টাইগারদের কোচ হতে পুরোপুরি প্রস্তুত: সুজন

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম (ফাইল ফটো)

ঘরোয়া ক্রিকেটে বাংলাদেশের সাবেক অলরাউন্ডার খালেদ মাহমুদ সুজন কোচ হিসেবে দারুণ সফল। তার কোচিংয়ে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা জিতেছে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব ও আবাহনী লিমিটেড। বিপিএলে গত আসরে তার প্রশিক্ষণেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ঢাকা ডায়নামাইটস। এবার তিনি জাতীয় দলের কোচ হতে চেয়ে খোলামেলা আলোচনা করেছেন গণমাধ্যমের সামনে।

শুক্রবার (১০ নভেম্বর) সুজন গণমাধ্যমে লঙ্কান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের পদত্যাগ ইস্যুতে কথা বলেন। হাথুরুসিংহের চুক্তির মেয়াদ ছিল ২০১৯ সাল পর্যন্ত। কিন্তু চুক্তির অনেকটা সময় বাকি থাকতেই বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের দায়িত্ব ছেড়ে দিতে চাইছেন তিনি। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানের ইঙ্গিত, হাথুরুসিংহের উত্তরসূরি হতে পারেন বিদেশি।

বাংলাদেশে হাতুরুসিংহের পর্ব শেষ হলে স্বভাবতই আলোচনায় আসছে নতুন কোচ কে হবেন? এ পদে শোনা যাচ্ছে বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাহমুদ সুজনের নাম। আর সুজনও জানালেন পুরোপুরি প্রস্তুতি আছেন তিনি। জেমি সিডন্স যুগে (২০০৭-১১) বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সহকারী কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করার অভিজ্ঞতা রয়েছে সুজনের।

সুজন জানান, ‘জীবনে অনেক চ্যালেঞ্জ নিয়ে আজ আমি এখানে। জাতীয় দলের অধিনায়ক হওয়ার সময় ভাঙা একটা দলকে দাঁড় করানোর চ্যালেঞ্জ ছিল। অনেক বছর ধরে কোচিং করছি, জাতীয় দলের সহকারী কোচের দায়িত্বেও ছিলাম। আমার মনে হয় না খুব কঠিন এই জিনিসটা। এই লেভেলে কোচিংটা এতটা কঠিন না। মোটিভেশনটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। প্লানিং ভালো হতে হয়।’

তিনি আরও জানান, ‘জাতীয় দলের দায়িত্বটা আমি পাব কি না জানি না। কোচ হওয়ার কথা আমি জানি না, এটা নিয়ে কোনো কথা হয়নি। অবশ্যই আমরা চাইবো বাইরে থেকে ভালো কোচ নিয়ে আসতে। যদিও আজ একজনের কাছে শুনলাম, আমার নামও নাকি আলোচনা হচ্ছে। আমি নিজেই এ ব্যাপারে নিশ্চিত নই। মানুষ কি বলছে সেসব বিষয় না। বোর্ডে এটা নিয়ে আলোচনা হবেই। তবে, যদি সুযোগ পাই তাহলে চেষ্টা করব ভালোভাবে করতে। এই মুহূর্তে আমি মনে করি, আমি পুরোপুরি প্রস্তুত।’ 

কয়েক দফায় বিসিবি থেকে হাতুরুসিংহের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু যোগোযোগ করা সম্ভব হয়নি। তার পদত্যাগে ক্রিকেট বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হলো কিনা এমন প্রশ্নে সুজন জানান, ‘আমি বোর্ডের পক্ষ থেকে বলতে পারি, হাথুরুসিংহেকে যতটা দরকার ততটাই সাপোর্ট করেছে বিসিবি। প্রত্যেকটা মানুষের সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখতিয়ার আছে, এটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। নিশ্চয়ই হাথুরুসিংহে এমন কিছু বলবেন না যার কারণে বোর্ডের ইমেজ ক্ষুন্ন হয়। গতকাল ফোনে আমিও চেষ্টা করেছি। তার ফোন বন্ধ ছিল। হয়তো কিছুদিন পর তার সঙ্গে যোগাযোগ করা যাবে। আমি মনে করি সে ইতিবাচক একজন মানুষ। আশা করি তার কাছ থেকে আমরা কারণ জানতে পারব। কেউ যদি চলে যেতে চায়, তাহলে তাকে আটকে রাখা সম্ভব নয় আমাদের পক্ষে।’

লঙ্কান এই কোচের হাত ধরে বাংলাদেশ অনেক সাফল্য পেয়েছে জানিয়ে সুজন বলেন, ‘বাংলাদেশের ক্রিকেটে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন হাথুরুসিংহে। টাইগারদের আজকের অবস্থানে আসার পেছনে তার অনেক অবদান। তার পদত্যাগের খবর শুনে খুবই অবাক হয়েছি। দক্ষিণ আফ্রিকায় আমি থাকাকালে তার সঙ্গে এমন কোনো আলোচনাই হয়নি। বোর্ড হয়তো তার সঙ্গে কথা বলবে, আলোচনা করবে।’

বাংলাদেশ সময়: ২০৫০ ঘণ্টা, ১০ নভেম্বর ২০১৭
এমআরপি


নাক ভেঙে ৩ মাস খেলেছিলেন রামোস
গাঁজাসহ নেত্রকোনা পৌর কাউন্সিলর আটক
শাবিপ্রবিতে 'দ্বাবিংশের ঝংকার' ২২ নভেম্বর
ত্রিপুরায় বিজেপি যুব মোর্চার থানা ঘেরাও
সিরাজগঞ্জে ইয়াবাসহ ২ মাদক বিক্রেতা আটক

Alexa