দুই কোরিয়ার নতুন ভবিষ্যৎ গড়তে একমত কিম-মুন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মুন জায়-ইন এবং কিম জং উন

পিয়ংইয়ংয়ে একটি সুদূরপ্রসারী চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে দুই কোরিয়ার নতুন ভবিষ্যত গড়ার ব্যাপারে একমত হয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়-ইন এবং উত্তর কোরিয়ার সুপ্রিম লিডার কিম জং উন।

php glass

চুক্তির পর সংবাদ সম্মেলনে মুন জানান, চুক্তিতে কোরীয় উপদ্বীপকে পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণে একমত হয়েছে দু’টি পক্ষ। এছাড়াও এতে উত্তর কোরিয়ার প্রধান প্রধান মিসাইল লঞ্চিং সাইটগুলো বন্ধ করে দিতে সম্মত হয়েছেন কিম। 

এদিকে কিমের ভাষ্যমতে কোরীয় উপদ্বীপে শান্তি বয়ে আনতে কার্যকর ভূমিকা রাখতে চলেছে এই চুক্তি।

চুক্তিতে পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ ছাড়াও নিজেদের মধ্যে রেল যোগাযোগ স্থাপন, স্বাস্থ্যসেবায় সহযোগিতা এবং কোরিয়ান যুদ্ধের কারণে বিভক্ত হয়ে পড়া পরিবারগুলোকে পুনর্মিলনের মতো ব্যাপারগুলোও একমত হয় দুই কোরিয়া। 

প্রেসিডেন্ট মুন সাংবাদিকদের বলেন, সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর বিশেষজ্ঞদের উপস্থিতিতে তংশাং-রি মিসাইল ইঞ্জিন টেস্ট সাইট ও মিসাইল লঞ্চ ফ্যাসিলিটি স্থায়ীভাবে বন্ধ করতে রাজি হয়েছে উত্তর কোরিয়া।

এদিকে অদূর ভবিষ্যতে সিউল সফর করার ব্যাপারে কথা দিয়েছেন কিম। দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানীতে এর আগে কখনও উত্তর কোরিয়ার কোনো সুপ্রিম লিডার সফর করেননি।

এছাড়াও ২০২৩ সালে দুই কোরিয়া যৌথভাবে গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক আয়োজন করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন এ দুই রাষ্ট্রপ্রধান। জানা যায়, পিয়ংইয়ংয়ে প্রেসিডেন্ট মুনের সর্বশেষ সফরে এ চুক্তি করেন তারা।

এদিকে কোরীয় উপদ্বীপে সামরিক উত্তেজনা কমাতে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও উত্তর কোরিয়ার সামরিক প্রধানের মধ্যে আরেকটি চুক্তি স্বাক্ষর হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১১০৩ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮
এনএইচটি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: উত্তর কোরিয়া
জাতীয় স্মৃতিসৌধ যেন লাল-সবুজের একখণ্ড বাংলাদেশ
বাংলাদেশের উন্নয়ন দেখে বিদেশিরা ঈর্ষা করে: ঢাবি ভিসি
শ্রেষ্ঠ সন্তানদের ফুলেল শ্রদ্ধায় স্মরণ করছে জাতি
 ইতালিতে জাতীয় গণহত্যা দিবস পালিত
বরিশাল নগরে যাত্রী ওঠা-নামার জন্য স্ট্যান্ড হবে 


জাতির বীরসন্তানদের রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
এক সন্তান প্রসবের ২৬ দিন পর ফের জমজ জন্মদান
কলকাতায় বাংলাদেশ উপ-দূতাবাসে গণহত্যা দিবস পালিত
জাতীয় গণহত্যা দিবস পালিত হলো পাকিস্তানে
‘পাকিস্তানিরা বাঙালিদের কুকুর-বিড়াল মনে করতো’