হাতের নাগালে বরফ পাহাড়, বীরেন্দ্র লেকে মুগ্ধতা

রিয়াসাদ সানভী | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মানাসলু শিখর/ছবি: বাংলানিউজ

সামারগাওয়ে আজ আমাদের বিশ্রামের দিন। এর উচ্চতা ৩ হাজার ৫২০ মিটার। ফলে অ্যাক্লেমাটাইজেশনের জন্য একদিন এখানে অবস্থান করে সামনে এগোনোর পরিকল্পনা। কিন্তু আগে থেকেই জানি বিশ্রাম আসলে নামেই বিশ্রাম। কারণ আজ আমাদের মানাসলু বেসক্যাম্পের দিকে যতদূর সম্ভব যেতে হবে।

মুহিত ভাই জানালেন অন্তত চার হাজার মিটার পর্যন্ত হাইট গেইন করবেন। আমি তো মনে মনে মানাসলু বেস ক্যাম্পে যাওয়ার-ই পরিকল্পনা এঁটে বসে আছি। বেস ক্যাম্পের উচ্চতা ৪ হাজার ৯শ মিটার। সামারগাও থেকে সোজা পশ্চিমে মানাসলু। দক্ষিণে নাদী চুলি, হিমাল চুলি, সিমনাঙ পর্বত শিখর। উত্তর-পশ্চিমে নাইকে। কিন্তু বেশ বেলা করে বেরোনোর ফলে আর সে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন সম্ভব না। এই উচ্চতা থেকে আমরা গো হাই লো স্লিপ নীতি অনুসরণ করবো। অর্থাৎ যতদূর পর্যন্ত যাবো তার চেয়ে নিচে ঘুমানোর পরিকল্পনা। এতে উচ্চতাজনিত অসুস্থতা হওয়ার ঝুঁকি কমে।নিচু থেকে ৪ হাজার ফুটে যাত্রার পথেআমরা পানি আর কিছু শুকনো খাবার নিয়ে বেরিয়ে গেলাম। রৌদ্রজ্জ্বল চমৎকার দিন। মানসলু যেন হাতছোঁয়া দূরত্বে। চারপাশে সামদো, নাইকের মতো চূড়া ঘরের চালের উপরে এসে যেন বসে আছে। সামারওগাও সম্ভবত এ অঞ্চলের সবচেয়ে বড় গ্রাম। তাশি জানালো এখানে ২৫৭ ঘর মানুষ থাকে। এদের বেশিরভাগই তিব্বতি। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে হোটেল লজ যারা চালায় তাদের মধ্যে আবার গুরুঙ্গ জাতিগোষ্ঠীর মানুষই বেশি। এ নিয়ে নাকি তিব্বতি আর গুরুঙ্গদের মধ্যে মন কষাকষি চলছে।মানাসলু পর্বত দূরে তিব্বতিদের বাড়ি-ঘর পোশাক দেখলেই চেনা যায়। এদের বেশিরভাগের পেশা পশু পালন। সামারগাওয়ে প্রচুর ইয়াকের পাল চোখে পড়ছে। আর তিব্বতি নারীরা সেসবের বিষ্ঠা সংগ্রহ কর বেড়াচ্ছেন জ্বালানির জন্য। আমরা গ্রাম ছেড়ে মানাসলু বেসক্যাম্পের পথে অগ্রসর হলাম।

