বন্ধুকে হত্যার দায়ে দু’জনের যাবজ্জীবন 

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: প্রতীকী

walton

ঝালকাঠি: ঝালকাঠির নলছিটিতে পাওনা টাকা নিয়ে বিরোধের জের ধরে আলমগীর হাওলাদার নামে এক যুবককে হত্যার দায়ে তার দুই বন্ধুকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। 

মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) বিকেলে ঝালকাঠি অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক শেখ মো. তোফায়েল হাসান এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার মোহনগঞ্জ এলাকার গোলাম আলীর ছেলে মো. বাবুল ও ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার মধ্য কামদেবপুর গ্রামের মতিউর রহমান মোল্লার ছেলে শাহিন মোল্লা।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এম আলম খান কামাল জানান, নলছিটি উপজেলার দক্ষিণ কাঠিপাড়া এলাকার মুজাফফর হাওলাদারের ছেলে আলমগীর হাওলাদারের কাছ থেকে বন্ধুত্বের সূত্রধরে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা নগদ ১০ হাজার টাকা ও একটি হাত ঘড়ি ধার হিসেবে নেয়। 

দীর্ঘদিনেও ধার নেওয়া টাকা ও ঘড়ি ফেরত দিচ্ছিল না আসামিরা। অতিষ্ঠ হয়ে আলমগীর তার দুই বন্ধুর ইঞ্জিনচালিত একটি ট্রলার আটকে রাখেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ২০০৩ সালের ২৮ জানুয়ারি বিকেল ৪টার দিকে বাড়ি থেকে আলমগীরকে ডেকে নিয়ে নলছিটির রানাপাশা একটি বিলে নিয়ে গলায় মাফলার পেঁচিয়ে হত্যা করেন আসামিরা। 

হত্যাকাণ্ডের পরের দিন ২৯ জানুয়ারি নিহত আলমগীরের স্ত্রী লাইলী বেগম নলছিটি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। 

নলছিটি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আবুবক্কর শেখ দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০০৫ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি আদালতে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

দীর্ঘ শুনানি ও ১২ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে দোষী প্রমাণিত হওয়ায় আসামি বাবুল ও শাহিনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেন আদালত। 

বাংলাদেশ সময়: ০৭২৯ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৬, ২০১৯
এমএস/আরবি/

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: আদালত ঝালকাঠি
সেই খোরশেদের স্ত্রীর অবস্থার অবনতি, হাসপাতালে ভর্তি
সাড়ে ৬ হাজার ইয়াবাসহ লোহাগাড়ায় গ্রেফতার দুই
করোনা রোগীর সংস্পর্শে এলেও যেতে হবে না আইসোলেশনে!
সরকারি আদেশ মানতে হাসপাতাল মালিকদের হুঁশিয়ারি নাছিরের
লিবিয়াতেই ২৬ বাংলাদেশিকে দাফন


রোববার চালু হচ্ছে কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া রুটে লঞ্চ-স্পিডবোট 
ফেসবুকে ফেক আইডি দিয়ে প্রতারণা, গ্রেফতার ছাত্রলীগ নেতা
কর্মস্থলে অনুপস্থিত: রাউজান পৌর মেয়রকে শোকজ
ফোর্বস’র বিলিয়নিয়ার তালিকা থেকে বাদ পড়লেন কাইলি
একটি স্বপ্ন এবং আবেদন: করোনাকালীন শিক্ষা ব্যবস্থা