ইসলামপুর-কুলকান্দি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।
 
জেলার ইসলামপুর উপজেলার ৯০ শতাংশ রাস্তা, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার ৮০ শতাংশ, সরিষাবাড়ী উপজেলার ৭০ শতাংশ, মেলান্দহ, মাদারগঞ্জ ও বকশীগঞ্জ উপজেলার প্রায় ৫০ শতাংশ গ্রামীণ রাস্তা এখন পানির নিচে।

বেশিরভাগ কালভার্ট বন্যার পানির তোড়ে ভেঙে গেছে। ছোট ছোট অনেক সেতু পানির তোড়ে দেবে গিয়ে সেগুলো ইতোমধ্যে ব্যবহারের অনোপযোগী হয়ে পড়েছে।

আঞ্চলিক সড়কগুলোতে পানি ওঠায় সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে ৭টি ইউনিয়নের প্রায় লাখো মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। উপজেলা সদর থেকে গুঠাইল বাজার, উলিয়া বাজার, শিংভাঙ্গা, কুলকান্দি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

উপজেলার চিনাডুলি ইউনিয়নের দক্ষিণ চিনাডুলি, দেওয়ানপাড়া, ডেবরাইপেচ, বলিয়াদহ, সিংভাঙ্গা, পশ্চিম বামনা, পূর্ববামনা, গিলাবাড়ী, সাপধরী ইউনিয়নের আকন্দপাড়া, পশ্চিম চেঙ্গানিয়া, পূর্ব চেঙ্গানিয়া, ওকাশাড়ীডোবার, কুলকান্দি ইউনিয়নের বেরকুসা, টিনেরচর, সেন্দুরতলী, মিয়াপাড়া, বেলাগাছা ইউনিয়নের কাছিমারচর, দেলীপাড়, গুঠাইল, পাথর্শী ইউনিয়নের শশারিয়াবাড়ী, মোরাদাবাদ, মুকশিমলা, হাড়িয়াবাড়ী পশ্চিম মুজাআটা ও নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের ওলিয়া, রামভদ্রা, কাজলার অঞ্চলগুলোর বিস্তীর্ণ জনপদে বন্যা পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করেছে।
 
গত চার দিনে পানির তীব্র স্রোতে বেলগাছা ইউনিয়নের মন্নিয়ার চর, বরুল, চিনাডুলী ইউনিয়নের দেওয়ানপাড়া, নোয়াপাড়ার বৌশেরগড়সহ প্রায় শতাধিক বসতভিটা ভেঙে গেছে। ক্ষতিগ্রস্তরা আশপাশের উঁচু জায়গায় আশ্রয় নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। পশ্চিমাঞ্চলে ৮২টি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পানি ওঠায় সেগুলো বন্ধ রয়েছে। 

এছাড়াও পৌর শহরের নতুন নতুন এলাকা চাড়িয়া, মোজাজাল্লা, বেপারিপাড়া প্লাবিত হয়েছে বলে কাউন্সিলর অঙ্কন কর্মকার ও মহন মিয়া জানিয়েছেন।

বাংলাদেশ সময়: ০৩০১ ঘণ্টা, জুলাই ১৭, ২০১৯
আরবি/

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: জামালপুর
ksrm
গ্রাহকের কাছে ওয়াসার পাওনা ৭৬ কোটি টাকা
নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও রাতে চলছে স্পিডবোট
শিবচরে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে গৃহবধূর মৃত্যু
কোহলি-রাহানের ফিফটিতে বড় লিডের পথে ভারত
রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব নিশ্চিতের দায় নেবে না বাংলাদেশ


নতুন ভোটাররা সহসা স্মার্টকার্ড পাচ্ছেন না
‘প্রেসিডেন্টের টেবিলে’ পা তুলে সমালোচনায় জনসন
মহাকাশে গিয়েও জোচ্চুরি!
রোববার মাহী বি-তার স্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে দুদক
ব্লেন্ডার ভরা সাড়ে ৩ হাজার ইয়াবা, আটক ১