php glass

ধ্বংসের মুখে বাঘিয়ার বিলের জীববৈচিত্র্য

ইমতিয়াজ আহমেদ, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেণ্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বাঘিয়ার বিল। ছবি: বাংলানিউজ

walton

মাদারীপুর: মাদারীপুরের রাজৈর ও গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার কমপক্ষে পাঁচ হাজার হেক্টরের প্রাকৃতিক জলাভূমি ‘বাঘিয়ার বিল’। যার এক প্রান্তে দাঁড়িয়ে অন্য প্রান্ত চোখে পড়তে চায় না। যেন ধূ ধূ প্রান্তর। বর্ষা মৌসুমে পানিতে নিমজ্জিত থাকে পুরো বিল। আর শুকনো মৌসুমে থাকে ধানক্ষেত। তবে বিলের মূল যে বৈচিত্র্য, সেই মৎস্য সম্পদও আগের মতো আর নেই। দিন দিন প্রাণিজ সম্পদের ভাণ্ডার খ্যাত প্রাকৃতিক এই বিলটির বুক খালি হয়ে যাচ্ছে। ফলে বাঘিয়ার বিলের ওপর নির্ভর করে বেঁচে থাকা মৎস্যজীবীদের পেশা পরিবর্তন করতে হচ্ছে। আর আগের মতো মাছ না পাওয়ায় স্থানীয়দের চাহিদাও মেটাতে পারছে না বিলটি। 

অপরিকল্পিত ও নির্বিচারে মৎস্য ও প্রাণিজ সম্পদ আহরণ, বিলের সঙ্গে সংযুক্ত অসংখ্য ছোট ছোট নালা ভরাট করে বাড়ি নির্মাণ, বিলের মধ্যে পানি ভরাট করে খামার ও বসত-বাড়িসহ নানা স্থাপনা নির্মাণের কারণে আশঙ্কাজনক হারে কমে যাচ্ছে বিলের প্রাণ মৎস্য ও প্রাণিজ সম্পদ। বিলের জীববৈচিত্র্যের ওপর নির্ভর করেই বিল সংলগ্ন গ্রামগুলোর মানুষের জীবিকা নির্বাহের অন্যতম মাধ্যম ছিল। প্রায় অর্ধশতাধিক গ্রামের মানুষের উপার্জনের মাধ্যম ছিল এই বিল। তবে প্রাকৃতিক এই জলাভূমির সৌন্দর্য বিলীনের পথে। আগের মতো নেই নানা প্রজাতির মাছসহ প্রাণিজ সম্পদ। ধীরে ধীরে বিলুপ্তির পথেও রয়েছে নানান প্রজাতির মাছ। আগের মতো শীত মৌসুমে আসে না অতিথি পাখির দল। নির্বিচারে আহরণের কারণে নেই শামুক-ঝিনুকসহ কচ্ছপের মতো প্রাণীও। স্থানীয়দের ভাষায় বাঘিয়ার বিল এখন ভাণ্ডার খালি হয়ে শূন্যর দিকে। 

স্থানীয়রা বাংলানিউজকে জানান, বাঘিয়ার বিলটিতে আগের মতো তেমন পানি হয় না। বেশ কয়েক বছর ধরেই বিলে পানির পরিমাণ কমে যাচ্ছে। পানি প্রবেশের পথগুলো ভরাট করে বসতি স্থাপন করার কারণে এমনটা হচ্ছে। কোনো কোনো স্থানের জলাশয় আবার ভরাটও করা হয়েছে। এতে করে বর্ষা মৌসুমেও পানি কম হয় বিলে।
বাঘিয়ার বিল। ছবি: বাংলানিউজস্থানীয়রা আরও জানান, শুকনো মৌসুমে বিলে ধানচাষ করা হয়। চাষাবাদের জন্য জমিতে রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহার করা হচ্ছে। এর সঙ্গে বর্তমান সময়ে ঘাস নষ্ট করার জন্য অবাধে এক ধরনের ওষুধ ব্যবহার করা হচ্ছে। যার কারণে পানি হলে ওই বিষাক্ত ওষুধ বিলের পানিতে মিশে যাচ্ছে। ফলে দেশীয় নানা প্রজাতির মাছের প্রজনন নষ্টসহ মাছ মরে যাচ্ছে। কমে যাচ্ছে মাছের পরিমাণ।

বর্ষার শুরুতেই শামুক-ঝিনুক, কচ্ছপ, পোনা মাছসহ শীতের সময় অতিথি পাখি শিকার করে এক শ্রেণির মানুষ উপার্জন করে। ফলে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে ঐতিহ্য হারাচ্ছে বাঘিয়ার বিল।

