ভারতে ফসলের মাঠ থেকে লোকালয়ে হানা দিচ্ছে পঙ্গপাল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বাড়ির ছাদ ঢেকে আছে পঙ্গপালে/ছবি: সংগৃহীত

walton

পশ্চিম ও মধ্য ভারতের কয়েকটি রাজ্যের বাসিন্দারা এখন পঙ্গপাল আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন। রাজস্থান, পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশের বিস্তীর্ণ এলাকায় হানা দিয়েছে ইতোমধ্যেই। দিল্লি, উত্তরাখণ্ড, উত্তরপ্রদেশেও হানা দিতে পারে। ছত্তিসগড়ে জারি হয়েছে চূড়ান্ত সতর্কবার্তা।

বুধবার (২৭ মে) এ খবর প্রকাশ করেছে কলকাতাভিত্তিক পত্রিকা আনন্দবাজার, এই সময়সহ ভারতের প্রধান সব সংবাদমাধ্যম।

পরিযায়ী এ পতঙ্গবাহিনী বিঘার পর বিঘা ফসল নষ্ট করার পাশাপাশি হানা দিয়েছে রাজস্থানের লোকালয়েও। ফলে পঙ্গপালের মেঘে অশনি সঙ্কেত দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। ফেসবুক-টুইটারে অসংখ্য ছবি-ভিডিও এরই মধ্যে ভাইরাল হয়েছে।

সাধারণত সৌদি আরবের মরুভূমি এলাকায় বসবাস এই পঙ্গপালদের। মৌসুমি বায়ু সক্রিয় হওয়ার পর থেকেই এরা ভারতের দিকে, অর্থাৎ উত্তরের দিকে যাত্রা শুরু করে। পৌঁছে যায় লোহিত সাগর অঞ্চলে। এই অঞ্চলের বৃষ্টিপাত এদের প্রজনন ও বসবাসের অনুকূল হয়ে ওঠে। তারপর লোহিত সাগর পেরিয়ে পাকিস্তানে প্রবেশ করে। পাকিস্তান থেকে রাজস্থান হয়ে ঢুকে পড়ে ভারতে। প্রায় প্রতি বছরই অল্প সংখ্যক পঙ্গপালের হানার মুখোমুখি হয় পশ্চিম ও মধ্যভারতের রাজ্যগুলি। কিন্তু এবছর বিপুল সংখ্যক পঙ্গপাল হানা দিয়েছে। আবহবিদরা বলছেন, রাজস্থানসহ ওই অঞ্চলে বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে আগেই। ফলে অনুকূল পরিবেশ পেয়ে অনেক আগে এবং বিপুল সংখ্যায় এবছর হানা দিয়েছে এ পতঙ্গ।

..পঙ্গপাল হল মরুপতঙ্গের দল। ছোট্ট শিংওয়ালা ঘাসফড়িং প্রজাতির এই পতঙ্গরা। গিরগিটির মতো রং বদলাতে না পারলেও আবহাওয়া অনুযায়ী নিজেদের চরিত্র পাল্টে ফেলার অদ্ভুত ক্ষমতা রয়েছে পঙ্গপালদের। আর ঝাঁকের হিসেব ধরলে এক বর্গকিলোমিটার থেকে কয়েকশো বর্গকিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারে একটি পঙ্গপালের দল। এক একটি দলে চার কোটি থেকে আট কোটি পর্যন্ত পতঙ্গ থাকতে পারে। আবহাওয়া ও বায়ুপ্রবাহ অনুকূল থাকলে প্রতি দিন এই উড়ন্ত বাহিনী পাড়ি দিতে পারে ১৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত।

মূলত মাঠের ফসল প্রধান খাদ্য হলেও বিভিন্ন রকম শস্যদানা এবং ফলও এরা খায়। এফএও-র মতে, এই পতঙ্গগুলি প্রতিদিন নিজের ওজনের সমান খাবার খেয়ে নিতে পারে। এক একটি পতঙ্গের ওজন হয় ২ গ্রামের মতো। সেই হিসিাব ধরলে এক দিনেই একটি পুরো গ্রামের খাবার খেয়ে নিতে পারে পঙ্গপালের একটি দল। তবে আশার কথা একটাই, এবার অনেক আগেই হানা দিয়েছে এই পতঙ্গবাহিনী। এই সময় মাঠে বিশেষ ফসল নেই। রবিশস্য ঘরে তুলে ফেলেছেন চাষিরা। খরিপ মৌসুমের ফসলের চাষ সে ভাবে শুরু হয়নি। মাঠে রয়েছে মূলত সব্জি ও ফল।

ভারতের কেন্দ্রীয় হাওয়া অফিসের কর্তারা জানাচ্ছেন, আবহাওয়া অনুকূল থাকলে রাজস্থান লাগোয়া রাজধানী দিল্লিতেও হানা দিতে পারে ঝাঁকে ঝাঁকে পঙ্গপাল। আবহাওয়া ভবনের আবহবিজ্ঞানী কুলদীপ শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, হাওয়ার অভিমুখ উত্তর-পশ্চিম দিকে রয়েছে। এই পরিস্থিতি থাকলে দিল্লিতে চলে আসা অসম্ভব নয়।

প্রতিদিন নিজের ওজনের সমান খাবার জোগাড় করাটা কোনও প্রাণীর পক্ষেই সহজ নয়। তাই খাবার জোগাড় করাই এই পতঙ্গগোষ্ঠীর মূল লক্ষ্য থাকে। আবার কোনো রোগ বহন করে আনে, এমন প্রমাণও পাওয়া যায়নি।

প্রতিকার
ঝাঁকে ঝাঁকে পঙ্গপালকে পুরোপুরি দেশছাড়া করার উপায় নেই। তবে প্রচণ্ড জোরে শব্দ করলে একটি জায়গা থেকে সামান্য সরানো যেতে পারে মাত্র। আর চাষের জমিতে দেওয়া যেতে পারে কীটনাশক। কেন্দ্রীয় কৃষি দফতরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, চাষিরা ম্যালাথিয়ন, ফেনভালেরেট, কুইনালফসের মতো কীটনাশক ব্যবহার করতে পারেন। মধ্যপ্রদেশের জব্বলপুরের চাষিরা আবার রাসায়নিক ও পানি স্প্রে করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

বাংলাদেশ সময়: ২১১৮ ঘণ্টা, মে ২৭, ২০২০
এএ

Nagad
রডের পরিবর্তে বাঁশ: নারী ইউপি সদস্য বরখাস্ত
কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর কাছে সিবিআই তদন্তের দাবি রিয়ার
‘সবার জন্য অনার্স-মাস্টার্স আর পিএইচডি ডিগ্রির প্রয়োজন নেই’
পাবনায় সওজের জায়গা দখল করে বহুতল ভবন-মার্কেট নির্মাণ
স্টার গ্রাহকদের স্বাস্থ্যসেবার পরিধি বাড়ালো গ্রামীণফোন


ইংল্যান্ডে করোনামুক্ত পাকিস্তানি স্পিনার, ফিরছেন স্কোয়াডে
লঞ্চ দুর্ঘটনা: তদন্ত কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে পদক্ষেপ
‘সোনালি করমর্দন নয়, পাটশিল্পের আধুনিকায়নই সমাধান'
‘শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করে গণতন্ত্রকেই বন্দি করা হয়েছিল’
জালনোটসহ ডিবির হাতে আটক যুবক