আফগানিস্তানকে হারিয়ে বাংলাদেশকে চাপে রাখলো পাকিস্তান

ওয়ার্ল্ড কাপ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ম্যাচ শেষে পাকিস্তান দলের উদযাপন

walton

২২৭ রানের মামুলি সংগ্রহ নিয়েও ভালোই লড়াই করলেন রশিদ-মুজিবরা। কিন্তু ম্যাচের শেষ ভাগে এসে আফগানদের লড়াই বিফলে গেল। পাকিস্তানের কাছে ৩ উইকেটের হার যতটা না আফগানদের ক্ষতি করলো, বাংলাদেশের ক্ষতি হলো তার চেয়ে বেশি। ম্যাচটা আফগানিস্তান জিতলে বাংলাদেশের সেমিফাইনালের সমীকরণ কিছুটা হলেও সহজ হতো। কিন্তু তা আর হলো না। আদতে পাকিস্তানের অভিজ্ঞতা আর আম্পায়ারের একাধিক ভুল সিদ্ধান্তের কাছেই হেরে গেল আফগানিস্তান।

পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ যখন রান আউট হয়ে ফিরলেন, ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ তখন স্পষ্টতই আফগানদের দখলে ছিল। জিততে হলে তখনও ১১ ওভারে ৭১ দরকার পাকিস্তানের। স্বীকৃত ব্যাটসম্যান বলতে কেউ নেই। কিন্তু পুরো টুর্নামেন্টে অনুজ্জ্বল স্পিন-অলরাউন্ডার ইমাদ ওয়াসিম দেখা দিলেন রুদ্রমূর্তিতে। খেলার মোড় এমনভাবেই ঘোরালেন এই অলরাউন্ডার যে, ম্যাচ থেকেই ছিটকে গেল আফগানিস্তান।

শেষ ১২ বলে পাকিস্তানের দরকার ছিল ১৬ রান। তখনও ম্যাচটা ফিফটি-ফিফটি অবস্থায়। কিন্তু ফাস্ট বোলার ওয়াহাব রিয়াজ আফগান স্পিনার রশিদ খানের শেষ ওভারে ১ ছক্কা মেরে রানের চাপ কমিয়ে দিলেন। ওই ওভারে এলো ১০ রান। শেষ ওভারে ৬ রানে ৬ রানের মতো সহজ লক্ষ্য পাড়ি দিতে মোটেই কষ্ট হলো না ইমাদ ওয়াসিমের। গুলবাদিন নাঈবের করা ওই ওভারের চতুর্থ বলে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন এই লোয়ার-অর্ডার ব্যাটসম্যান।

এই জয়ে পয়েন্ট টেবিলের চতুর্থ স্থানে চলে গেল পাকিস্তান। আর পাঁচে নেমে গেল ইংল্যান্ড। এক ধাপ নিচে নেমে বাংলাদেশের অবস্থান এখন ষষ্ঠ স্থানে।

রান তাড়ায় পাকিস্তানের শুরুটা কিন্তু মোটেও ভালো হয়নি। ইনিংসের প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই আফগান স্পিনার মুজিব-উর-রহমানের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন পাকিস্তানি ওপেনার ফখর জামান। এরপর ৭২ রানের জুটি গড়ে প্রাথমিক ধাক্কা সামাল দেন ইমাম-উল-হক ও বাবর জামান। ইমাম ও বাবর দুজনকেই তুলে নিয়ে পাকিস্তানকে বড় ধাক্কা দিয়েছিলেন মোহাম্মদ নবী। ইমাম বিদায় নেওয়ার আগে করেন ৩৬ রান। বাবর আউট হন ৫১ বলে ৪৫ রান করে। 

পাকিস্তানের সবচেয়ে অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ হাফিজ মাত্র ১৯ রানে বিদায় নিলে ১৪২ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে বসে পাকিস্তান। ১৪ রান পর অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদও রান আউট হয়ে বিদায় নিলে হার দেখতে শুরু করে দলটি। কিন্তু এই ধ্বংসস্তূপ থেকেই ম্যাচ বের করে নেন ইমাদ ওয়াসিম। 

মাঝে শাদাব খানও রান আউটের শিকার হলে ওয়াহাব রিয়াজকে নিয়ে বাকি পথ পাড়ি দেন ইমাদ। শেষ পর্যন্ত ৫৪ বলে ৪৯ রানে অপরাজিত থাকেন ইমাদ। আরেক লোয়ার-অর্ডার ব্যাটসম্যান ওয়াহাব রিয়াজ ৯ বলে ১৫ রান করে জয়ের হাসি নিয়ে মাঠ ছাড়েন। 

বল হাতে আফগানদের নবী ছিলেন অনন্য। ১০ ওভারে মাত্র ২৩ রান খরচে তিনি ২ উইকেট তুলে নিয়েছেন। ২টি উইকেট নিয়েছেন মুজিব আর বাকিটা রশিদ খান।

এর আগে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে নির্ধারিত ৫০ ওভার বল করে ২২৭ রান করে আফগানিস্তান। টসে জিতে ব্যাটিং বেছে নিয়ে ৫৭ রানেই তিন উইকেট হারিয়েছিল আফগানিস্তান। তবে নজিবুল্লাহ জাদরানের ৪২ ও আসগর আফগানের ৪২ রানের ইনিংসে ভর করে পাকিস্তানের সামনে ২২৮ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দেয় আফগানিস্তান।

পাকিস্তানের শাহিন শাহ আফ্রিদি একাই নিয়েছেন ৪ উইকেট। ২টি করে উইকেট গেছে ইমাদ ও ওয়াহাব রিয়াজের দখলে। বাকি উইকেট শাদাবের।

ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হয়েছেন ইমাদ ওয়াসিম।

বাংলাদেশ সময়: ২৩০৮ ঘণ্টা, জুন ২৯, ২০১৯
এমএইচএম

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯ CWC19
নগরবাসীকে মেয়র আরিফের ঈদ শুভেচ্ছা
করোনা আতঙ্ক নিয়েই ঘরে ফিরছে মানুষ
সড়কে দায়িত্ব পালনে গর্বিত, আফসোস নেই ট্রাফিক সদস্যদের
দেশবাসীকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা সাজেদা চৌধুরীর
‘চির উন্নত শির...’
আজ ১২১তম নজরুলজয়ন্তী

‘চির উন্নত শির...’



সাবেক এমপি মকবুলের মৃত্যুতে তাপসের শোক
হাসপাতাল কর্মচারীদের জন্য আতিকের ঈদ উপহার
সিলেট আওয়ামী পরিবারে করোনার হানা
হাজি মকবুলের মৃত্যুতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রীর শোক
কল্যাণপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ জন নিহত