গ্রাম ছেড়ে কিছুদূর সমতল মতো পথ। কয়েকটি ছোট জলধারা এসে মিশেছে পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া বুড়িগন্ধাকীতে। মুহিত ভাই আর নূর ভাই গতকাল থেকে বলে যাচ্ছেন বীরেন্দ্র লেকের কথা। মানাসলু গ্লেসিয়ার থেকে এর উৎপত্তি। লেকের জলে গা ভেজাতে পারলে একশো ডলার পুরস্কার- এমন ঘোষণাও ইতোমধ্যে মুহিত ভাই দিয়েছেন। আমরাও অপেক্ষায় আছি কখন দেখবো বীরেন্দ্র লেক। তারপর হবে গা ডোবানোর সিদ্ধান্ত।পাহাড়ের প্রাণী ইয়াকসমতল পথ ছেড়ে শুরু হলো চড়াই। একেবারে খাঁড়া হলেও পেওয়া থেকে নামরুং আসার পথে এমন চড়াই স্বাচ্ছন্দ্যে পার হয়ে এসেছি। কিন্তু এখন বেশ কষ্ট হচ্ছে। আসলে যে উচ্চতায় আছি তাতে এটি স্বাভাবিক। সাড়ে তিন হাজার মিটার থেকে আমরা যাবো চার হাজার মিটারে। ধীরে ধীরে অগ্রসর হতে লাগলাম। কটকটে রোদ আকাশে। এ আশ্চর্য নীলিমা ভেসে যাচ্ছে সে রোদে। অবশেষে এক জায়গা থেকে চোখে পড়লো বীরেন্দ্র লেক। পান্না সবুজ জলের এ লেক মুগ্ধতার বাঁধ ভাঙানোর জন্য যথেষ্ট।মানাসলুর গ্লেসিয়ার বেয়ে আসা পানির লেখ বীরেন্দ্রশুধু নির্বাক অবলোকনের পালা। সরাসরি মানাসলু গ্লেসিয়ার থেকে বয়ে আসা জলে পরিপুষ্ট এ লেকের পানি হিম ঠাণ্ডা। ভেসে বেড়াচ্ছে বরফের চাঙর। ডলারের লোভে আর যাই হোক এই লেকে গোসল করার সাহস হবে না। ফ্রস্ট বাইটে অঙ্গহানি হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা। ক্যামেরায় স্মৃতি ধরে রাখলাম। নিখাদ শুভ্রতার মাঝে রঙের এ বাহার প্রকৃতির নিপুণ ক্যানভাস যেন। এর উচ্চতা ৩ হাজার ৪৫০ মিটার। গাছের ছায়ায় জিরিয়ে নিয়ে আবার উঠতে লাগলাম। প্রচুর ট্রেকার মানাসলু বেসক্যাম্প থেকে ফিরছেন। অনেক গতকালই সেখানে গিয়েছিলেন। আমাদের এ যাত্রায় আর যাওয়া হলো না। নিশ্চয়ই একদিন মানাসলু অভিযানে আসা হবে।মানাসলু পর্বতজিপিএসে চোখ রাখছিলেন নূর ভাই। জিপিএসে চার হাজার মিটারের রিডিং উঠতেই আমরা থামার সিদ্ধান্ত নিলাম। আজকের মতো যথেষ্ট হাইট গেইন হয়েছে। সেখানে বসে মানাসলু নিয়ে আলাপে মেতে উঠলাম। মুহিত ভাইয়ের জন্য এটি বিশেষ একটা ক্ষণ। ২০১১ সালে বিশ্বের এ অষ্টম উচ্চতম শিখরে উড়িয়েছিলেন লাল-সবুজের পতাকা। বিশেষ আমার জন্যও। এর আগে আমার ডিঙানো সর্বোচ্চ উচ্চতা ছিল ৩ হাজার ৬৩৬ মিটার। চলতি বছরের এপ্রিলে সান্দাকফু ট্রেকে। সেই উচ্ছ্বাসে জোর কদমে উৎরাইয়ের পথ ধরলাম। দুপুরের লাঞ্চ সারতে হবে সামারগাও ফিরে।

বাংলাদেশ সময়: ০৯৩৮ ঘণ্টা, নভেম্বর ৩০, ২০১৭
এএ

সুন্দরতম গ্রাম লোহ, সামনে চোখ ধাঁধানো মানাসলু

১১ ঘণ্টা চড়াই-উৎরাই বেয়ে ৮৬৫০ ফুট উচ্চতার নামরুংয়ে

বুড়িগন্ধাকীর সাসপেনশন ব্রিজ পেরিয়ে ফিলিম

পাহাড়ের গায়ে ঝোলা নেপালের একমাত্র ক্লিপ ব্রিজ

কখনও সরু ফিতা কখনও এবড়ো-থেবড়ো পথে যাত্রা

চারিদিকে বান্দরবান বান্দরবান গন্ধ, সামনে আরক্ষেত

ধুলোবালি গিলতে গিলতে ট্রেকিং শুরুর আরুঘাট (পর্ব-৩)

পর্বতারোহণের কেনাকাটা সেরে কাঙ্ক্ষিত যাত্রা (পর্ব-২)

হিমালয়ের মানাসলু ট্রেকিংয়ের অদম্য নেশায় যাত্রা (পর্ব-১)

স্বামীসহ মহিলা ইউপি সদস্যকে মারধর
হলদিয়ায় বিশ্ববাংলা কবিতা উৎসব শুরু ২৭ জানুয়ারি
অর্থমন্ত্রীর গাড়িবহরে দুর্ঘটনা: আহত ৫ জন পেলেন সহায়তা
কার সাধ্য থামায়
কারাগারে বাবাকে দেখে ফেরার পথে প্রাণ গেল আশরাফুলের 
সিরিয়ার আফরিনে সামরিক পর্যবেক্ষক পাঠাচ্ছে রাশিয়া
এড়িয়ে চলায় কলেজছাত্রীকে কুপিয়ে জখম 
মঙ্গলগ্রহের ১০ অদ্ভুত বৈশিষ্ট্য
রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে আগ্নেয়াস্ত্রসহ রোহিঙ্গা আটক
কাতারের সম্পদ দখলের জন্যই কাতার সংকট




Alexa