স্থানীয় প্রবীণরা বাংলানিউজকে জানান, বাঘিয়ার বিল এলাকায় এক সময় কোনো জনবসতি ছিল না। মাদারীপুর, কোটালীপাড়াসহ আশেপাশের বিভিন্ন জেলার মৎস্যজীবীরা বর্ষা মৌসুমে বিলে এসে মাছ শিকার করতেন। এখানকার মাছসহ প্রাণিজ সম্পদের কদর ছিল বৃহত্তর ফরিদপুরসহ দেশজুড়ে। স্থানীয়ভাবে দেশি মাছের চাহিদা মেটাতেও সক্ষম ছিল বাঘিয়ার বিল।

বাঘিয়ার বিল অঞ্চলে মূলত রাজৈরের আমগ্রাম, রাজৈর ও কদমবাড়ী এবং কোটালীপাড়ার কলাবাড়ী, রাধাগঞ্জ ও সাদুল্লাপুর ইউনিয়নের প্রায় ২৫টি গ্রামের অবস্থান এবং প্রায় ৩৫ হাজার লোকের বসবাস। বিলের প্রাকৃতিক সম্পদ আহরণ ও আউশ-আমন ধানের চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করেন এসব এলাকার মানুষ।
বাঘিয়ার বিল। ছবি: বাংলানিউজওই অঞ্চলে জেলেরা বাংলানিউজকে জানান, দেশি প্রজাতির মাছের মধ্যে বিলটিতে বর্তমানে তেমন একটা দেখা যায় না শোল, গজার, টাকি, পুঁটি, খলিসা, পাবদা, বাইম, রয়না, শিং, মাগুর, আইড়, বোয়াল, চিতল, রুই, কাতল, টেংরা ইত্যাদি। জলজ উদ্ভিদ এবং কাঁকড়া, কুঁচিয়া ও কচ্ছপ জাতীয় অন্য প্রাণিসম্পদও কমে গেছে আশঙ্কাজনক হারে। নির্বিচার নিধনে হারিয়ে যেতে বসেছে শামুক-ঝিনুকও।

স্থানীয় বাসিন্দা রহমত আলী বাংলানিউজকে বলেন, শীত মৌসুমে বাঘিয়ার বিলে নানা রকম পাখি আসতো। এছাড়া সারা বছরই ডাহুক, পানকৌড়ি, বালি হাঁস, সরালি, বক, কাদাখোঁচা, মাছরাঙাসহ দেশীয় পাখি দেখা যেতো। বর্তমানে এসব পাখিও তেমন একটা দেখা যাচ্ছে না।

গত কয়েক বছর ধরে পুকুর, খাল-ডোবা, জলাশয় ভরাট করার হিড়িক পরে গেছে। এসব স্থানে নির্মিত হচ্ছে বহুতল ভবন। নদ-নদীর পানি খাল-বিলে প্রবাহিত হওয়ার পথ বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ক্রমান্বয়ে। দ্রুত নগরায়নের ফলে অপরিকল্পিতভাবে বাড়ছে বসতি, ভরাট হচ্ছে জলাশয়। আর এ আগ্রাসনের জন্যই ভারসাম্য হারাচ্ছে প্রকৃতি। বাঘিয়ার বিলও তার ব্যতিক্রম নয়। বিশাল এই বিলের ঐতিহ্য হারাতে হারাতে হয়তোবা বিলটিও হারিয়ে যেতে পারে অদূর ভবিষতে!

বাংলাদেশ সময়: ০৯২০ ঘণ্টা, নভেম্বর ২২, ২০১৯
এসআরএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: মাদারীপুর
সড়ক অপসারণ ইউএনওর নেতৃত্বে
গাজীপুরে ডায়রিয়ার প্রকোপ, একজনের মৃত্যু 
এআরএফের সভাপতি আশরাফ আলী, সাধারণ সম্পাদক মাকসুদুল হাসান
বড় জয়ে মুশফিকদের শুভ সূচনা 
আত্মহত্যা করতে চেয়েছিলেন নেহা কাক্কর


দেশের অষ্টম শক্তিশালী ব্র্যান্ড স্বপ্ন
এবার শুরু হবে এক দফার আন্দোলন: মিনু
পরীক্ষামূলক চালু হলো ঢাকা-সিকিম বাস সার্ভিস
টেকনাফে পাল্টাপাল্টি ছুরিকাঘাতে জামাই-শাশুড়ি খুন
ময়মনসিংহে ককটেল বিস্ফোরণে আহত ১০