php glass

ধানের দামের প্রভাব পাইকারি বস্ত্রের বাজারেও!

কামরুজ্জামান দিপু, জবি করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

চলছে ইসলামপুরের পাইকারি বাজারের কাপড়ের দোকানে বেচা-বিক্রি। ছবি: বাংলানিউজ

walton

ঢাকা: ঘনিয়ে আসছে ঈদের সময়, বাড়ছে দেশের বড় পাইকারি কাপড়ের বাজার ইসলামপুরের পাইকারি দোকানের বেচা-বিক্রিও। তবে শেষ মুহূর্তের বিক্রিতে খুশি নন এখানকার ব্যবসায়ীরা।

মূলত শেষ ধাপের বিক্রিতে মন্দা ভাব থাকায় তাদের এই হা-হুতাশ! আর এর পেছনে এই মৌসুমে ধানের কম দামকেই দায়ী করছেন তারা।

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এই এলাকায় মূলত থান কাপড়ের পাইকারি বিক্রির জন্য বিখ্যাত হলেও এখানে শাড়ি, থ্রি-পিস, লুঙ্গি, প্যান্ট ও শার্ট ও পাঞ্জাবির কাপড়ের পাইকারি বিক্রি চলে সারাবছর। তবে খুচরাও বিক্রি হয় কোনো কোনো দোকানে। বেশ কয়েকটি দেশীয় বস্ত্র কারখানার উৎপাদিত কাপড়ের শো-রুমও রয়েছে এখানে।

পাশাপাশি থাইল্যান্ড, চীন, পাকিস্তান, ভারতসহ বিভিন্ন দেশের কাপড়ের সমাহার রয়েছে এ মার্কেটে। দেশি থান কাপড়ের ৬০ শতাংশ ও বিদেশি থান কাপড়ের ৪০ শতাংশ চাহিদা পূরণ হয় ইসলামপুরের এ কাপড়ের বাজারের মাধ্যমে।

ঈদ মৌসুমে সেটা বেড়ে যায় কয়েকগুণ। এর মধ্যে রোজার ঈদে তাদের বিক্রি সবচেয়ে বেশি। ঈদ মৌসুমে বিক্রি হয় মূলত তিন ধাপে। প্রথম ধাপে বিক্রি চলে রমজানের আগে, শবে বরাতের আগে-পরের সময়ে। প্রথম ধাপের বিক্রি শেষে বা পণ্যের স্টক শেষের দিকে আসলে দ্বিতীয় ধাপের মূল বিক্রি শুরু হয় রোজার শুরুতে। শেষ ধাপে মূল বিক্রি চলে ১০ থেকে ১৫ রমজানের মধ্যে। এসময় খুচরা ব্যবসায়ীরা মূলত কিছু ‘স্পেসিফিক’ পণ্যের খোঁজে এখানে আসেন ও কিনতে।ইসলামপুরের পাইকারি বাজারের কাপড়ের দোকান। ছবি: বাংলানিউজতবে এবার প্রথম ধাপ বাদ দিলে অন্য দুই ধাপের বিক্রিতে প্রত্যাশা মেটেনি পাইকারি ব্যবসায়ীদের। বরং অন্যান্য ঈদের তুলনায় এবার তা বেশ নাজুক বলেই জানালেন তারা। এর কারণ হিসেবে তারা বলছেন, ইসলামপুর থেকে ৯০ শতাংশ পাইকারি কাপড় বিক্রি হয় সারাদেশের বিভিন্ন এলাকায়। সেসব এলাকার মানুষের মূল আয়ের উৎস কৃষিকাজ বা কৃষির সঙ্গে সম্পৃক্ততা। এবারের বোরো আবাদের পর ধানের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত না হওয়ায় সেসব এলাকায় বিক্রি খুব একটা জমছে না। আর খুচরা ব্যবসায়ীদের বিক্রি ভালো না হলে স্বাভাবিকভাবেই পাইকারি বাজারেও এর বড় প্রভাব পড়ে।

রোববার (২৬ মে) সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, এই এলাকায় থাকা পাইকারি মার্কেটগুলোর মধ্যে বেশিরভাগ দোকানই ক্রেতাশূন্য। তবে লুঙ্গি, শাড়ি ও রেডিমেট কাপড়ের দোকানে কিছুটা ভিড় এখনো রয়েছে। এছাড়া বেশ কিছু দোকানে চলছে হিসাবের কাজ। অনেক খুচরা ব্যবসায়ী তাদের পণ্যের বাকি থাকা অর্থ পরিশোধে এসেছেন এখানে। তবে পছন্দসই কাপড়র কম দামে পেলে কিছু সঙ্গে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টিও লক্ষ্য করা গেছে।

মারিয়া ফ্যাশন হাউজের প্রোপাইটর ইহসানুল হক বাংলানিউজকে বলেন, আমাদের বিক্রির তো শেষ নেই। সারাদেশ থেকে আমাদের কাছে কাস্টমার আসে। এবারও এসেছেন, বিক্রিও করেছি। তবে সেটা আমাদের বিক্রির সঙ্গে যায় না। আমাদের রোজার শুরুতে যখন দ্বিতীয় ধাপের বিক্রি শুরু হয় তখন প্রতিদিন ৫০ লাখ থেকে ১ কোটি টাকা বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা থাকে। সেখানে এবার এই সময়ে বিক্রি হয়েছে ১০ লাখ থেকে সর্বোচ্চ ৩০ লাখ টাকার। খুচরা ব্যবসায়ীরা যদি বিক্রি করতে না পারেন, তাহলে তো আমাদের বিক্রি হবে না, সোজা কথা।চলছে ইসলামপুরের পাইকারি বাজারের কাপড়ের দোকান। ছবি: বাংলানিউজগুলশান আরা শপিং কমপ্লেক্সের দোকানি আবু সায়েম বলেন, এই ঈদের বিক্রিতে আমাদের প্রত্যাশা পূরণ হয়নি। ঢাকায় বা এর আশপাশের এলাকায় আমাদের হাতে গোনা কিছু পণ্য বিক্রি হয়। বাদ বাকি সবদেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ব্যবসায়ীরা এসে নিয়ে যান। কিন্তু এবার আমাদের খুচরা ব্যবসায়ীরা জানাচ্ছেন, ধানের দাম কম থাকায় অধিকাংশ এলাকায় বিক্রিবাট্টা ভালো চলছে না। তাহলে আমাদের বিক্রি ভালো হবে কিভাবে? 

বাংলাদেশ সময়: ১৩২৩ ঘণ্টা, মে ২৬, ২০১৯
কেডি/এএটি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: ঈদুল ফিতর
ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট ধরলেন আসল ম্যাজিস্ট্রেট
ডুমুরিয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী এজাজ চেয়ারম্যান নির্বাচিত
দেওয়াল-গাছে বিজ্ঞাপন দিলেই জরিমানা
যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মার্ক
বিজয়নগরে স্বতন্ত্র প্রার্থী নাছিমা বিজয়ী


কালিগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় ঠিকাদার নিহত
পবায় বড় ব্যবধানে নৌকার মুনসুর চেয়ারম্যান নির্বাচিত
বেবিচকের নতুন চেয়ারম্যান মফিদুর
কবি অক্ষয় কুমার বড়ালের প্রয়াণ
আয়রনম্যান ইউরো চ্যাম্পিয়নে অংশ নেবেন আরাফাত